সর্বশেষ সংবাদ
Home / স্থানীয় খবর / মির্জাপুর / শেরপুরে ধর্ষণ চেষ্টার ‘শাস্তি’ কান ধরে ওঠবস

শেরপুরে ধর্ষণ চেষ্টার ‘শাস্তি’ কান ধরে ওঠবস

শেরপুর ডেস্কঃ বগুড়ার শেরপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় গ্রাম্য সালিস বৈঠক হয়েছে। সেই সালিসে মাতবরদের দেওয়া রায় অনুযায়ী অভিযুক্ত হাসমত আলী ফকিরকে শাস্তি হিসেবে কানধরে ওঠবস ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে ছেড়ে দেওয়া হয়। অথচ প্রচলিত আইনে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণচেষ্টায় গ্রাম্য সালিস করার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি আইনীত দণ্ডনীয় অপরাধও বটে। এছাড়া গ্রাম্য সালিসের ওই রায়ে বাদিও অসন্তোষ জানিয়েছেন। তবে মাতবরদের ভয়ে আইনের আশ্রয় নিতে পারছেন না।

ভুক্তভোগী পরিবারের দাবি, আমরা গরীব মানুষ। গ্রামের বিচার না মানলে অনেক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের আয়রা গ্রামে।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঢাকার নারায়গঞ্জের সদর উপজেলার তমিজ উদ্দিন ফকিরের ছেলে হাসমত আলী ফকির। প্রায় দেড়যুগ আগে কাজের সন্ধানে শেরপুরে আসেন। একপর্যায়ে উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের আয়রা দক্ষিণপাড়া গ্রামের বিধবা নারীকে বিবাহ করে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু ঈদের দুইদিন পর বিগত ১২জুলাই সন্ধ্যার দিকে ওই গ্রামের মঞ্জু মিয়ার স্ত্রী ফসলি মাঠে গরু আনতে যান। এসময় লস্পট হাসতম আলী ফকির একা পেয়ে ওই গৃহবধূকে ঝাপটে ধরেন। এমনকি জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান। একপর্যায়ে তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে হাসমত আলীকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন।

পরে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ গ্রামের মাতবরদের বিষয়টি জানানো হয়। কিন্তু গৃহবধূর পরিবার দরিদ্র হওয়ায় তাদের আইনের আশ্রয় নিতে নিরুৎসাহিত করে গ্রামেই সালিস বৈঠক ডেকে এই ঘটনার বিচারের পরামর্শ দেন মাতবররা। সেই অনুযায়ী ১৮জুলাই সোমবার রাতে আয়রা গ্রামে সালিস বৈঠক বসে। দুই পক্ষের বক্তব্য শোনার পর গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অপরাধে গ্রামের মাতবররা হাসমত আলীকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা ও কানধরে ওঠবস করার রায় দেন। এতে বাদি অসন্তোষ জানালে গ্রাম্য মাতবর আখের আলী দুইটি জুতার বাড়ি দিয়ে বিচার সমাপ্ত ঘোষণা করেন।

ওই গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার বিষয়ে কথা বলার জন্য মঙ্গলবার (১৯জুলাই) দুপুরে অভিযুক্ত হাসমত আলী ফকিরের বাড়িতে সরেজমিনে গেলে তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, গ্রামের মাতবররা আমার ওপর অবিচার করেছেন। তাকে অন্যায়ভাবে শাস্তি দেওয়ার কারণে বাদি ও মাতবরদের বিরুদ্ধে তিনি সময়মত প্রতিশোধ নেবেন বলে মন্তব্য করেন। এরবাইরে কোনো কথা বলতে রাজী হননি।

এদিকে বিচারের পর থেকেই ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ লোকলজ্জায় বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন না। এমনকি কারো সঙ্গে কোনো কথাও বলছেন না। তবে তার মেয়ে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তাছাড়া গ্রাম্য বিচারের ওই রায়ে অসন্তোষ জানিয়ে বলেন, এটা কোনো শাস্তিই হলো। তারপরও বিচার মেনে নিতে হবে। কারণ আমরা গরীব মানুষ। আমাদের কোনো জায়গা নেই। আইনের আশ্রয় নিলে হয়তো গ্রামছাড়া হতে হবে। তাই বাধ্য হয়েই বিচার মেনে নিয়েছেন বলে জানান।

তবে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় গ্রাম্য সালিস করার কোনো সুযোগ নেই। বরং দন্ডণীয় অপরাধ এমনটাই জানালেন বগুড়া জেলা জজ আদালতের আইনজীবি মাসুদ করিম। তিনি বলেন, কোনো নারী কিংবা শিশুকে ধর্ষণ অথবা ধর্ষণ চেষ্টা একটি ফৌজদারি অপরাধ। এ ধরণের ঘটনা একমাত্র নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আমলে নিয়ে বিচার করতে পারবেন। অন্য কোনোভাবে বিচারের সুযোগ নেই। এমনকি যারা সালিস ডেকে এই বিচার করেছেন তারাও অন্যায় করেছেন মন্তব্য করেন তিনি।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, এমন ঘটনা খবর জানা নেই। এছাড়ার এখন পর্যন্ত কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। এরপরও খোঁজখবর নিয়ে এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

Check Also

শেরপুরে যাত্রীবাহী বাস- সিএনজি অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ১

শেরপুর ডেস্কঃ ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের বগুড়ার শেরপুরে যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজি চালিত অটোরিকসার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

17 + 14 =

Contact Us