Home / পরিবেশ প্রকৃতি / সুন্দরবনের আয়তন কমেছে ১১ হাজার হেক্টর

সুন্দরবনের আয়তন কমেছে ১১ হাজার হেক্টর

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সুন্দরবন বিশ্বের বৃহত্তম শ্বাসমূলীয় বন। বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলসহ বিশ্বের অনেক দেশের সমুদ্র উপকূলে এমন অনেক শ্বাসমূলীয় বা ম্যানগ্রোভ বন ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকলেও সুন্দরবন তাদের বৃহত্তম। তাছাড়া একই সঙ্গে বন, জলাভূমি, সামুদ্রিক ও উপকূলীয় বাস্তুতন্ত্রের সমন্বয়ে গঠিত এমন প্রাকৃতিক বন পৃথিবীতে আর দেখা যায় না। ছোট-বড় নানা প্রজাতির গাছ আর ছোট ছোট খাল ও নদীর ধারায় ভরপুর এই বন ‘রয়েল বেঙ্গল টাইগার’ বা ডোরাকাটা বাঘের অন্যতম আবাসস্থলও।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকটি হলো, এই বন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশের অন্যতম প্রাকৃতিক ঢাল। বিশেষজ্ঞদের মতে, গত ৩০ বছরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বঙ্গোপসাগর উপকূলে যতবার আঘাত হেনেছে, তাতে সুন্দরবন যদি ঢাল হয়ে না দাঁড়াত তাহলে গোটা বাংলাদেশই অস্তিত্ব সংকটে পড়ত। শুধু প্রাকৃতিক সম্পদেরই নয়, বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতিও এই দেশকে সামাল দিতে হতো।

এদিকে জলবায়ুর পরিবর্তন এখন বড় এক বৈশ্বিক সংকট হয়ে উঠেছে। এই পরিবর্তনজনিত ঝুঁকির কারণে ভবিষ্যতে আরও অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করতে হবে বাংলাদেশকে। তাই এই ক্ষতি থেকে সুন্দরবনকে রক্ষার লক্ষ্যে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিতে হবে। না হলে ২০০-এর বেশি বাঘের অন্যতম আবাসস্থল ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য টিকে থাকা কঠিন হবে।

রেমালের তাণ্ডব সামলেছে সুন্দরবন: পরিবেশবিদরা বলছেন, সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবও সামাল দিয়েছে সুন্দরবন। আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা ছিল, উপকূল ও বনাঞ্চলে আগের বিভিন্ন ঘূর্ণিঝড়ের চেয়ে অনেক বেশি বিপর্যয় ডেকে আনবে রেমাল। কার্যত তা-ই হয়েছে। রেমালের আঘাতে আগের ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ও আম্ফানের চেয়ে তিনগুণ বেশি গাছপালা, পশুপাখি, প্রাণী ও অবকাঠামোর ক্ষতি হয়েছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে অন্তত ৪০ বছর লাগবে বলে জানিয়েছেন বন কর্মকর্তা ও জলবায়ুবিদরা। তারা জানাচ্ছেন, সুন্দরবন না থাকলে লোকালয়ের আরও বেশি ক্ষয়ক্ষতি হতো।

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব বেশি পড়েছে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্যের ওপর। এতে ১১ কিলোমিটার এলাকার গোলপাতার বন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জোয়ার-ভাটার চক্রে পুরো সুন্দরবন ৪৮ ঘণ্টায় ৩ থেকে ৯ ফুট পানির নিচে ছিল। ফলে পশুপাখির বাসা, ডিম ও বাচ্চা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বনের ভেতরে জীববৈচিত্র্য যেমনÑ হরিণ, শূকর, গুইসাপ, সাপ ও বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণীর মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। বনের পুকুরগুলো লবণাক্ত পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় সুপেয় পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এতে ভবিষ্যতে এই বনের সামগ্রিক জীববৈচিত্র্য আরও সংকটাপন্ন হবে। বনের ভেতর মিষ্টিপানির জলাশয়গুলোতে লবণাক্ততা বেড়ে যাওয়াতে বাঘসহ বন্য প্রাণীরা নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অকালে মারা যেতে পারে। বনে ফলদ বৃক্ষও কমে যেতে পারে। এর ফলে নানা প্রজাতির পাখি, প্রাণী ও বানরের খাদ্য সংকট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

২৫ বছরে আয়তন কমেছে ১০,৯৮০ হেক্টর: গবেষণায় বলা হচ্ছে, বাংলাদেশে গত ২৫ বছরে সুন্দরবনের আয়তন কমেছে ১০,৯৮০ হেক্টর। ভাঙনের কারণে প্রতি বছর ৬ কিলোমিটার বনের আয়তন কমছে। গত ৩৭ বছরে ১৪৪ কিলোমিটার আয়তন কমেছে। ২০০৭ সালের সিডরে সুন্দরবনের প্রায় ৪০ শতাংশ ক্ষতি হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১৯৫৯ সালে সুন্দরবনে প্রতি হেক্টরে সুন্দরী গাছের সংখ্যা ছিল ২১১টি। ২০২০ সালে এই সংখ্যা এসে দাঁড়ায় ৮০টিতে। এছাড়া বনের বিভিন্ন প্রাণীও অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে।

প্রকৃতি সংরক্ষণ বিষয়ক সংস্থাগুলোর আন্তর্জাতিক জোট আইইউসিএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানবসৃষ্ট কারণ, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি ও চরম আবহাওয়া পরিস্থিতির কারণে পৃথিবীর অর্ধেকের বেশি ম্যানগ্রোভ বন ধ্বংস হওয়ার ঝুঁকিতে। বাংলাদেশের নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলায় যেসব ম্যানগ্রোভ বন রয়েছে; সেগুলোও ঝুঁকিতে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। সংস্থাটি বলছে, মানুষের অবিবেচনাপ্রসূত নানা কর্মকাণ্ডের কারণে সুন্দরবনের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে। অনিয়ন্ত্রিত পর্যটন, শিল্পের দূষণ, জলযান থেকে তেল ছড়িয়ে পড়া, আগ্রাসী প্রজাতির বিস্তার, সম্পদ আহরণে বিজ্ঞানকে সঠিকভাবে কাজে না লাগানো, চোরা শিকার, উজানে পানির প্রবাহ হ্রাস পাওয়া, লবণাক্ততা বৃদ্ধি পাওয়া, রোগের আক্রমণ, আগুন লাগা, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে যাওয়া, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ইত্যাদি কারণে এ বন ধ্বংসের পথে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২০০৭ সালে সিডরের পর সুন্দরবনে ৪০টি হরিণ, একটি বাঘ ও একটি তিমির মৃতদেহ পাওয়া যায়। ২০০৯-এ ঘূর্ণিঝড় আইলার পর তিনটি হরিণ ও একটি শূকরের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ২০১৩ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত হওয়া ঝড়গুলোতে বাঘ, হরিণসহ অন্য কোনো বন্য প্রাণীর ক্ষতি হয়নি। তবে ২০২১ সালের ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে চারটি হরিণের মৃতদেহ পাওয়া যায়। আর ঘূর্ণিঝড় রেমালে ১২৭টি মৃত হরিণ ও চারটি মৃত বন্য শূকরের মরদেহ উদ্ধার করে বন বিভাগ। এছাড়া ১৮টি জীবিত হরিণ ও একটি অজগরকে উদ্ধার করে বনে ছেড়ে দেওয়া হয়।

সুত্র: প্রতিদিনের বাংলাদেশ

Check Also

বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সারা দেশে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen + 12 =

Contact Us