Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / বর্ষার প্রথম দিন আজ

বর্ষার প্রথম দিন আজ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: আজ পয়লা আষাঢ়। বর্ষাকাল শুরু। বসন্তকে ঋতুরাজ বলা হলেও নান্দনিক সৌন্দর্য নিয়ে আসে বর্ষাকাল। বর্ষায় চারপাশ মুখরিত থাকে। গাছে গাছে শোভা পায় কেয়া, কদম, বকুল, কামিনী, দোলনচাঁপা, বেলি, মাধবিলতা, অলকানন্দ প্রভৃতি নানান রঙের বাহারি ফুল। প্রকৃতিতে বর্ষা আসে অন্যরকম সজীবতা নিয়ে। ফুটেছে বর্ষার স্মারক কদম ফুল।

‘বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান/ আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান’। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আবেগময় এই গান মানুষের হৃদয়কে নাড়া দেয়, উচ্ছ্বসিত ও উজ্জীবিত করে। ঋতু পরিক্রমায় গ্রীস্মের দীর্ঘ তাপদাহের পর এলো বর্ষা। বর্ষা মানেই আকাশজুড়ে মেঘের ঘনঘটা। বর্ষা মানেই সময়ে-অসময়ে বৃষ্টি-বাদল। বর্ষা মানেই নাগরিক জীবণে স্বস্তি-শান্তি। জনজীবনে স্বস্তির পরশ নিয়েই আসে বর্ষা। বর্ষার প্রকৃতি ও পরিবেশ উপভোগ্য হয়ে ওঠে মানব জীবনে।

বর্ষা বিহীন বাংলাদেশ কল্পনাও করা যায় না। বর্ষা ঋতু তার স্বকীয় বৈশিষ্ট্যের কারণে অনন্য-স্বতন্ত্র। কবি-সাহিত্যিকদের কাছে বর্ষাকাল অত্যন্ত আবেগময়, কাব্যময় ও প্রেমময়। রহস্যময়ী বর্ষার রূপ ও বৈচিত্রে রয়েছে নীরব কোমলতা-মাদকতা। আকাশ-প্রকৃতির গভীর মিতালিতে শিল্প-সাহিত্যের উপকরণ খুঁজে ফেরেন শিল্পী, কবি ও সাহিত্যিকরা। তাঁরা এই অনুষঙ্গ থেকে আবহমানকাল ধরে অনুপ্রাণিত ও স্পন্দিত হয়ে আসছেন। সাহিত্য-সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের সমৃদ্ধভারে বর্ষার অপরূপ রূপের বর্ণনা চিরকালীন-অমলীন।

‘নীল নবঘনে আষাঢ় গগনে, তিল ঠাঁই আর নাহিরে/ ওগো আজ তোরা যাসনে ঘরের বাহিরে’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আষাঢ়’ কবিতায়ও ফুটে উঠেছে বর্ষার প্রথম মাস আষাঢ়ের ছন্দময় সাহিত্য-কথামালা। ওই কবিতায় প্রস্ফুটিত হয়েছে গ্রাম-বাংলার বর্ষার রূপ-লাবণ্য। বর্ষার শীতল আবহাওয়ায় গাছে গাছে কদম ফুলের সমারোহ দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। কদম ফুল যেন স্বাগত জানিয়েছে আষাঢ়কে।

আষাঢ় এসেই বর্ষার মাধ্যমে প্রকৃতিকে বদলে দেয়। চারদিকের পরিবেশে ভিন্নমাত্রা যোগ করে। বর্ষা রিমঝিম বৃষ্টি ঝরিয়ে প্রকৃতিকে সজীব-সতেজ করে তোলে। বর্ষার মুষলধারার বৃষ্টিতে ভেজার জন্য দুরন্তপনায় মেতে ওঠে শিশু-কিশোরের দল। তাপদাহে চৌচির মাঠ-ঘাট, শুকনো খাল-বিল এবং নিস্প্রাণ বনবিথিকা সজীবতায় জেগে উঠবে এই বর্ষায়।

বৃষ্টি হোক না হোক আজ থেকেই পঞ্জিকার হিসেব অনুযায়ী শুরু হলো প্রেমময়-আকাঙ্ক্ষার বর্ষা ঋতু।

এটা অমোঘ সত্যি যে, গ্রীষ্মের খরতাপের ধূসর নাগরিক জীবন আর প্রকৃতিতে প্রাণের স্পন্দন জাগায় বর্ষা। বর্ষাবাহী দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিলম্বে প্রবেশ করায় বৃষ্টির বিস্তৃতি এখনো পুরো দেশে ঘটেনি। তৃষ্ণাকাতর জগত্সংসার। গ্রীষ্মের রুক্ষ খরতাপে ওষ্ঠাগত প্রাণ-মন সিক্ত করতে বর্ষা যে খুবই আকাঙ্ক্ষার। জ্যৈষ্ঠের প্রচণ্ড খরতাপে রুক্ষ প্রকৃতি সজীব হয়ে উঠবে বর্ষার বর্ষণের মৃদঙ্গ-ছোঁয়ায়।

পুষ্প-বৃক্ষে-পত্রপল্লবে নতুন প্রাণের সঞ্চার করে নতুন সুরের বার্তা নিয়ে এসেছে বর্ষা। রবিঠাকুরের ভাষায় ‘ঐ আসে ঐ ঘন গৌরবে নবযৌবন বরষা, শ্যাম গম্ভীর সরসা…’

আমরা এটাই দেখে এসেছি যে, আষাঢ়ের রিমঝিম বৃষ্টি গ্রীষ্মের ধুলোমলিন জীর্ণতাকে ধুয়ে ফেলে গাঢ় সবুজের সমারোহে প্রকৃতি সাজে পূর্ণতায়। রঙিন হয়ে পুকুর-বিলে ফোটে শাপলা-পদ্ম। কেয়ার বনেও কেতকীর মাতামাতি। বর্ষা ঋতু তার বৈশিষ্ট্যের কারণে স্বতন্ত্র। বর্ষার প্রবল বর্ষণে নির্জনে ভালোবাসার সাধ জাগে, চিত্তচাঞ্চল্য বেড়ে যায়। তাই বর্ষাবিহীন বাংলাদেশ ভাবাই যায় না।

‘বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল’—এই বর্ষার অঙ্গশোভা। কেতকীর মন মাতানো সুবাস, জুঁই, কামিনী, বেলি, রজনিগন্ধা, দোলনচাঁপা আর কদমফুলের চোখ জুড়ানো শোভা অনুষঙ্গ হয়ে আছে আষাঢ়ের। জীবনানন্দ দাশ আষাঢ়কে বলেছেন, ‘ধ্যানমগ্ন বাউল-সুখের বাঁশি’।

বর্ষা বাঙালি জীবনে নতুন প্রাণসঞ্চারকারী। বৃষ্টিস্নাত কদম ফুলের সৌন্দর্য্য যে দেখেছে, মুগ্ধ নয়নে চেয়ে না থেকে পারেনি। এর বর্ণনায় পল্লীকবি জসীমউদদীন লিখেছেন- ‘বনের ঝিয়ারি কদম্বশাখে নিঝঝুম নিরালায়, / ছোট ছোট রেণু খুলিয়া দেখিছে, অস্ফুট কলিকায়।’

বৃষ্টি হলে গ্রামের নদী নালা পুকুরে জল জমে থৈ থৈ করে। নদীর তীর উপচে কখনও বা ধেয়ে আসে বন্যা। তখন গ্রামের সাধারণ লোকজনের কষ্টের শেষ থাকে না। তারপরও গ্রীষ্মের তাপদাহ এড়িয়ে বর্ষায় বারিধারায় শান্তি খুঁজে পায় মানুষ। বর্ষা আনন্দ-বেদনার সারথী। সবুজের সমারোহে, মাটিতে নতুন পলির আস্তরণে বর্ষা আনে জীবনেরই বারতা। তাই বর্ষাকে স্বাগতম।

Check Also

বিশ্ব পরিবেশ দিবস আজ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানান কর্মসূচির মধ্যদিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 + eight =

Contact Us