সর্বশেষ সংবাদ
Home / স্থানীয় খবর / শেরপুরে পশুর হাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগ

শেরপুরে পশুর হাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগ

শেরপুর ডেস্কঃ বগুড়ার শেরপুরে পশুর হাটগুলোতে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের নিকট থেকে অতিরিক্ত টোল (হাসিল) আদায় করা হচ্ছে। বুধবার (০৬জুলাই) উপজেলার বেলঘড়িয়া পশুর হাট থেকে আশি হাজার টাকায় কোরবানীর একটি গরু কিনেন ধড়মোকাম গ্রামের বাসিন্দা আবুল কালাম আজাদ। এজন্য তার কাছ থেকে হাসিল নেওয়া হয় পাঁচশত টাকা। আর ওই গরু বিক্রেতার নিকট থেকে নেওয়া হয়েছে একশ’ টাকা। তবে রসিদে লেখা হয়নি কোনো টাকার পরিমান। এটি শুধু বেলঘড়িয়া হাটে নয়, উপজেলার সব পশুর হাটেই এই চিত্র। ঈদুল আজহাকে ঘিরে পশুর হাটগুলোতে প্রকাশ্যেই চলছে এই অনিয়ম। বিষয়টি জানার পরও অজ্ঞাত কারণে নীরব দর্শকের ভূমিকায় রয়েছেন প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে উপজেলার বারোদুয়ারী, ছোনকা, জামাইল ও বেলঘরিয়া এই চারটি হাটে পশু কেনাকাটা বেশ জমে উঠেছে। বিগত বছরের চেয়ে এবার পশুর দাম কম থাকায় ক্রেতাদের মাঝে স্বস্তি ফিরলেও হাটের হাসিল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা। কারণ সরকার নির্ধারিত হাসিলের চেয়ে অতিরিক্ত আদায় করছেন ইজাদারের লোকজন। এমনকি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের কাছ থেকেই হাসিল আদায় করা হচ্ছে। প্রতিটি গরুর জন্য হাসিল পাঁচশত টাকা আর খাসির জন্য শতকরা দশ টাকা হারে হাসিল নেওয়া হচ্ছে। সেইসঙ্গে বিক্রেতার নিকট থেকেও লেখনির নামে একশ’ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে।

বুধবার (০৬জুলাই) সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহের জন্য বেলঘড়িরা হাটে গিয়ে দেখা যায়, হাটের চারপাশেই কাঠের বেঞ্চ নিয়ে বসে আছেন ইজাদারারের নিয়োগ করা লোকজন। এরমধ্যে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই যুবক বলেন, যে গরু কিনবে তার নিকট থেকে ৫০০টাকা এবং যে বিক্রি করবে তার কাছ থেকে ১০০টাকা নেওয়া হচ্ছে। অতিরিক্ত এসব টাকা ইজারাদার, আদায়কারী, প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করতে ব্যয় করা হয় বলে দাবি করেন তারা। এছাড়া হাটে হাসিল আদায়ে সরকারি রেটের কোনো চার্ট টাঙানো চোখে পড়েনি।

এদিকে, প্রকাশ্যে অতিরিক্ত হাসিল আদায়ে উপজেলা প্রশাসনের কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতারা।

আবুল কালাম আজাদ, সোলায়মান আলী, তোফাজ্জল হোসেনসহ একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে সরকার নির্ধারিত নিয়ম উপেক্ষা করে অতিরিক্ত হাসিল আদায় করা হচ্ছে। অথচ স্থানীয় প্রশাসন নীরব। তাদের কোনো কার্যকর পদক্ষেপ চোখে পড়ছে না। তাই হাসিল আদায়ের নামে চাঁদাবাজি বন্ধে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

তবে বেলঘরিড়য়া হাটের ইজারাদারের পার্টনার আনোয়ার হোসেন হাটের আদায়সহ যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তিনি বলেন, সঠিকভাবেই হাসিল আদায় করা হচ্ছে। তাই যা পারেন লেখেন। আমার তাতে যায় আসে না-মন্তব্য করে ফোনের সংযোগ কেটে দেন।

শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন, হাটে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের নিকট থেকে খাজনা আদায়ের কোনো সুযোগ নেই। এছাড়া অতিরিক্ত হাসিল আদায়ের বিষয়টি আমার জানা নেই। সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগও পাইনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Check Also

আমাদের শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে- মজনু

শেরপুর নিউজ২৪ডটনেটঃ বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেতা আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, ১৫ই আগষ্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

nineteen + sixteen =

Contact Us