সর্বশেষ সংবাদ
Home / আইন কানুন / নির্বাচন কমিশন গঠন আইন পাস

নির্বাচন কমিশন গঠন আইন পাস

শেরপুর ডেস্কঃ সার্চ কমিটি গঠনের মাধ্যমে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (ইসি) এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের বিধান রেখে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২ পাস হয়েছে। এর মাধ্যমে দীর্ঘ কাঙ্ক্ষিত নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন আইন প্রণয়ন হলো।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক আইনটি পাসের জন্য প্রস্তাব করলে তা কন্ঠ ভোটে পাস হয়। এর আগে, এই বিলের ওপর বিরোধী দলের সদস্যদের দেওয়া জনমত যাচাই-বাছাই ও সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি করা হয়। এ সময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন।

এর আগে, ২৩ জানুয়ারি আইনমন্ত্রী বিলটি উপস্থাপন করলে তা আইন, বিচার ও সংসদ সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানা হয়। সাত দিনের মধ্যে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য। বিলটি বৃহস্পতিবার পাসের জন্য উপস্থাপন করা হলে এর পক্ষে-বিপক্ষে বিস্তারিত আলোচনা ও বিতর্ক হয়।এ সময় আইনমন্ত্রী কয়েকটি সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণ করেন। এরপর এটি পাস হয়।

এই আইন প্রণয়নের জন্য আনা বিলে দুইটি সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণ করে সেটি পাস করা হয়। সার্চ কমিটিতে রাষ্ট্রপতির মনোনীত দুই বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার বিধান যুক্ত করা হয়।

এছাড়া সার্চ কমিটির কাজ ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে শেষ করতে বলা হয়েছে কিন্তু সংসদে উত্থাপিত খসড়া বিলে ১০ কার্যদিবস ছিল। এই দুটি সংশোধনী গ্রহণ করা হয়। বিলটি পাস হওয়ার সময় সংসদ সদস্যদের (এমপি) মধ্য থেকে অন্যান্য সংশোধনী প্রস্তাবের সঙ্গে এ দুইটি সংশোধনীর প্রস্তাব এসেছিল।

বিলটি পাস হওয়ার আগের বিলটি জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে পাঠানো এবং জাতীয় পার্টি, বিএনপি, জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্যরা বিলের ওপর বেশ কিছু সংশোধনী প্রস্তাব দেন। সেগুলো কন্ঠ ভোটে নাকচ হয়ে যায়। পাস হওয়া এ বিলটিতে রাষ্ট্রপতির সই করার পর গেজেট আকারে প্রকাশ এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে আইন কার্যকর হবে।
সংসদে উপস্থাপিত খসড়ায় প্রথমে বিলের নাম ছিল, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’। সংসদে সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের মাধ্যমে এর নাম হয় ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অনান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’।

ওয়ার্কাস পার্টির রাশেদ খান মেনন সার্চ কমিটিতে দুই জন বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার প্রস্তাব দেন।

আইনমন্ত্রী সেই প্রস্তাব গ্রহণে করেন এবং সংসদে তা ভোটে গ্রহণের মাধ্যমে আইনে যুক্ত হয়। এর ফলে ইসি গঠনের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে নাম সুপারিশের জন্য যে সার্চ কমিটি থাকবে সেই কমিটিতে একজন নারী সদস্য থাকবেন।

বিলে বলা হয়েছিল রাষ্ট্রপতি ছয় সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি গঠন করবেন, এর সভাপতি হবেন প্রধান বিচারপতি মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারক। সদস্য হিসেবে থাকবেন প্রধান বিচারপতির মনোনীত হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারক, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, সরকারি কমিশনের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রপতি মনোনীত দুই জন বিশিষ্ট নাগরিক। সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের পর সার্চ কমিটিতে রাষ্ট্রপতির মনোনীত ওই দুইজন বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার বিধান যুক্ত হলো।

বিলের খসড়ায় সার্চ কমিটির কাজ ১০ কার্যদিবস করার বিধান রাখা হয়েছিল। সেটি এখন ১৫ কার্যদিবস করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমামের এ সংক্রান্ত সংশোধনীটি প্রস্তাবটি গ্রহণ করে ১০ দিনের পরিবর্তে কাজের মেয়াদ ১৫ দিন করা হয়েছে।

এ বিলে বলা হয়েছে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ইতোপূর্বে গঠিত অনুসন্ধান কমিটির ও তৎকর্তৃক সম্পাদিত কার্যাবলি এবং ওই অনুসন্ধান কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগ বৈধ ছিল বলে গণ্য হবে এবং ওই বিষয়ে কোনো আদালতে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করা যাবে না।

Check Also

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ

শেরপুর ডেস্কঃ একটি ‍দুর্ঘটনার পর পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

3 + ten =

Contact Us