সর্বশেষ সংবাদ
Home / অপরাধ জগত / অবৈধ বিদেশিদের চাকরি আশ্রয় দিলেই জরিমানা

অবৈধ বিদেশিদের চাকরি আশ্রয় দিলেই জরিমানা

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশে অবৈধভাবে বসবাস করা বিদেশিরা। তাদের অপরাধমূলক কর্মকা- সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ওপরও প্রভাব ফেলছে। তাদের কারণে দেশের নাগরিকদের জন্য গুণগত কর্মসংস্থান সংকুচিত হচ্ছে। তারা দেশ থেকে পাচার করছে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশের অর্থনীতি। দীর্ঘদিন থাকার সুযোগে অনেকে মাদক চোরাচালান ও প্রতারণামূলক কর্মকা-ে জড়িয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় অবৈধ বিদেশিদের বিরুদ্ধে এবার কঠোর অ্যাকশনে যাচ্ছে সরকার। এ জন্য পুলিশি অভিযান শুরুর পাশাপাশি ব্যবসা ও ভ্রমণ ভিসার মেয়াদ ৬০ দিন থেকে কমিয়ে ৩০ দিন করাসহ ভিসানীতি সংশোধনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এছাড়া অবৈধ বিদেশিদের চাকরি কিংবা বাসা ও হোটেল ভাড়া দিলেও গুনতে হবে বড় অঙ্কের জরিমানা। পাশাপাশি দেশে অবস্থানরত বিদেশিদের জন্য একটি সমন্বিত কেন্দ্রীয় তথ্যভা-ার তৈরিরও সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মানুমতি ব্যতীত বাংলাদেশে অবস্থানরত বিদেশি কর্মী ও নাগরিকগণের বিষয়ে করণীয় নির্ধারণ সংক্রান্ত এক সভায় এসব সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) সম্মেলন কক্ষে গত ৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত এ বৈঠকের কার্যবিবরণী থেকে তথ্যগুলো জানা গেছে।

জানা গেছে, এই বৈঠকের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ ১৪টি সংস্থায় বিডার পক্ষ থেকে চিঠি পাঠানো হয়। এ চিঠি থেকে জানা যায়, অবৈধভাবে বাংলাদেশে বসবাসকারী বিদেশি নাগরিকদের বিরুদ্ধে দৈনিক ভিত্তিতে জরিমানা আরোপ ও বিদেশিদের জন্য কেন্দ্রীয় তথ্যভা-ার তৈরি করবে সরকার। অবৈধভাবে বসবাসকারী বিদেশিদের যারা চাকরি দেবেন, হোটেল বা বাসা ভাড়া দেবেন, তাদেরও জরিমানার আওতায় আনা হবে।

অনুমতি ছাড়া কাজ করা বিদেশিদের ঠেকাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, এনবিআর, বিডা, বেপজা, বেজা, হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ, এনজিওবিষয়ক ব্যুরো, এনএসআই, ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর এবং পুলিশের এসবির প্রবেশযোগ্যতা থাকে এমন একটি কেন্দ্রীয় তথ্যভা-ার তৈরির সিদ্ধান্ত হয় ওই সভায়।

সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক, অবৈধ বিদেশি নাগরিকদের জরিমানা দৈনিক ভিত্তিতে করা হবে। যে প্রতিষ্ঠান অবৈধ নাগরিকদের কাজে নেবেন, তাদেরও জরিমানা গুনতে হবে। সুরক্ষা সেবা বিভাগ যেসব বিদেশিকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে, তাদের তথ্য ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। এছাড়া ইলেকট্রনিক ভিসা (ই-ভিসা) চালু হলে বাংলাদেশে অবস্থানকারী বিদেশিদের একটি কেন্দ্রীয় তথ্যভা-ার তৈরি হবে।

বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, বিদেশি ব্যক্তির বিষয়ে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর অবহিত থাকবে। স্থল ও বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ একটি মাসিক বিবরণী সুরক্ষা সেবা বিভাগ এবং বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরে নিয়মিতভাবে পাঠাবে। উদ্যোগ বাস্তবায়ন হলে বছরে এক হাজার কোটি টাকা বাড়তি রাজস্ব আদায় হবে বলেও সভায় জানানো হয়। সভায় অবৈধ বিদেশিদের জন্য বাংলাদেশের নাগরিকদের গুণগত কর্মসংস্থান সংকুচিত এবং সার্বিকভাবে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে সতর্ক করেন বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া।

এদিকে অবৈধ বিদেশিদের ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গতকাল আমাদের সময়কে বলেন, অবৈধ বিদেশিদের তাদের দেশ ফিরিয়ে নিতে বাধ্য। ভিসার মেয়াদ শেষ হলে আমরা নোটিশ দিচ্ছি। যদি না শোনে তাহলে সরকারের পক্ষ থেকে লিগ্যাল অ্যাকশনে যাওয়া হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রায়ই তাদের চিহ্নিত করে নিজ দেশে ফেরত পাঠাচ্ছে।

পুলিশের বিশেষ শাখা (এসবি) সূত্রে জানা গেছে, গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে বসবাসকারী বিদেশি নাগরিকের সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৭ হাজার ১৬৭ জন। চার ধরনের ভিসায় তারা এ দেশে এসেছেন। এর মধ্যে ব্যবসা ও বিনিয়োগ শ্রেণির ভিসায় ১০ হাজার ৪৮৫, কর্মসংস্থান ভিসায় ১৪ হাজার ৩৯৯, শিক্ষা ভিসায় ৬ হাজার ৮২৭ এবং পর্যটন ও অন্যান্য শ্রেণির ভিসায় ৭৫ হাজার ৪৫৬ জন বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে এসেছেন। তাদের মধ্যে ভারতীয় নাগরিক সবচেয়ে বেশি ৩৭ হাজার ৪৬৪ জন। তারপরই আছে চীনের ১১ হাজার ৪০৪ জন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে ৫০ হাজারের বেশি বিদেশি নাগরিক অবৈধভাবে অবস্থান করছেন। পর্যটন, খেলাধুলা ও উন্নয়ন প্রকল্পের কাজসহ বিভিন্ন কাজের কথা বলে এসে ভিসার মেয়াদ শেষেও অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন।

 

গোয়েন্দা সূত্রগুলো বলেছে, পর্যটন ভিসার পাশাপাশি এ-থ্রি ভিসায় এসে বিপুল সংখ্যক বিদেশি বাংলাদেশে অবৈধভাবে কাজ করছে। এ-থ্রি ভিসা মূলত সরকারের সঙ্গে উন্নয়ন-সহযোগী সংস্থার চুক্তির আওতায় বিভিন্ন প্রকল্পে নানা পদে দায়িত্ব পালনের উদ্দেশ্যে দেওয়া হয়। পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প ও রামপাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ বিভিন্ন প্রকল্পে বিপুল সংখ্যক বিদেশি বাংলাদেশে আসে। গোয়েন্দা সংস্থা এবং ইমিগ্রেশন থেকে জানা গেছে, এসব প্রকল্পের জন্য আসা বিদেশি নাগরিকের মধ্যে অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও অবৈধভাবে অবস্থান করছেন। অনেক ক্ষেত্রে অতিরিক্ত লোকজন প্রকল্পের বাইরে বিভিন্ন ধরনের কাজ করেন। তাদের মাধ্যমে বিপুল অঙ্কের অর্থ দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে।

তবে সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলো ভিসা নীতিমালায় এ-থ্রি ভিসার সব শর্ত এবং যোগ্যতা (আবেদনকারী প্রতিষ্ঠান ও বিদেশি ব্যক্তি) বিশ্লেষণ করে শুধু উপযুক্ত ব্যক্তির ভিসা ইস্যু করবে। এক্ষেত্রে এখন থেকে গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তায় এ-থ্রি ভিসা প্রার্থী ও সংশ্লিষ্ট আবেদনকারী প্রতিষ্ঠানের যথার্থতা ও যোগ্যতা যাচাই করা হবে।

জানা গেছে, পর্যটন ও এ-থ্রি ভিসার পাশাপাশি অবৈধভাবে অবস্থান করা বিদেশিদের আরেকটি বড় অংশ আসে পিআই (বেসরকারি বিনিয়োগকারী) ভিসায়। এরপর বাংলাদেশে এসে নানা ব্যবসা শুরু করেন। সরকারকে কোনো ভ্যাট কিংবা ট্যাক্স না দিয়ে আয়ের বড় অংশই অবৈধভাবে নিজ দেশে পাঠিয়ে দেন।

পুলিশ বলছে, বাংলাদেশে অবস্থান করা অনেক বিদেশি নাগরিকের পাসপোর্ট ও ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও পাসপোর্ট ছিঁড়ে ফেলে অবৈধ হিসেবে বসবাস করছে। তারা প্রতারণা, অর্থপাচার ও সাইবার ক্রাইমসহ অন্তত ১০ ধরনের অপরাধে জড়াচ্ছে। এসব অপরাধে নাইজেরিয়া, চীন, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, আফগানিস্তান, দক্ষিণ কোরিয়া, শ্রীলংকাসহ বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিক রয়েছে। পাসপোর্ট না থাকায় এবং আসামির ঠিকানা নিশ্চিত হতে না পারায় এসব অপরাধীর ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নিতে পারছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ফলে অপরাধ করেও অনেক বিদেশি পার পেয়ে যাচ্ছে।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (ফাইন্যান্সিয়াল ক্রাইম) বাছির উদ্দিন আমাদের সময়কে বলেন, তদন্তের অধিকাংশ কাজ শেষ হলেও বিদেশি অপরাধীদের পরিচয় নিশ্চিত না হতে পারায় মানিলন্ডারিং আইনে দায়ের হওয়া কিছু মামলার চার্জশিট আটকে আছে। এসব অপরাধীর পরিচয় নিশ্চিত হতে মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসটেন্সের (এমএলএ) আওতায় সংশ্লিষ্ট দেশে চিঠি পাঠানো হয়। কিন্তু তার উত্তর আসার দীর্ঘসূত্রতায় মামলার চার্জশিট দিতে বিলম্ব হয়ে থাকে।

Check Also

অপহৃত ব্যাংক ম্যানেজার উদ্ধার

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: বান্দরবানের রুমায় অপহৃত সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার মো. নেজাম উদ্দিনকে অপহরণের ৪৬ ঘণ্টা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty − six =

Contact Us