Home / বগুড়ার খবর / ধুনট / ধুনটে অর্ধ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে এনজিও কর্মী উধাও

ধুনটে অর্ধ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে এনজিও কর্মী উধাও

এম.এ রাশেদ ঃ বগুড়ার ধুনটে প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে সুজন মিয়া (২৬) নামের এক মাঠ কর্মী উধাও হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সে উপজেলার কালেরপাড়া গ্রামের “গ্রাম বাংলা শ্রমজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেড” এনজিওতে মাঠ কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। উধাও সুজন মিয়া একই উপজেলার বথুয়াবাড়ি গ্রামের আকবর আলী ফকিরের ছেলে। এ ঘটনায় এনজিও প্রতিষ্ঠানের পরিচালক বাদি হয়ে ধুনট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত ১৯ অক্টোবর ২০১৯ শনিবার প্রতিষ্ঠানে হাজির হয়ে ঋণের রেজিষ্টার পত্রসহ বাইসাইকেল নিয়ে উপজেলার পরলক্ষীপুর গ্রামে কিস্তি আদায় করার জন্য যায়। এনজিও সদস্যদের থেকে কিস্তি আদায় শেষে অফিসে না ফিরে এনজিওর ৬৫০০০/- টাকা নিয়ে উধাও হয় সুজন মিয়া। মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় বিষয়টি সুজন মিয়ার পরিবার কে জানানো হয়। তার কোন সন্ধান না পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানের পরিচালক সাজেদুল করিম বাদি হয়ে ২১ অক্টোবর ২০১৯ সোমবার সন্ধ্যায় ধুনট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

এনজিও পরিচালনা পরিষদের সদস্য শিবলু জানায়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত ২০১৮ সালে “গ্রাম বাংলা শ্রমজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামে একটি এনজিও চালু করি। প্রায় ৬ মাস পুর্বে সুজন মিয়া আমাদের প্রতিষ্ঠানে মাঠ কর্মী হিসেবে যোগদান করে। গত সোমবার সে টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার পর তার পরিবারকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। সুজন মিয়া বাড়িতে আসে নাই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে তার পরিবার। আমারা ধুনট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। জানতে পেরেছি সুজন মিয়া নিখোঁজ থাকায় ধুনট থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে তার পরিবার।

এ বিষয়ে ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন জানান, “গ্রাম বাংলা শ্রমজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামক এক এনজিওর মাঠ কর্মী প্রতিষ্ঠানের টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে মর্মে অভিযোগ পেয়েছি। অপর দিকে এনজিও কর্মী সুজন মিয়াকে পাওয়া যাচ্ছেনা মর্মে তার পরিবারের পক্ষ থেকেও একটি অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ দুটি আমলে নিয়ে নিখোঁজ সুজন মিয়ার সন্ধানের চেষ্টা চলছে।

Check Also

ধুনটে ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন

এম.এ রাশেদ: বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছী ইউনিয়নের জয়শিং ও ধামাচামা গ্রামের ৪ পয়েন্টে বালু উত্তোলন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × five =