Home / দেশের খবর / নরসিংদীতে এবার আ.লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

নরসিংদীতে এবার আ.লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: নরসিংদীতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সুমন মিয়া হত্যাকাণ্ডের ৬ দিনের মাথায় ভগিরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবুল হাসানকে (৪০) কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা। এ সময় তাকে বাঁচাতে গেলে প্রতিপক্ষের ছোড়া গুলিতে দুইজন গুলিবিদ্ধ হন।

মঙ্গলবার (২৮ মে) দিবাগত রাত ১২টার দিকে মেহেরপাড়া আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে নিজবাড়ি ফেরার পথে ভগিরথপুর ওবায়দুল্লা টেক্সটাইলের সামনে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৬ জনকে আটক করছে পুলিশ।

এদিকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবুল হাসানকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ উঠেছে নরসিংদীর মেহেরপাড়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আজাহার অমিত প্রান্তর বিরুদ্ধে। নিহতের ভাই হাফেজ মোহাম্মদ অলিউল্লাহ এমন অভিযোগ করেছেন।

নিহত মাহাবুবুল হাসান মেহেরপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ভগিরথপুর গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। গুলিবিদ্ধ আহতরা হলেন- সাইদ হাসান পাপ্পু ও ফরহাদ।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানিয়েছেন, স্থানীয় রাজনীতি ও এলাকার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে মাহাবুবুল হাসানের সঙ্গে একই ইউনিয়নের বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার অমিত প্রান্তর দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এর জের ধরে তাদের সমর্থকদের মধ্যে একাধিকবার ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও মামলা পাল্টা মামলার ঘটনা ঘটে। সর্বশেষ গত ৮ মে সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব আরও প্রকট হয়। এরই জের ধরে সম্প্রতি শেকেরচর এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে তিনি মেহেরপাড়া আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে মিটিং শেষে নিজবাড়ি ফিরছিলেন। চেয়ারম্যান ও তার সঙ্গে কয়েকজন সমর্থক হেঁটে ভগিরথপুর নিজ বাড়িতে যাচ্ছিলেন। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার অমিত প্রান্তর পরিচালনাধীন ওবায়দুল্লা টেক্সটাইলের সামনে পৌঁছালে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা চালায়। ওই সময় সন্ত্রাসীরা এলোপাথাড়ি গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাতে থাকে। পরে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা মাহাবুবুলকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার ঘাড়ে কোপাতে থাকে। এতে তার মাথা শরীর থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে ২২ মে নরসিংদীর রায়পুরায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বলি হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের হাতে নিহত হন রায়পুরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সুমন মিয়া।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহত মাহাবুবুলের সঙ্গে থাকা সমর্থক রবিন বলেন, ‘ভাইয়ের সঙ্গে হেঁটে যাচ্ছিলাম। সামনে একটা বালুর ট্রাক ছিল। ট্রাকের চিপা থেকে নুরু, সেন্টু, আতাউর, রাসেল, ফাহিম, ইমরান, নয়নসহ ১০-১২ জন বের হয়। তারা এসে প্রথমে গুলি ও ককটেল মারে। তখন আমরা দৌড়ে দূরে সরে যাই। পরে দেখি তারা ভাইরে কুপাইতাছে। ওই সময় পাপ্পু ভাইও গুলি খাইছে।’

নরসিংদী সদর হাসপাতালের আবাসিক কর্মকর্তা (আরএমও) মাহামুদুল কবির বাশার কমল বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবুলের ঘাড়ের পেছনে বড় ধরনের কাটা ক্ষত ছিল। তার কানের একটা অংশও কেটে গেছে। হাসপাতালে আনার পর আমরা তাকে মৃত অবস্থায় পেয়েছি। তার সঙ্গে আরও ১ জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নিয়ে আসা হয়। তাকে আমরা ঢাকায় পাঠিয়েছি।

নরসিংদী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. তানভির আহাম্মেদ জানান, তৎক্ষণিকভাবে খবর পেয়েছি মেহেরপাড়ার সাবেক চেয়ারম্যানসহ ৩ জন আহত হয়েছেন। দুই জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক খোকন চন্দ্র সরকার বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান মাহাবুবুলকে হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে।

Check Also

সংলাপে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার ইস্যুতে চলমান আন্দোলনের বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারের সঙ্গে আলোচনায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 + seventeen =

Contact Us