Home / বগুড়ার খবর / জেলার খবর / চাল দিতে অনীহা মিল মালিকদের

চাল দিতে অনীহা মিল মালিকদের

নাহিদ আল মালেক
করোনা পরিস্থিতিতে সম্প্রতি শুরু হওয়া ইরিবোরো মৌসুমের ধান চাল সংগ্রহ অভিযানে আগ্রহ কম চালকল মালিকদের। বাজারে ধানের মূল্য বেশি হওয়ায় সরকার নির্ধারিত মূল্যে তাদের লাভ না হওয়ায় অনীহা বলে জানিয়েছেন তারা। অন্যদিকে জেলা খাদ্য অধিদপ্তর আশা করছে এখনো হাতে যথেষ্ট সময় আছে। সময়মত ঠিকই সফল হবে সংগ্রহ অভিযান।
বগুড়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে জেলা থেকে ৩৬ টাকা কেজি দরে ৭১ হাজার ৮৪৮ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল, ২৬ টাকা কেজি দরে ৩৪ হাজার ৯১০ মেট্রিক টন ধান ও ৩৫ টাকা কেজি দরে ৩হাজার ৬৩০ মেট্রিক টন আতপ চাল সংগ্রহ করবে সরকার। গত বছরের তুলনায় এবার ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বেড়েছে।
খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে সারাদেশে এই অভ্যন্তরীণ খাদ্যশস্য সংগ্রহ শুরু হয়েছে গত ২৬ এপ্রিল চলবে ৩১ আগষ্ট। কিন্তু বগুড়া জেলায় এ পর্যন্ত ১২টি উপজেলার মধ্যে ৪টি উপজেলায় নামমাত্র সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন হয়েছে। এসব খাদ্যশস্য সংগ্রহ করা হবে জেলার ২৩টি এলএসডি ও ১ টি সিএসডি গোডাউনে।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলার ১২টি উপজেলার মধ্যে শেরপুর উপজেলা থেকে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার ৪৪৯ মেট্রিক টন, দুপঁচাচিয়া উপজেলা থেকে ১৪ হাজার ৪৫৬ মেট্রিক টন, আদমদিঘী উপজেলা থেকে ১০ হাজার ৬৪৯ মেট্রিক টন, শিবগঞ্জ উপজেলায় ৪ হাজার ৯১২মেট্রিক টন, কাহালু উপজেলায় ৪ হাজার ৭৩৫ মেট্রিক টন, বগুড়া সদরে ৪হাজার ২৩৭ মেট্রিক টন, ধুনট উপজেলায় ৪হাজার ৭৮মেট্রিক টন, গাবতলী উপজেলায় ৩হাজার ১১৬ মেট্রিক টন, নন্দীগ্রাম উপজেলায় ৩হাজার ১মেট্রিক টন, শাজাহানপুর উপজেলায় ২হাজার ৮৮৭ মেট্রিক টন, সারিয়াকান্দি উপজেলায় ২হাজার ৩৩৯ মেট্রিক টন ও সোনাতলা উপজেলায় ১হাজার৮৪৯ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। জেলায় এ বছর বোরো আবাদ হয় ১লাখ ৮৮ হাজার ৬১৫হেক্টর জমিতে আর ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১১ লাখ ৯১হাজার ৮১৬ মেট্রিক টন।
গত ৩ মে জেলায় এ মৌসুমে প্রথম অভ্যন্তরীণ বোরো খাদ্যশস্যের সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন করা হয় নন্দীগ্রাম উপজেলায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ উপজেলায় ১৫ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ হলেও এক ছটাক চালও সংগ্রহ হয়নি। নন্দীগ্রাম উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. মুশফিকুর রহমান জানান, এ উপজেলায় লটারীর মাধ্যমে কৃষক নির্বাচিত করে ধান সংগ্রহ শুরু হলেও মিলারদের চাল দেয়া এখনো শুরু হয়নি। করোনা পরিস্থিতির কারণে উপজেলার বিভাজনপ্রাপ্ত ২৮ জন মিলার এখনো চুক্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারেননি। ফলে চাল সংগ্রহ শুরু করা যায়নি। তবে অচিরেই চাল সংগ্রহ করা শুরু হবে বলে তিনি দাবী করেন।
জেলার মধ্যে চাল দেবার জন্য সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে এবার শেরপুর উপজেলা। শেরপুর উপজেলা চালকল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডা. আব্দুল হামিদ জানান, উপজেলায় এ বছর ৪৫৩টি মিলের অধীনে সিদ্ধ চাল দেবার জন্য খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ এসেছে। কিন্তু ধানের বর্তমান বাজার মুল্য বেশি হওয়ায় মিলাররা চাল দিতে আগ্রহী নয়। যদিও সরকারের নিদের্শনাকে শ্রদ্ধা জানিয়েছে মিলাররা ২% জামানত ও বস্তা প্রতি ৬০ টাকা করে টাকার ব্যাংক ড্রাফট করেছে।
তিনি আরো জানান, বর্তমানে কাঁচাধানের বাজার মুল্য ৭শ থেকে ৮শ টাকা। যা গতবছরের তুলনায় বেশি। এ দামে ধান কিনে প্রতি কেজি চাল উৎপাদনে খরচ পড়বে প্রায় ৪০টাকা। তাই চাল সংগ্রহের রেট বৃদ্ধি করা না হলে চাল দেয়া সম্ভব নয়।
শেরপুর সরকারি খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম জানান, গতবছর ধানের দাম কম থাকায় যে মিলাররা ৩৬ টাকা কেজি দরে ধান দিয়েছিল। এবার ধানের বাজার বেশি হওয়ায় তারাই চাল দিতে চাচ্ছে না। কৃষকদের লটারী না হওয়ায় এবং মিলারদের আগ্রহ কম থাকায় এখনো ধানচাল সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধনই করা যায়নি।
বাংলাদেশ সেমি অটো ও হাসকিং চালকল মালিক সমিতি বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি এটিএম আমিনুল ইসলাম জানান, এবার সরকার কিছুটা আগেভাগেই সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছে। জেলায় অটো ও হাসকিং মিলিয়ে ২হাজার ৩৫টি চালকল রয়েছে। যার অধিকাংশই ব্যাংকের পে অর্ডার করেছে কিন্তু ষ্ট্যাম্পসংকটের কারণে এখনো সবাই চুক্তিবদ্ধ হতে পারেনি।
তিনি জানান, এ বছর আমরা ৩৬ টাকা দরে চাল দিতে পারব কিনা সন্দেহ আছে। বর্তমানে ধানের যে দাম তাতে আমাদের খরচ পড়ছে ৪০টাকা। এ অবস্থায় চাল দেয়া সম্ভব নয়। বগুড়া জেলায় পুরোপুরি ধান কাটা হয়নি। ধানের দাম কমলে আমরা বিবেচনা করব। চালের দর বিবেচনার জন্য আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে খাদ্যমন্ত্রণালয়ে জানানো হয়েছে।
বগুড়ার সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. মনিরুল হক জানান, সদর উপজেলায় এবারও অ্যাপের মাধ্যমে ধান সংগ্রহ করা হবে। ৪৪টি মিল থেকে এ পর্যন্ত ২০ টন চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। তবে ধানের দাম এ বছর বেশি হওয়ায় চালকল মালিকদের আগ্রহ কম। তবে সংগ্রহের মাঝামাঝি বা শেষ পর্যায়ে ধানের দাম কমলে তাদের আগ্রহ দেখা দিতে পারে।
এ ব্যাপারে বগুড়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এসএম সাইফুল ইসলাম জানান, জেলায় সাড়ে ১৯শ চালকল মালিক চাল দেবার জন্য চুক্তি করেছে। ২৬ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত দেড়শ টনের মত চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ১৬ শতাংশ ধান কাটা হয়েছে বগুড়ায়। অধিকাংশ ধানকাটা এখনো বাকি আছে। পুরোপুরি ধান কাটা হলে আশাকরি যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তা পুরণ হবে।

Check Also

করোনা উপসর্গ নিয়ে সাবেক সাংসদ পুতুলের মৃত্যু

শেরপুর নিউজ ২৪ডট নেট: সাবেক নারী সংসদ সদস্য ও বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক মহিলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + 14 =