Home / স্থানীয় খবর / কুসুম্বী / প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করলেন আমইন মাদ্রাসার সুপার

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করলেন আমইন মাদ্রাসার সুপার

শেরপুর নিউজ ২৪ডট নেটঃ শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের আমইন মাদ্রাসার সুপার মো. শাহাদৎ হোসেন তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

তিনি এক প্রতিবাদ লিপিতে বলেন, গত ২৬ মে বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় শেরপুর আমইন মাদ্রাসা সুপারের দুর্নীতির ফাঁদে শিক্ষক ও নৈশপ্রহরী শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটি সম্পুর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

প্রকৃতপক্ষে মাদ্রাসার ৫ জন শিক্ষক কর্মচারীকে বিধি মোতাবেক তিন বার কারণ দর্শনোর নোটিশ প্রদান করে তাদেরকে প্রতিষ্ঠানে আসার জন্য আহ্বান জানানো হয়। কিন্তু তারা কোন জবাব দেয় না। এর প্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ২২ ডিসেম্বর ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক সহকারী শিক্ষক মো. আসাদুল্লাহ, সহকারী মৌলভী ফজর আলী, জুনিয়র মৌলভী লোকমান হাকিমকে বরখাস্ত করা হয়। ২০১৩ সালের ০৫মে এবতেদায়ী প্রধান আনিসুর রহমান,নৈশপ্রহরী আব্দুল কুদ্দুসকে বহিস্কার করা হয়। এরপর শুন্য পদে নতুন ৪ জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

বিগত ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে আমার স্বপক্ষে তথ্যপ্রমাণি যথাযথভাবে উপস্থাপন করেছি। মাদ্রাসার নিয়োগ ও বহিস্কারের বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ নজমুল ইসলাম অবগত আছেন। বহিস্কৃত শিক্ষক কর্মচারীরা ২০১২ সাল থেকে প্রতিষ্ঠানে একদিনেও যায়নি। একথা উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট স্বীকার করে স্বাক্ষর করেছেন।

বৃহিস্কৃতরা গত ২০১৮ সালের ১৪ আগষ্ট আমাকে উকিল নোটিশ দিলে আমি ১০ই সেপ্টেম্বর আইনজীবির মাধ্যমে তার জবাব প্রদান করি। কিন্তু তারপরও শেরপুর থানার সহকারি জজ আদালতে আসাদুল্লাহ, ফজর আলী ও লোকমান হাকিম আমাকেসহ ৭জনকে বিবাদী করে মামলা দায়ের করে। যা বর্তমানে আদালতে বিচারধীন রয়েছে। তারপরও মিথ্যা নানা অভিযোগ দিয়ে আমাকে হয়রানি ও প্রতিষ্ঠানে অগ্রযাত্রা বিনষ্ট করা হচ্ছে।

তাছাড়া তাদের অভিযোগের বিষয়ে গত ০৬/০৪/২০২১ তারিখে সরেজমিন মাদ্রাসায় তদন্তের তারিখ নির্ধারণ করা হলেও করোনাভাইরাসের লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় তা আজও অনুষ্ঠিত হয়নি। এছাড়া মাদ্রাসার হাজিরা খাতায় বাদ পড়া শিক্ষকদের নিয়মিত থাকার যে কথা বলা হয়েছে তা ভিত্তিহীন। এছাড়া প্রণোদনার টাকা সহকারি মৌলভী আব্দুল জলিল ২০২০ সালে পেয়েছেন। আগামীতেও পাবেন। অথচ বলা হয়েছে লিষ্টে তার নাম নেই। আর বিধি মোতাবেক বহিস্কৃত শিক্ষক কর্মচারীর নাম থাকার প্রশ্নই আসে না। মোখলেছুর রহমান ২০০৫ সালে নিয়োগের পর থেকে অদ্যাবধি প্রতিষ্ঠানে যায়নি। কোন অন্য কোথায় চাকুরী করে বলে আমি জানতে পেরেছি। বিধায় তার নাম তালিকায় আনা হয়নি। বৃহিস্কৃত শিক্ষক ফজর আলী ২০১৪সালের ২ ফেব্রুয়ারি হোসনাবাদ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসায় জুনিয়র মৌলভী পদে যোগ দিয়েছে। সে কিভাবে এই মাদ্রাসার চাকুরী দাবী করে।

উক্ত সংবাদে আমাকে জড়িয়ে যে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছে তা আসলেই ভিত্তিহীন। আমি এই সংবাদের তীব্র নিন্দা জানাই।

 

Check Also

শেরপুরে টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ

শেরপুর নিউজ২৪ডট নেট: বগুড়ার শেরপুরে অর্ধলক্ষ টাকা এক ব্যবসায়ীর নিকট থেকে ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × one =

Contact Us