Home / দেশের খবর / বন্দরে মে মাসে সর্বোচ্চ কনটেইনার পরিবহন

বন্দরে মে মাসে সর্বোচ্চ কনটেইনার পরিবহন

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রামে আমদানি ও রফতানি মিলিয়ে ৩ লাখ ১৯৩টি কনটেইনার (প্রতিটি ২০ ফুট লম্বা) পরিবহন হয়েছে মে মাসে। কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী বন্দরের ইতিহাসে মাসভিত্তিক হিসাবে এটাই সর্বোচ্চ। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, ডলার সরবরাহ সংকটে বিগত বছরগুলোয় নেতিবাচক চিত্র দৃশ্যমান হলেও চলতি অর্থবছরের আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বৃদ্ধির তথ্য মিলেছে চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহন কার্যক্রম বিশ্লেষণে।

চট্টগ্রাম বন্দরের মূল জেটি, কমলাপুর কনটেইনার ডিপো ও পানগাঁও নৌ-টার্মিনালের পণ্যভর্তি ও খালি কনটেইনার ওঠানো-নামানোর সংখ্যা হিসাব করে বন্দর কর্তৃপক্ষ। আমদানি ও রফতানি আলাদাভাবে বিবেচনায় নিলেও গত মাসে সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়েছে। চলতি অর্থবছরের মে মাসে আমদানি হওয়া সর্বোচ্চ ১ লাখ ৫৯ হাজার কনটেইনার পরিবহন হয়েছে। এর আগে সবচেয়ে বেশি আমদানি কনটেইনার পরিবহন হয়েছিল অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে, যার সংখ্যা ১ লাখ ৪৯ হাজার ৮১২টি। একইভাবে মাসভিত্তিক হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিবহন হয়েছে রফতানির ক্ষেত্রেও। মে মাসে চট্টগ্রাম বন্দরের অধীনে রফতানি কনটেইনার পরিবহন হয়েছে ১ লাখ ৪০ হাজার ৪৫৬টি। চলতি অর্থবছরে এর আগে সবচেয়ে বেশি রফতানি কনটেইনার পরিবহন হয়েছিল গত জুলাইয়ে ১ লাখ ২৭ হাজার ৩৪৯টি।

চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘চলতি অর্থবছরের মে মাসে সর্বমোট কনটেইনার পরিবহন ৩ লাখ ছাড়িয়েছে। বন্দরে এক মাসে এতসংখ্যক কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের নজির নেই। এর আগে আমদানি-রফতানি মিলিয়ে সর্বোচ্চ কনটেইনার হ্যান্ডলিং হয়েছিল গত বছরের মে মাসে ২ লাখ ৯৮ হাজারটি। আমদানি ও রফতানি আলাদাভাবে বিবেচনায় নিলেও মে মাসে রেকর্ড গড়েছে।’

দেশে কনটেইনারে পণ্য আমদানি-রফতানি হয় চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর দিয়ে। এর মধ্যে কনটেইনার পরিবহনের ৯৮ শতাংশই আনা-নেয়া হয় চট্টগ্রাম বন্দরকে ব্যবহার করে। শিল্পের কাঁচামাল, মূলধনি যন্ত্রপাতি, বাণিজ্যিক পণ্য—এর সবই আনা হয় কনটেইনারে। আবার সমুদ্রপথে রফতানি পণ্যেরও প্রায় পুরোটাই কনটেইনারে পাঠানো হয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের ১১ মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় পণ্য আমদানি-রফতানি পরিবহন বেড়েছে। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে (জুলাই-মে) এ বন্দর দিয়ে কনটেইনার পরিবহন হয়েছে ২৮ লাখ ৯৩ হাজার ৯১৭টি। এর আগে ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে কনটেইনার হ্যান্ডলিং হয়েছিল ২৭ লাখ ১৯ হাজার ২৩টি।

দেশের শীর্ষ পর্যায়ের উদ্যোক্তারা বলছেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও দেশে ডলার সরবরাহ সংকটে দুই থেকে আড়াই বছর ধরে আমদানি মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে। তবে সাম্প্রতিক কালে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। ব্যবসায়ীদেরও ঋণপত্র খুলতে আগের মতো কঠোর নিয়ন্ত্রণে না পড়ায় আমদানিতে ইতিবাচক প্রবণতা তৈরি হয়েছে। তবে সংকট পুরোপুরি কেটে গেছে, এ কথা বলার সময় এখনো আসেনি। তাদের দাবি, অপরিহার্য নয় এমন পণ্যের ঋণপত্র খোলায় কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ রেখে শিল্পের কাঁচামাল, খাদ্য ও ওষুধের মতো পণ্যসামগ্রীর ক্ষেত্রে স্বাভাবিক রাখতে হবে।

কাঁচামাল আমদানিতে বৃহৎ পরিসরে বন্দর ব্যবহার করছে বিএসআরএম গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমীর আলী হুসাইন বলেন, ‘বর্তমানে আমদানিতে এলসি সংকট আগের চেয়ে ভালো হওয়ায় আমদানি কার্যক্রমেও সেটি দৃশ্যমান হয়েছে। যদিও সবকিছু আগের অবস্থায় ফিরে এসেছে, সেটি বলা যাবে না। দেশের উৎপাদন ব্যবস্থা সম্পর্কিত আমদানি কার্যক্রম আগামীতে আরো সহজ ও স্বাভাবিক করে আনতে পারলে অর্থনীতিতেও গতি আসবে।’

রফতানিতে বড় পরিসরে বন্দর ব্যবহারকারীদের অন্যতম প্যাসিফিক জিন্স গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ এম তানভীর  বলেন, ‘গত এপ্রিলে ঈদের একটা বন্ধ ছিল। আবার চলতি মাসেও ঈদুল আজহার একটা টানা বন্ধ আসছে, যে কারণে এর আগে শিপমেন্টের একটা চাপ মে মাসে পড়েছে। এটা একটা কারণ, তবে ক্রেতা দেশগুলোয় অনিশ্চয়তা কমে আসায় রফতানিতেও ডেভেলপ করার সুযোগ তৈরি হয়েছে। আশা করছি সামনের দিনগুলোয়ও রফতানিতে প্রবৃদ্ধি ভালো হবে।’

শুধু কনটেইনারই নয়, বন্দরে বেড়েছে কার্গো পরিবহনও। চলতি অর্থবছরে গত মে মাসেই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ কোটি ১১ লাখ কার্গো পরিবহন হয়েছে চট্টগ্রাম বন্দরের অধীনে। চলতি অর্থবছরে এর চেয়ে বেশি কার্গো পরিবহন হয়েছিল গত মার্চে ১ কোটি ১৩ লাখ ৩৪ হাজার। তবে অর্থবছরের ১১ মাস হিসাব করলে এ সংখ্যা দাঁড়ায় ১১ কোটি ৩৪ লাখ ৮৭ হাজার। গত অর্থবছরে একই সময়ে (২০২২-২৩) মোট কার্গো (কনটেইনার পণ্য ও কনটেইনারবিহীন পণ্য) পরিবহন হয়েছিল ১০ কোটি ৮০ লাখ ৩৬ হাজার।

কনটেইনারে কাঁচামাল আমদানি ও রফতানি পণ্য পরিবহনে এককভাবে শীর্ষ ব্যবহারকারী হলো বিজিএমইএ। সংগঠনটির প্রথম সহসভাপতি ও ওয়েল গ্রুপের পরিচালক সৈয়দ নজরুল ইসলাম বণিক বার্তাকে বলেন, ‘নানান চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়েও রফতানি ঘুরে দাঁড়ানোর একটা আভাস মিলছে। কিন্তু আমাদের কস্ট অব প্রোডাকশন বেড়ে যাওয়ার কারণে এই ঘুরে দাঁড়ানোকে শেষ পর্যন্ত ধরে রাখতে পারব কিনা সেটি নিয়ে সন্দেহের যথেষ্ট কারণ রয়েছে। বায়াররা আমাদের দেশে লেবার কস্ট কম এটাই দেখে কিন্তু জ্বালানিসহ আনুষঙ্গিক খরচের বিষয়গুলো দেখে না। উৎপাদন ব্যবস্থায় এটা আমাদেরই বহন করতে হচ্ছে। আর এ জায়গায়ই প্রতিযোগী দেশগুলোর সঙ্গে আমাদের পার্থক্য গড়ে দেয়।’

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম বলেন, ‘আমদানি-রফতানি বাড়া-কমাটা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের গতি নির্দেশ করে। অপ্রয়োজনীয় পণ্যের আমদানি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংকের পদক্ষেপ অব্যাহত রেখে উৎপাদন-সংশ্লিষ্ট আমদানিতে মনোযোগ রাখার ব্যাপারে সবসময় বলে আসছি। রফতানিতে অবস্থান শক্তিশালী করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিনিয়োগমুখী পরিবেশ শক্তিশালী করতে হবে।’

Check Also

ঈদের ছুটি শেষে বুধবার খুলছে অফিস

শেরপুর নিউজ ডেস্ক : ঈদুল আজহার ছুটি শেষে বুধবার (১৯ জুন) খুলছে সরকারি অফিস। গত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + nine =

Contact Us