Home / বিনোদন / যে কারণে বলিউডের সিনেমা ছেড়ে পালিয়েছিলেন ইন্দ্রাণী

যে কারণে বলিউডের সিনেমা ছেড়ে পালিয়েছিলেন ইন্দ্রাণী

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ইন্দ্রাণী হালদার। টিভি কিংবা বড় পর্দা, সবখানেই ছাপ রেখেছেন নিজের প্রতিভার। তবে ক্যারিয়ারের শুরুতে মুম্বাইয়ের পাড়ি জমান অভিনেত্রী। সেখানে এমন এক ঘটনার সম্মুখীন হয়েছিলেন যে পরে আর মুম্বাইয়ের আলো ঝলমলে শোবিজ অঙ্গন তাকে টানেনি।

একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে জীবনের সেই ভয়ংকর অভিজ্ঞতাই শেয়ার করেছিলেন আজকের ‘শ্রীময়ী’ ইন্দ্রাণী।
২০১৮ সাল থেকে বিশ্বজুড়ে শুরু হয় ‘মি-টু’ মুভমেন্ট। কাজের বিনিময়ে কুপ্রস্তাব, একের পর এক ঘটনা সামনে আনেন তারকারা। তারই অংশ হিসেবে ইন্দ্রাণী তখন জানান, প্রায় তিন দশক আগে এক প্রযোজকের কুনজর পড়েছিল তার ওপর।

তখন তার বয়স ২০ বছর। ভাগ্যের জোরে সে যাত্রায় বেঁচে যান তিনি।
‘উন্মেষ’ নামে একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে ইন্দ্রাণী বলেন, ‘তখন আমার ২০ বছর। মুম্বাই গিয়েছিলাম একটা ছবি করতে।

একদম জীবনের প্রথম দিকের ছবি। সে সময় আমি এক ভয়ংকর অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হই।’
অভিনেত্রী জানান, তাকে সকালের ফ্লাইটে মুম্বাইয়ে ডাকা হয়। অভিনেত্রীর বাবার টিকিট কাটা হয় বিকালের। কোনো দামি হোটেলে না রেখে লিংকিং রোডের এক সাধারণ হোটেলের রুম দেওয়া হয়েছিল তাকে।

শুরুতেই খটকা লাগে। এরপর প্রযোজক আচমকা ফোন করে জানান, তিনি দেখা করতে আসবেন। ঘাবড়ে গিয়েছিলেন অল্প বয়সী ইন্দ্রাণী। রুমে এসে সেই প্রযোজক সুযোগ বুঝে কুপ্রস্তাব দেন অভিনেত্রীকে। রীতিমতো শারীরিকভাবে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করেন।
ইন্দ্রাণী বলেন, ‘আমি বারবার বলেছিলাম, এটা করবেন না প্লিজ। আমি এভাবে কখনো কাজ পাইনি, পেতেও চাই না।’ প্রযোজক পাল্টা বলেন, ‘তুম বাঙালি লাড়কি, তুমকো হাম বাড়া হিরোইন বানাগেয়া, বাড়া বাড়া হিরোইন হামারে কদমোমে রেহতা হ্যায়।’ অর্থাৎ ‘তুমি বাঙালি হিরোইন, তোমাকে আমি অনেক বড় অভিনেত্রী তৈরি করব বলিউডের, অনেক নামিদামি হিরোইনরা আমার পায়ের তলায় থাকে।’

দৃঢ়কণ্ঠে সে সময় নায়িকা বলেন, ‘হতে পারে বড় বড় হিরোইন আপনার পায়ের তলায়। কিন্তু আমি এভাবে কাজ করিনি, আমাকে কলকাতা থেকে ডেকে এনে কাজ দিয়েছেন। কোনো সমঝোতা বা কম্প্রোমাইজ আমি করব না।’

এরপর মনে মনে সৃষ্টিকর্তাকে ডাকতে থাকেন ইন্দ্রাণী। বলেন, ‘সৃষ্টিকর্তা, আজ কি আমি ধর্ষণের শিকার হব!’ প্রযোজক তখন নিজের জামাকাপড় খুলতে শুরু করেছেন, ওমনি তার ফোন বেজে ওঠে। ফোনটি করেছিলেন প্রযোজকের স্ত্রী। ইশারায় ইন্দ্রাণীকে চুপ থাকতে বলছিলেন প্রযোজক। এই ফাঁকে দৌড়ে গিয়ে দরজা খুলে দেন ইন্দ্রাণী। জোরে জোরে কাশতে শুরু করেন। কাশির আওয়াজ ফোনের ওপারে পৌঁছেছিল। স্ত্রীকে নিজের সঠিক অবস্থান জানাতে একপ্রকার বাধ্যই হন প্রযোজক। এরপর হোটেল রুম থেকে চলে যান প্রযোজক, শুধু বলে যান―‘তুমহারা কুছ নেহি হোগা, তুম বেকার হো একদম।’

ইন্দ্রাণী বলেন, ‘সেদিন উনি আমার কনফিডেন্সটা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। আমি কোনো দিন কম্প্রোমাইজ করে হিরোইন হতে ইন্ডাস্ট্রিতে আসিনি।’

ইন্দ্রাণী আরো বলেন, ‘ওই প্রযোজকের নামটা নিলাম না। কারণ উনি আর বেঁচে নেই। তবে পরবর্তী সময়ে যখনই ওনার মুখোমুখি হয়েছি, উনি কোনো দিন চোখ তুলে আমার দিকে তাকাতে পারেননি।’

Check Also

কোরবানি দিলেন বিদ্যা সিনহা মিম

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: চিত্রনায়িকা বিদ্যা সিনহা মিম।সনাতন ধর্মের অনুসারী হলেও প্রতিবছর ঈদ উদ্‌যাপনের ধর্মীয় বার্তা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × four =

Contact Us