সর্বশেষ সংবাদ
Home / স্থানীয় খবর / গাড়ীদহ / শেরপুরে দরপত্র ছাড়াই দুগ্ধ খামারের গাছ বিক্রি

শেরপুরে দরপত্র ছাড়াই দুগ্ধ খামারের গাছ বিক্রি

শেরপুর ডেস্কঃ বগুড়ার শেরপুরে দরপত্র ছাড়াই মহিপুর দুগ্ধ ও গবাদি প্রাণি উন্নয়ন খামারের মূল্যবান অর্ধশতাধিক গাছ কেটে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে অত্যান্ত গোপনে সরকারি ওই গাছগুলো বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। তাই ক্রেতা স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ীর লোকজন (শ্রমিকরা) বিগত দুইদিন ধরে গাছগুলোর গোড়ায় করাত চালাচ্ছেন। সেইসঙ্গে অনেকটা তরিঘরি করেই কাটা গাছের গুঁড়ি ট্রাকবোঝাই করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এদিকে সরকারি এসব গাছ কাটা ও বিক্রির দায় নিচ্ছেন না কেউ। খামার কর্তৃপক্ষ বলছেন, সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) গাছগুলো বিক্রি করেছেন। আর সওজ বলছে, আমরা কিছুই জানি না। তবে নিয়ম অনুযায়ী গাছগুলোর মালিক দুগ্ধ ও প্রাণি উন্নয়ন খামার ।

সোমবার (২৩মে) দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতাও মিলেছে। এসময় সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় ৫৩ একর জায়গাজুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে মহিপুর দুগ্ধ ও প্রাণি উন্নয়ন খামার। যেটির উত্তর-দক্ষিণ সীমানায় রয়েছে শতাধিক মূলব্যবান গাছ। এরমধ্যে রয়েছে ইউক্যালিপটাস, আকাশমনি, বেলজিয়াম ও মেহগনি। সেসব গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। আরিফুর রহমানের এক কাঠ ব্যবসায়ী সাড়ে তিন লাখ টাকায় সরকারি ওইসব গাছ কিনেছেন। তাই তার নিয়োজিত শ্রমিকরা গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে ৬৫টি গাছ কাটা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খামারের একজন কর্মচারীর দাবি, পানির দরে গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে। কেননা বর্তমান বাজার অনুযায়ী গাছগুলোর মূল্য বারো থেকে পনের লাখ টাকা। কোনো প্রকার দরপত্র দেওয়া ছাড়াই গোপনে সরকারি ওইসব গাছ বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আইন অনুযায়ী গাছগুলোর মালিক দুগ্ধ ও প্রাণি উন্নয়ন খামার কর্তৃপক্ষ। এমনকি দরপত্র আহবান করে ন্যায্যমূল্যে গাছগুলো বিক্রি করার কথা। কিন্তু এসব কোনো কিছুই করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে খামারের উপ-পরিচালক ইসমাইল হোসেন বলেন, ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক ছয়লেনে উন্নীতকরণ কাজ শুরু হয়েছে। এজন্য খামারটির পূর্ব অংশে ৮৫শতক জায়গা অধিগ্রহণ করা হয়। সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) পক্ষ থেকে জমিটি অধিগ্রহণ করা হয়। তারা বারবার খামারের ওই অংশে থাকা গাছগুলো এবং সীমানা প্রাচীর অপসারণ করার জন্য চিঠি দিয়ে আসছিল। আমি বিষয়টি ঊর্ধ্বতন স্যারদেরও জানিয়েছি। কিন্তু এখনও কোনো নির্দেশনা আমার কাছে আসেনি। কিন্তু এরইমধ্যে সওজ কর্তৃপক্ষ নিজেরাই গাছগুলো বিক্রি করে দিয়েছেন। তাই ক্রেতা গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছেন।

খামারের ওই উপ-পরিচালকের দাবি, সওজ বিভাগ গাছ বিক্রি করেছে। এমনকি তারাই খামারের প্রাচীর ভেঙে ফেলার প্রক্রিয়াও শুরু করেছেন। এক্ষেত্রে তার দপ্তরের কোনো সংশ্লিষ্ট নেই। তাছাড়া আমি কোনো ঝামেলার মধ্যে নেই। এজন্য আমি কোনো দরপত্র আহবান করিনি। সওজ বিভাগের পক্ষ থেকে গাছগুলোর নিলাম দেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি। কিন্তু এই সংক্রান্ত লিখিত কোনো কাগজ আমি পাইনি। আগামি সাত-আটদিনের মধ্যেই তারা আমার কাছে কাগজ পাঠাবেন বলে জানিয়েছেন।

বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান বলেন, রাস্তার পাশের গাছ কাটার বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। এজন্য আমাদের আলাদা একটা বিভাগ আছে। সেই দপ্তরে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন। কিন্তু সেখানে যোগাযোগ করেও গাছ কাটার ব্যাপারে কোনো তথ্য মেলেনি। এই সংক্রান্ত কোনো খবর জানা নেই বলেও জানান আরবরিকালচার বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বিপ্লব কুণ্ডু।

শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, সরকারি মালিকানাধীন যেকোনো সম্পদ অপসারণের জন্য বিশেষ বিধিমালা রয়েছে। এর বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কেউ সেটি না মানলে বিধি অনুযায়ী অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Check Also

শেরপুরে বিএনপির ভোট গ্রহণ চলছে

শেরপুর ডেস্কঃ বগুড়ার শেরপুর উপজেলা বিএনপির সম্মেলনের ভোট গ্রহণ চলছে। শনিবার (৩০ জুন) বেলা ১০ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

six + 19 =

Contact Us