Home / খেলাধুলা / ম্যারাডোনার কিংবদন্তি হয়ে উঠার গল্প

ম্যারাডোনার কিংবদন্তি হয়ে উঠার গল্প

শেরপুর ডেস্ক: ফুটবলের জাদুকর ম্যারাডোনার জন্ম ৩০ অক্টোবর ১৯৬০ সালে। বাবা দিয়েগো ম্যারাডোনা সিনিয়র ও মা দালমা নেরেয়া ফ্রাস্কোর চতুর্থ সন্তান ছিলেন দিয়েগো মারাডোনা। তার জন্ম হয়েছিলো বুয়েনোস আইরেস প্রদেশের লানুস শহরে। তবে তার বেড়ে ওঠা ভিয়া ফিওতিতোতে। ছয় ভাই-বোনের মধ্যে প্রথম পুত্র সন্তান ছিলেন তিনি। তার অন্য দুই ভাই ছিলেন পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড়। তবে দারিদ্রতার সঙ্গে লড়াই করেই শৈশব কাটিয়েছেন ম্যারাডোনা।

দারিদ্র অবশ্য সাফল্যের প্রতিবন্ধক ছিল না। ছোটবেলা থেকেই ফুটবলের সাথেই বেড়ে ওঠা ম্যারাডোনার। চাচাতো ভাই বেতো জারাতে তার তৃতীয় জন্মদিনে তাকে প্রথম ফুটবল উপহার করেছিলেন। ইয়াং ম্যারাডোনা চুরির ভয়ে প্রায় চার মাস বল জামার ভেতর রেখেই ঘুয়মাতেন।

মাত্র ১০ বছর বয়সে এস্ত্রেয়া রোজার হয়ে খেলার সময় ফ্রান্সেসকো কোরনেহো নামের এক ফুটবল স্কাউটের চোখে পড়েন ম্যারাডোনা। সেখান থেকেই তিনি প্রথম যোগদান করেন বুয়েন্স আয়ার্সের জুনিয়র টিম ‘লস সেবোলিটিয়াসে’। এই দলের হয়ে টানা ১৩৬ ম্যাচে খেলেন তিনি। নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে তিনি মাত্র ১২ বছর বয়সে ‘বল-বয়’ খেতাব পান।

১৯৭৬ সালের ২০ অক্টোবর, নিজের ষোলতম জন্মদিনের দশ দিন আগে আর্জেন্টিনোস জুনিয়র্সের হয়ে ম্যারাডোনার অভিষেক হয়। সেখানে তিনি ১৯৮১ সাল পর্যন্ত ছিলেন এবং ১৬৭ খেলায় ১১৫টি গোল করেন।

এর ঠিক এক বছর যেতে না যেতেই আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের হয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলার সুযোগ পায় ম্যারাডোনা। ১৯৭৭ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি মাত্র ১৬ বছর বয়সে হাঙ্গেরির বিপক্ষে অভিষেক হয় তার।

এদিকে জাতীয় দলে অভিষেক হওয়ার পরের বছর ১৯৭৮ সালে ঘরের মাঠে ফিফা বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়। তবে ফর্ম তুঙ্গে থাকা ম্যারাডোনার সেবারের বিশ্বকাপে জায়গা হয়নি। তবে দলে দলে ম্যারাডোনার না থাকা নিয়ে সেই সময়ের আর্জেন্টাইন কোচ সুইজার লুই মেনট্টি চরমভাবে সমালোচিত হন।

তবে জাতীয় দলে স্থান না পেলেও ১৯৭৯ সালে ১৮ বছর বয়সে তিনি আর্জেন্টিনার হয়ে ফিফা বিশ্ব যুব চ্যাম্পিয়নসিপে অংশগ্রহণ করেন। প্রতিযোগিতার ফাইনালে সোভিয়েত ইউনিয়নকে ৩–১ গোলে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। ১৯৭৯ সালের ২ জুন, স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে সিনিয়র দলের হয়ে প্রথম গোল করেন ম্যারাডোনা। তিনিই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি ফিফা অনুর্ধ-২০ বিশ্বকাপ (১৯৭৯) ও ফিফা বিশ্বকাপ (১৯৮৬) উভয় প্রতিযোগিতায় গোল্ডেন বল জিতেছেন।

ফিফা অনুর্ধ-২০ বিশ্বকাপ শেষে ম্যারাডোনা ক্লাব পরিবর্তন করেন। তিনি ১ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বোকা জুনিয়ের্সে পাড়ি জমান। ১৯৮১ মৌসুমের মাঝামাঝি সময় বোকায় যোগ দিয়ে ১৯৮২ সালে তিনি প্রথম লীগ চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেন।

Check Also

সবচেয়ে দামি এমবাপে

ডেস্ক রিপোর্ট: পিএসজি থেকে কিলিয়ান এমবাপেকে দলে ভেড়াতে হলে কত টাকা গুণতে হবে, এর একটা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six + ten =

Contact Us