Home / বগুড়ার খবর / ধুনট / ধুনটে বালু দস্যুরা বেপরোয়া

ধুনটে বালু দস্যুরা বেপরোয়া

এম.এ. রাশেদ ঃ বগুড়ার ধুনটে বালু দস্যুরা বেপোরায়া হয়ে উঠেছে। স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে বাঙ্গালী , ইছামতি ও যমুনা নদীর অন্ততঃ ৮টি পয়েন্ট থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার ট্রাক বালু উত্তোলন করে বিক্রি করা হচ্ছে। ফলে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত সেতু ,যমুনা নদীর তীর সংরক্ষন প্রকল্প ও পাকা সড়ক সহ কয়েক শ’একর আবাদী জমি হুমকির মুখে পড়েছে ।
সরেজমিনে অনুসদ্ধানে দেখা গেছে , উপজেলার পশ্চিম পাশে দিয়ে বয়ে যাওয়া বাঙ্গালী নদীর বেড়েরবাড়ি ও বিলচাপড়ি সেতুর উত্তর পাশে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দির্ঘদিন থেকে বালু উত্তোলন করছেন নবাব আলী ও রবিউল ইসলাম । অবাদে বালু উত্তোলনের কারনে ধুনট-বগুড়া সড়কের বেড়েরবাড়িএলাকার বাঙ্গালী নদীর উপর নির্মিত প্রায় ৭ কোটি ১১লাখ টাকা সেতু ও কান্তনগর নয় মাইল সড়কের বিলচাপড়ি এলাকার একই নদীর উপর নির্মিত প্রায় ১৫ কোটি টাকার আরো ২টি সহ ৩টি সেতু পড়েছে হুমকির মুখে। একই নদীর ঝাঝর এলাকায় ড্রেজার মেশিন দিয়ে আবু শাহেদ নামের বালু ব্যবশায়ী বালু উত্তোলন করে দক্ষিন রাঙ্গামাটি থেকে উত্তর রাঙ্গামাটি পর্যন্ত সদ্য সমাপ্ত দেড় কোটি টাকার সরকারী পাকা সড়ক নষ্ট করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। যমুনা নদীতে ডেজার মেশিন বসিয়ে দির্ঘদিন থেকে শহরাবড়ি ও পুকুরিয়া এলাকা থেকে বালু উত্তোলন করে অবৈধ ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করছেন হযরত আলী ও মিঠু মিয়া । এলাকাবাসী জানান, মাসের পর মাস অবৈধ ভাবে নদীর তলদেশ থেকে ড্রেজিং করে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করার কারনে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত যমুনা নদীর ডানতীর সংরক্ষন প্রকল্প হুমকির মুখে পড়েছে। অন্যদিকে নান্দিয়ার পাড়া এলাকায় ইছামতি নদী থেকে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে মিজান নামে এক বালু ব্যবসায়ী বানিজ্যিক ভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন ।

২০১০ সালের বালু উত্তোলনের নীতিমালায় যন্ত্র চালিত মেশিন দ্বারা ড্রেজিং পদ্ধতিতে নদীর তল দেশ থেকে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ওই আইনে সেতু কালভার্ট, পাকা সড়ক, বন্য নিয়ন্ত্রন বাধ, রেললাইন সহ সরকারী মুল্যবান স্থাপনার ১ কিলোমিটারের মধ্যে থেকে বালু উত্তোলন করা বে আইনি ঘোষনা করা হয়েছে। অথচ বালু দস্যুরা সরকারী ওই আইন অমান্য করে বাঙ্গালী , যমনা ও ইছামতি এই তিন নদীর ৮টি পয়েন্ট নিজেদের দখলে রেখে প্রতিদিন ড্রেজার মেশিনের সাহায্যে নদীর তলদেশ থেকে হাজার হাজার ট্রাক বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। বেপরোয়া বালু উত্তোলনের ফলে , কোটি কোটি টাকার মুলবান স্থাপনা হুমকির মুখে পড়েছে এবং নিমগাছি, বেড়েরবাড়ি, বিলচাপড়ি, রাম নগর, ঝাজর, রাঙ্গামাটি, বরইতলী , মাঝবাড়ি সহ প্রায় ১০টি গ্রামের মানুষ ভুমি ধসের আশঙ্কায় রয়েছেন । নিমগাছি ইউপি সদস্য আনছার আলী বলেন, বেড়েরবাড়ি সেতুর কাছে থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করার জন্য উপজেলা পরিষদে একাধিক বার অভিযোগ করে কোন প্রতিকার হয়নি। উল্টো বালুদস্যুরা তাকে হুমকি দিচ্ছে। এলাঙ্গী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মাসুদ রানা বলেন, তার ইউপি এলাকায় বিলচাপড়ি , রাঙ্গামাটি ও ঝাজর এলাকায় অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির ফলে কোটি কেটি টাকার ব্রীজ ও পাকা সড়ক নষ্ট হচ্ছে। অভিযোগ করেও বন্ধ করা যাচ্ছে না। যুবলীগ নেতা সুমন সরকার জানান, বালু দস্যুরা প্রভাবশালী দের ম্যানেজ করে সরকারী ব্রীজ, কালভাট, রাস্তাঘাট সহ সরকারী বিভিন্ন স্থাপনা নষ্ট করলেও কো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে , বালু দস্যুরা সরকারীদলের স্থানীয় পর্যায়ের নেতা হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে এলাকার কেউ মুখ খোলার সাহস পায় না । আর প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দিলেও তেমন কোন ব্যবস্থাও নেওয়া হয়না।

এবিষয়ে কয়েকজন বালু ব্যবশায়ীর সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তারা কথা বলতে রাজি হন নি। বালু ব্যবশায়ী হযরত আলী বলেন, নদী থেকে বালু উত্তোলন ও বিক্রি করে তেমন কোন অপরাধ করছি না। নবাব আলী বলেন, বেড়েরবাড়ি বালু মহল সরকারী ভাবে ইজারা দেওয়া হতো। আমি গত বছর ইজারা নিয়ে বালু উত্তোলন করতে গিয়ে বেশ কয়েকবার মোবাইল কোটে জরিমানা দিয়েছি। এই আমি বগুড়া জেলা প্রশাসককে বিবাদী করে উচ্চ আদালতে মামলা করায় চলতি বছরে ইজারা দেওয়া বন্ধ রয়েছে। যেহেতেু আমি ক্ষতি গ্রস্ত তাই সরকারী দলের নেতা হিসাবে নদী থেকে বালু তুলে বিক্রি করব এই টুকু সুবিধা পাবো না।

এলজি ইডির ধুনট উপজেলা প্রকৌশলী জহুরুল ইসলাম বলেন, বালু উত্তোলনের ফলে ৩ টি সেতু ও পাকা সড়কের ক্ষতি হয়েছে। তিনি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কে জানিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজিয়া সুলতানা বলেন, অবৈধ বালু দস্যুদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোট পরিচালনার জন্য সহকারী কমিশনার (ভুমি)কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সহকারী কমিশনার (ভুমি) জিন্নাত রেহেনা বলেন, বালু দস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যহত রয়েছে। ইতিমধ্যেই ২/৩টি পয়েন্টে ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার কয়েকজন জানান, প্রশাসনের অভিযানের দুই এক সপ্তাহ বন্ধ থাকলেও পরে আবারও বালু উত্তোলন শুরু হয়েছে আগের মতোই।

Check Also

শেরপুরে ৩৪৬ কি.মি কাঁচা সড়কে লাখো মানুষের দুর্ভোগ

শেরপুরনিউজ২৪ডটনেটঃ বিগত ১২ বছরে প্রায় দুইশ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ হলেও বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় ৩৪৬ কিলোমিটার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 2 =

Contact Us