সর্বশেষ সংবাদ
Home / স্থানীয় খবর / পৌরসভা / শেরপুরে বরখাস্তকৃত শিক্ষকের বেতন ভাতা বিধি বহির্ভূত ভাবে উত্তোলনের অভিযোগ

শেরপুরে বরখাস্তকৃত শিক্ষকের বেতন ভাতা বিধি বহির্ভূত ভাবে উত্তোলনের অভিযোগ

শেরপুর নিউজ ২৪ ডট নেটঃ বগুড়ার শেরপুর পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বরখাস্তকৃত সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাফফর আলী’র বেতন ভাতা বিধি বহির্ভূত ভাবে উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদ শেখ, শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিতভাবে এই অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের অনুলিপি সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঢাকা, মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা, চেয়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড রাজশাহী, উপ-পরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন বগুড়া সহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।
লিখিত অভিযোগে শেরপুর পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক,আবু সাঈদ শেখ বলেন তিনি বিশ^স্ত সূত্রে জানতে পেরেছেন যে, বরখাস্তকৃত সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাফফর আলী বিগত ২২ আগষ্ট বরখাস্তকালীন সেপ্টেম্বর ২০১৮ হতে জুলাই ২০১৯ পর্যন্ত প্রায় ১১ মাসের সরকারী অংশের বকেয়া বেতন ভাতার সমুদয় টাকা তার পূর্বের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদ ব্যবহার ও স্বাক্ষর করে এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর প্রতিস্বাক্ষরে (তার হিসাব নং ৯৮০৮ থেকে) উত্তোলন করেছেন। মোজাফফর আলী সঠিক তথ্য গোপন করে এবং প্রকৃত সত্য আড়াল করে প্রতারণামূলক ভাবে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদ ব্যবহার করে বকেয়া বেতন বিল তৈরী করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর দাখিল পূর্বক বিল পাস করে সোনালী ব্যাংক, শেরপুর শাখার মাধ্যমে সমুদয় টাকা উত্তোলন করেছেন।

অভিযোগে তিনি আরও বলেন বিগত ২০১৮ সালের ১৬ মে বিধি সম্মত ভাবে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রধান শিক্ষক পদে তিনি পুনঃ যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর বাতিলকৃত এমপিও চালু করার জন্য আবেদন করলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় তার বাতিলকৃত এমপিও চালু করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তা বাস্তবায়নের জন্য মহাপরিচালক মহোদয়কে নির্দেশ প্রদান করেছেন। তিনি প্রধান শিক্ষক পদে পুনঃ যোগদান করলে মোজাফফর আলীকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে স্বপদে ফিরিয়ে যাওয়ার পর মোজাফফর আলী তাকে চার্জ বুঝে দেন। এমতাবস্তায় মোজাফফর আলী প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদ শেখ এর স্বাক্ষরে বিগত মে ২০১৮ হতে আগষ্ট ২০১৮ মাসের সরকারী অংশের বেতন বিল উত্তোলন করেন এবং অপকৌশলের আশ্রয় নিয়ে অনিয়মিত ভাবে বিদ্যালয়ে আসা যাওয়া করতে থাকেন। এরই এক পর্যায়ে মোজাফফর আলী ২০১৮ সালের ২৭ মে প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা রাজশাহী অঞ্চল, রাজশাহী সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেন। সেখানে তিনি সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ ব্যবহার করেন। তদন্তে তার অভিযোগ মিথ্যা প্রমানিত হয়। শৃঙ্খলা ভঙ্গ, অসদাচরণ ও বিদ্যালয়ে গ্রুপিং করার কারণে তাকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রথমে ২০১৮ সালের ১৩ আগষ্ট সাময়িক বরখাস্ত এবং ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর তাকে স্থায়ী বরখাস্ত করা হয়। এমতাবস্তায় বিদ্যালয় পরিদর্শক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড রাজশাহী , শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ২০১৯ সালের ৬ আগষ্ট সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাফফর আলী’কে জিবিকা ভাতা প্রদানের জন্য পত্র প্রেরণ করেন। তাকে জিবিকা ভাতা প্রদানের নির্দেশ থাকলেও মোজাফফর আলী সহকারী প্রধান শিক্ষক (বরখাস্তকৃত) হওয়া সত্ত্বেও শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর নিকট প্রতারণামূলক ভাবে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদ ব্যবহার করে সরকারী অংশের বকেয়া পূর্ণ বেতন বিল দাখিল করে সোনালী ব্যাংক, শেরপুর শাখা হতে সমুদয় টাকা উত্তোলন করেন। যা সরকারী অর্থ আত্মসাতের সামিল। বরখাস্তকৃত সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাফফর আলী বিধি বহির্ভূত ভাবে প্রতারনা ও জালিয়াতি করে বকেয়া বেতন ভাতা উত্তোলন করায় সরকারী অর্থ আত্মসাত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন বলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদ শেখ মনে করেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: লিয়াকত আলী সেখের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন বরখাস্তকৃত সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাফফর আলীর বিরুদ্ধে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমানিত হলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Check Also

শেরপুরে শুকরের উপদ্রব নিরসনে পদক্ষেপ গ্রহণ

শেরপুর নিউজ২৪ ডট: বগুড়ার শেরপুর পৌর এলাকায় শুকুরের উপদ্রব নিরসনের জন্য শুকরের মালিক ও সুইপারদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

8 − 4 =