সর্বশেষ সংবাদ
Home / দেশের খবর / সব কূটকৌশল ছিন্ন করেই দেশকে এগিয়ে নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

সব কূটকৌশল ছিন্ন করেই দেশকে এগিয়ে নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সব ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্ন করে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতার ৫৪তম দিবসের প্রাক্কালে গতকাল সোমবার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে এই মন্তব্য করেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, আসুন সব কূটকৗশল-ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্ন করে ঐক্যবদ্ধভাবে বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রাকে আরো সামনে এগিয়ে নিয়ে যাই। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ কয়েকটি বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ সরাসরি সম্প্রচার করে। জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে মহান স্বাধীনতা দিবস ও পবিত্র মাহের রমজানের শুভেচ্ছা জানান। ভাষণের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধ, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে জাতির পিতাসহ নিহত এবং এ পর্যন্ত যারা শহীদ হয়েছেন তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

ভাষণের শুরুতেই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ওপর ফের আস্থা রাখায় দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, এবারো নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে আওয়ামী লীগ টানা চতুর্থবার ও পঁচাত্তরের পর পঞ্চমবারের মতো সরকার গঠন করেছে। একই সঙ্গে আমার দল

আমাকে পঞ্চমবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর গুরুদায়িত্ব অর্পণ করেছে। দেশবাসীর প্রতি আমার কর্তব্য ও জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার কাজ আরো এগিয়ে নিতে আমি বার বার এই দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছি। আমি চেষ্টা করেছি সবার সমর্থন ও সহযোগিতা নিয়ে সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। স্বাধীনতার ৫৩তম বার্ষিকীতে দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই, আমরা দেশবাসীর প্রত্যাশা অনেকাংশেই পূরণ করতে সক্ষম হয়েছি। এটা কোনো অসার বাগাড়ম্বর দাবি নয়। বাংলাদেশ আজ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে উন্নয়নশীল বিশ্বে একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আমরা প্রমাণ করেছি রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে সীমিত সম্পদ দিয়েও একটি দেশকে এগিয়ে নেয়া যায়। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। যে বাংলাদেশ হবে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলাদেশ।
রমজানে যেন পণ্যের সংকট না হয়, সেজন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এবারের রমজান সামনে রেখে আমরা বেশ আগে থেকেই চিনি, ছোলা, ডাল, ভোজ্যতেলসহ কয়েকটি পণ্যের পর্যাপ্ত মজুত গড়ে তুলি। একচেটিয়া বাজার তৈরি করে অধিক মুনাফা যাতে কেউ করতে না পারে সেজন্য ভারত থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ ও প্রায় সমপরিমাণ আলু আমদানির অনুমতি দেই। পাশাপাশি রমজান মাসের শুরু থেকে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য রাজধানীর ২৫টি স্থানে ট্রাকে করে মাছ, মাংস, ডিম ও দুধ সুলভমূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। টিসিবি প্রথম পর্যায়ে সারাদেশের ১ কোটি কার্ডধারী পরিবারের জন্য সুলভমূল্যে চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি ও ছোলা এই ৫টি পণ্য বিতরণ করছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে ঢাকা ও আশপাশের এলাকার কার্ডধারী পরিবারের জন্য চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি, ছোলা ও খেজুর- এই ৬টি পণ্য বিতরণ করছে। ঈদে সারাদেশের ১ কোটি ৬২ হাজার ৮০০ পরিবারের জন্য এক লাখ ৬২৮ মেট্রিক টন চালের বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছি। প্রতি পরিবার বিনামূল্যে ১০ কেজি করে চাল পাবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, এ বছর সরকারি ও দলগতভাবে ইফতার পার্টির আয়োজন আমরা নিরুৎসাহিত করেছি। আওয়ামী লীগসহ সব সহযোগী সংগঠন নির্দেশমত তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত গরিব-দুস্থদের মধ্যে ইফতারসামগ্রী বিতরণ করছে। রমজানের শুরুতে খেজুর, আমদানি করা ফল, লেবু, তরমুজ, পেঁয়াজসহ কয়েকটি পণ্যের দাম কিছুটা চড়া ছিল। তবে এসব পণ্যের দাম কয়েকদিনের মধ্যেই স¦াভাবিক ও সহনীয় পর্যায়ে নেমে এসেছে। জিনিসপত্রের দাম বাড়লে সাধারণ মানুষের, বিশেষ করে সীমিত আয়ের মানুষের কষ্ট হয়। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি মানুষের কষ্ট লাঘবের।

পঁচাত্তরের পর ২১ বছর দেশ এক অন্ধকার যুগে ছিল উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর অস্ত্রের মুখে সামরিক শাসকরা রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে। কায়েম করে একনায়কতন্ত্র। স্থবির হয়ে পড়ে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনের সব কার্যক্রম। জনগণের নয়, ক্ষমতাসীনরা নিজেদের ভাগ্য বদলাতে বিভোর থাকে। ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ একুশ বছরের ইতিহাস এদেশের মানুষের নিপীড়ন আর বঞ্চনার ইতিহাস। এ সময় লুটপাট, দুর্নীতি, ইতিহাস বিকৃতি, মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করিয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামের মৌল চেতনাকে ধূলিস্যাৎ করে বাংলাদেশকে একটি অকার্যকর এবং পশ্চাৎপদ দেশের তকমা পড়িয়ে দেয়া হয়। নিদারুণ দারিদ্র্য, ক্ষুধা, অকাল মৃত্যু এবং শিক্ষা, বাসস্থান, চিকিৎসার অভাব ছিল এদেশের মানুষের নিত্যদিনের সঙ্গী। সাধারণ মানুষ এসব বঞ্চনাকে ভাগ্যের লিখন হিসেবে মেনে নিতো। তখন মানুষকে বুঝতেই দেয়া হয়নি, তাদের প্রতি সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য বলে কিছু আছে।

আওয়ামী লীগের টানা ১৫ বছরের চলার পথ কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, দেশবাসীর ম্যান্ডেট নিয়ে আওয়ামী লীগ বিগত পনের বছরের অধিক সময় সরকার পরিচালনা করছে। এই পনের বছরের অভিযাত্রা একেবারেই কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ, মহামারি, যুদ্ধ, আন্তর্জাতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি, সর্বোপরি দেশি-বিদেশি শক্তির নানা ষড়যন্ত্র আমাদের চলার পথকে বাধাগ্রস্ত করেছে বার বার। তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় আইলা ও সিডর এবং কয়েক দফা প্রলংকরী বন্যা উপকূলীয় ও নি¤œাঞ্চলের মানুষের জীবন-জীবিকায় ব্যাপক প্রভাব ফেলে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে শুধু আমাদের দেশের নয়, গোটা বিশ্বের অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়েছিল। সে ধকল কাটতে না কাটতেই শুরু হয় রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এই যুদ্ধকে কেন্দ্র করে অর্থনৈতিক অবরোধ-পাল্টা অবরোধ আরোপের ফলে আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো চরম সংকটের মুখে পড়েছে। নিত্যপণ্যের উৎপাদন ও বিপণন যেমন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি এসব পণ্যের স্বাভাবিক চলাচলও বাধাগ্রস্ত হওয়ায় পণ্যের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। এর সঙ্গে গত বছরের শেষে যুক্ত হয়েছে গাজায় ফিলিস্তিনের উপর ইসরায়েলি বাহিনীর গণহত্যা। তিনি বলেন, ২০১৩-১৪ সময়ে এবং ২০১৬ সালে বিএনপি-জামায়াতের দেশব্যাপী হরতাল-অবরোধ, অগ্নিসন্ত্রাস, অগণিত মানুষ হত্যার মতো নৃশংসতা এখনো জনমনে গভীর দাগ কেটে আছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও তার মিত্ররা এবারো হরতাল-অবরোধ, অগ্নিসংযোগের মতো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সূচনা করেছিল। কিন্তু জনগণের প্রতিরোধে এবার তাদের পিছু হটতে বাধ্য হতে হয়। তবুও তাদের হাতে বেশ কয়েকজন নিরীহ মানুষ প্রাণ হারান এবং কয়েকশ কোটি টাকার সম্পদ বিনষ্ট হয়। এসব অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে আমরা দেশের অগ্রযাত্রাকে আরো বেগবান করার আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিগত দেড় দশকে আর্থ-সামাজিক খাতে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব রূপান্তর ঘটেছে। অভ্যন্তরীণ ও বাইরের অভিঘাত মোকাবিলা করে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। কৃষি, শিল্প, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিশু ও মাতৃমৃত্যু হার, দারিদ্র্য বিমোচন, অবকাঠামো উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়নসহ সব খাতে আজকে দৃশ্যমান পরিবর্তন লক্ষ্যণীয়। এক সময়ের দারিদ্র্য-জ্বরাক্লিষ্ট বাংলাদেশ আজ সক্ষম উদীয়মান অর্থনীতির দেশ। ২০২১ সালে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার সব শর্ত পূরণ করেছে। আশা করছি ২০২৬ সাল নাগাদ বাংলাদেশ স্থায়ীভাবে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে সামিল হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বের ৩৫তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। দারিদ্র্যের হার ১৮ দশমিক ৭ শতাংশে এবং হতদরিদ্রের হার ৫ দশমিক ৬ শতাংশে নেমেছে। খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ। বাংলাদেশ বিশ্বে ধান, সবজি ও পেঁয়াজ উৎপাদনে তৃতীয়। মাছ-মাংস, ডিম, শাকসবজি উৎপাদনেও স্বয়ংসম্পূর্ণ। অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে মাছ উৎপাদন বেড়ে দ্বিতীয় ও ইলিশ উৎপাদনকারী ১১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম। অব্যাহত নীতি সহায়তা ও প্রণোদনার মাধ্যমে কৃষিক্ষেত্রে এসব সাফল্য এসেছে। শিশু মৃত্যুর হার নেমে এসেছে প্রতি হাজারে ২১জনে এবং মাতৃমৃত্যুর হার প্রতি লাখে ১৬১ জনে। মানুষের গড় আয়ু বেড়ে ৭৩ বছরে উন্নীত হয়েছে। পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বঙ্গবন্ধু ট্যানেল, শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তৃতীয় টার্মিনাল, বিভাগীয় শহরগুলোর সঙ্গে চার বা তারও বেশি লেনের মহাসড়ক চালু, ইত্যাদি অবকাঠামো সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যোগাযোগ খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধন করেছে। দেশের শতভাগ এলাকা বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।
অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পথ চিরতরে বন্ধ করে দেয়ার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, হাজারো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কখনই ভুলুণ্ঠিত হতে দেবে না। উচ্চ আদালতের রায়ে সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পথ আমরা চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছি। দেশের সব গণতান্ত্রিক দল ও সাধারণ মানুষকে গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখার জন্য অতদ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করতে হবে। মনে রাখতে হবে আমাদের সংবিধানই গণতন্ত্রকে সুরক্ষা দেয়া ও সমুন্নত রাখার সর্বোচ্চ রক্ষাকবচ। সংবিধানকে পাশ কাটিয়ে বা পদদলিত করে কোনো কিছু করার চেষ্টার অর্থ হচ্ছে গণতন্ত্রকে খর্ব করা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময়ই সংবিধানকে সমুন্নত রেখে রাষ্ট্র পরিচালনা করে আসছে। জাতীয় সংসদকে আমরা রাষ্ট্রের সব কার্যক্রমের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করেছি। স্থানীয় সরকারের সব স্তরে নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিদের দ্বারা স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়ন নিশ্চিত করা হয়েছে।

ষড়যন্ত্র থেমে নেই উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, অপ্রিয় হলেও সত্য, আমাদের এই স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে খর্ব করা ও অর্থনৈতিক মুক্তির আকাক্সক্ষাকে নস্যাতের ষড়যন্ত্র আজও থামেনি। ষড়যন্ত্রকারীরা এখনো ওতপেতে বসে আছে কীভাবে বাংলাদেশের অগ্রসরমান অভিযাত্রাকে স্তব্ধ করা যায়। একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও পঁচাত্তরের ঘাতক এবং তাদের দোসররা এখনো তৎপর রয়েছে পরাজয়ের বদলা নিতে। সুযোগ পেলেই তারা আঘাত হানবে। তাদের সামনে একমাত্র বাধা আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগকে ছলে-বলে-কৌশলে নিচিহ্ন বা দুর্বল করতে পারলেই পরাজিত শক্তির উত্থান অনিবার্য। কাজেই কাণ্ডারি হুঁশিয়ার। তিনি বলেন, বাঙালি বীরের জাতি। যুদ্ধ করে আমরা এদেশের স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছি। সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়- জাতির পিতা নির্দেশিত এই বৈদেশিক নীতি অনুসরণ করেই আমরা দেশ পরিচালনা করি। আমাদের কোনো প্রভু নেই, আছে বন্ধু। তাই কারো রক্তচক্ষু বাঙালি জাতি কোনো দিন মেনে নেবে না। দরকার হলে বুকের রক্ত দিয়ে বাঙালি জাতি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব-সম্মান রক্ষা করবে।

Check Also

স্বামীর পুরুষাঙ্গ কে‌টে পালালেন স্ত্রী

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ঘুমন্ত স্বামীর গোপনাঙ্গ কেটে শিশু সন্তান রেখেই পালিয়েছেন স্ত্রী জাকিয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − 2 =

Contact Us