সর্বশেষ সংবাদ
Home / দেশের খবর / চ্যালেঞ্জের বাজেট পেশ আজ

চ্যালেঞ্জের বাজেট পেশ আজ

শেরপুর ডেস্কঃ রাষ্ট্রের আয়-ব্যয়ের বার্ষিক খতিয়ান বাজেট। করোনা পরবর্তী সময়ে এবার আরেকটি বাজেট ঘোষণার দিনক্ষণও চ‚ড়ান্ত। আজ বৃহস্পতিবার (৯জুন) জাতীয় সংসদে বাজেট উত্থাপন করা হবে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, কৃষি, স্বাস্থ্য, মানবসম্পদ, কর্মসংস্থান ও শিক্ষা খাতসহ বেশ কিছু খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বাজেট তৈরি করছে বাংলাদেশ সরকার। তবে মহামারি ও বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিস্থিতি মাথায় রাখার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বমুখী দামে হাহাকারের মধ্যেই এবার দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট আসছে। ফলে থাকছে নানা চ্যালেঞ্জ। আসন্ন অর্থবছরে সরকারের বিশাল অঙ্কের এ বাজেটে মানুষের প্রত্যাশা হচ্ছে, জিনিসপত্রের দাম যেন থাকে নাগালের মধ্যে। এছাড়া স্বস্তিতে ব্যবসা করতে চান ব্যবসায়ীরা। এদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, বাজেটে শুধু বরাদ্দ দিলেই হবে না, এটা যেন বাস্তবায়ন হয় সেদিকে বিশেষ জোর দিতে হবে। বাস্তবায়নের সময় যেন অপচয় রোধ করা হয়।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এবারের বাজেটে মোটা দাগে পাঁচটি চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এগুলো হচ্ছে- মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, কর্মসংস্থান বাড়ানো, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ স্থিতিশীল রাখা, বাজেট ঘাটতি কমানো, নতুন দারিদ্র্য ঠেকানো। এর মধ্যে বর্তমান মূল্যস্ফীতিকে অর্থনীতির প্রধান চ্যালেঞ্জ মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ও বিশেষজ্ঞরা। তাদের পরামর্শ, সাধারণ মানুষের ওপর মূল্যস্ফীতির চাপ সহনীয় পর্যায়ে রাখা কিংবা মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে আগামী অর্থবছরের বাজেটের মূলনীতি হিসেবে দেখা উচিত। নতুন অর্থবছরের বাজেটে সামনের দিনগুলোর জন্য যে বেশ বড় চ্যালেঞ্জ রয়েছে, এর আভাস দিয়েছেন খোদ অর্থমন্ত্রীও।

সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী বলেছেন, আগামী বাজেট কারো জন্য কোনো ধরনের খারাপ বার্তা বয়ে আনবে না। সবাই সন্তুষ্ট থাকবে। অর্থমন্ত্রীর আশ্বসে আগামী বাজেটে স্বস্তির খবর থাকলেও সরকারের জন্য বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন খাতে ভর্তুকি দেয়া। একই সঙ্গে বৈদেশিক ঋণের সুদ পরিশোধ করা। তবে অর্থ বিভাগের দাবি, বৈদেশিক ঋণের সুদ পরিশোধের অর্থ খুব বেশি বাড়বে না। চলতি অর্থবছরের মতো থাকতে পারে।

মূলত করোনা, ইউক্রেন যুদ্ধ ও দেশীয় দুর্নীতি- এ তিনটি বিষয় সরাসরি বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ঋণাত্মক চাপে ফেলেছে। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি, জিডিপির ভালো প্রবৃদ্ধি সাধারণ নাগরিকদের স্বস্তি দিচ্ছে না। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বাজেটকে এক বছরের সাধারণ আয়-ব্যয়ের হিসাব হিসেবে দেখলে চলবে না। বাজেট বাস্তবায়ন নীতি স্পষ্ট থাকা দরকার, আর দরকার দুর্নীতি প্রতিরোধ, অর্থ পাচার রোধ এবং প্রবৃদ্ধির সুফল যেন সবাই পায় তার জন্য নীতি নির্ধারণ।

একাদশ জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হয়েছে গত রবিবার। আজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদের চতুর্থ এ বাজেটের সম্ভাব্য আকার ৬ লাখ ৭৭ হাজার ৮৬৪ কোটি টাকা। আগামী বাজেটে প্রাধিকার পাবে দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। ‘কোভিডের অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যাবর্তন’ শিরোনামের এবারের বাজেটটি প্রস্তুত হয়েছে সরকারের অতীতের অর্জন এবং উদ্ভ‚ত বর্তমান পরিস্থিতির সমন্বয়ে।

বাজেট প্রস্তাব পেশের আগে জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বিশেষ সভায় খসড়া বাজেট প্রস্তাবটি অনুমোদিত হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বর্তমান সরকারের এবারের মেয়াদে এটি একটি পূর্ণাঙ্গ শেষ বাজেট। কারণ আগামী বছরের জুনে যে বাজেট পেশ হবে, সেটি হবে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের। ২০২৩ সালের ১ জুলাই শুরু হওয়া এ অর্থবছর শেষ হবে ২০২৪ সালের ৩০ জুন। এর কমপক্ষে ৬ মাস আগে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে অথবা ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে দেশে অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সেই বিবেচনায় বর্তমান সরকার এবারই পুরো বাজেট বাস্তবায়নের সুযোগ পাচ্ছে। ফলে সরকার এবারের বাজেটে ব্যাপক কর্মসৃজনের বিষয়ে গুরুত্ব দিতে চাচ্ছে। এজন্য নতুন জিডিপির ৩১ দশমিক ৫ শতাংশ ধরা হয়েছে বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা। এর মধ্যে বেসরকারি বিনিয়োগ ২৪ দশমিক ৯ শতাংশ এবং সরকারি বিনিয়োগ ৬ দশমিক ৬ শতাংশ।

Check Also

পদ্মা সেতু’ দেশের প্রথম দ্বিতল সেতু

শেরপুর ডেস্কঃ বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদ্বোধন হল পদ্মা সেতু। দিন শেষ করে রাত পোহালেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

15 − 1 =

Contact Us