Home / সারাদেশ / রংপুর / যেভাবে হত্যা করা হয় এমপি লিটনকে

যেভাবে হত্যা করা হয় এমপি লিটনকে

oo-3গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন নিজ বাসভবনে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। শনিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে সন্ধ্যায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের সাহাবাজ গ্রামে এমপির নিজ বাসভবনে গুলিবর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের প্রধান বিমল চন্দ্র রায় সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সংসদ সদস্য লিটনকে খুব কাছ থেকে গুলি করা হয়েছে। তার শরীরে মোট পাঁচটি গুলি লেগেছে। এর মধ্যে দুটি গুলি লেগেছে বুকে আর তিনটি লেগেছে হাতে। চিকিৎসকরা আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাকে রক্ষা করা যায়নি।

এমপির ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও তার কোল্ডস্টোরেজের ম্যানেজার অনিল সাহা ও এমপির শ্যালক আবু নাসের মিরান জানান, সন্ধ্যা পৌনে ছয়টায় সাংসদ লিটন তার দ্বিতল বাসভবনের নিচ তলার বৈঠক খানায় বসে ৫ থেকে ৬ জন নেতাকর্মীকে নিয়ে দলীয় সাংগঠনিক বিষয়ে কথা বলছিলেন। এসময় ৩ জন যুবক হেলমেট পড়া অবস্থায় একটি মোটরসাইকেলে করে তার বাসার সামনে আসে। তাদের একজন বাইরের আঙিনায় মোটরসাইকেলে বসা ছিল, তখন মোটরসাইকেলটির ইঞ্জিনও চলছিল। অপর দু’জন এমপি লিটনের সাথে জরুরি কথা বলার অজুহাতে ঘরের ভেতরে ঢুকে তাকে লক্ষ্য করে খুব কাছ থেকে আকস্মিকভাবে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে। লিটন মাটিতে লুটিয়ে পড়েই অচেতন হয়ে যান। এসময় দুর্বৃত্তরা দ্রুত ঘর থেকে বেরিয়ে মোটরসাইকেলে চড়ে পালিয়ে যায়।

লিটনের স্ত্রী বড় ভাই বদিউল কারিমিন বাদল জানান, দুর্বৃত্তরা আসা এবং গুলি করার সময় এমপি লিটনের স্ত্রী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক খুরশিদ জাহান স্মৃতি রান্না ঘরে ব্যস্ত ছিলেন। গুলির আওয়াজ শুনে তিনি ছুটে এসে তার স্বামীকে মাটিতে লুটিয়ে পড়া অবস্থায় দেখতে পান। তার চিৎকারে আশেপাশের মানুষ ছুটে আসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হামলাকারীদের গুলির শব্দ শুনে বাড়ির এবং আশেপাশের লোকজন ছুটে আসেন। তারা মোটরসাইকেল নিয়ে ৩ জন যুবককে পালাতে দেখেন কিন্তু তাদের হাতে রিভলভার থাকায় কেউ সামনে যেতে সাহস করেনি। তারা দ্রুত রাস্তায় উঠে বামনডাঙ্গা-নলডাঙ্গা সড়ক ধরে পালিয়ে যায়।

Contact Us