Home / স্থানীয় খবর / পৌরসভা / শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভবন আছে, সেবা নেই

শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভবন আছে, সেবা নেই

নাহিদ আল মালেকঃ বগুড়ার শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫০ শয্যার অত্যাধুনিক ভবন নির্মিত হলেও নেই কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা। ২০১৮ সালের ২২ এপ্রিল শেরপুর উপজেলায় ১৩ কোটি ৮৮ লাখ ৪৪ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত অত্যাধুনিক চারতলা বিশিষ্ট ওপিডি ভবন সহ ৪টি ভবন সম্বলিত ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল ভবনের উদ্বোধন করেন তৎকালীন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম এমপি। কিন্তু ভবন উদ্বোধনের এক বছর অতিক্রান্ত হলেও চালু হয়নি ৫০ শয্যার কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা। ৩১ শয্যার জনবল, চিকিৎসক সংকট, নানা অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম, রোগীদের ভোগান্তির মধ্যে দিয়েই চলছে সাড়ে ৪ লাখ লোকের ভরসাস্থল শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।
শেরপুর উপজেলা হাসপাতালে বর্তমানে ১১ জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও দুই জন চিকিৎসক প্রেষণে যাওয়ায় কর্মরত রয়েছেন ৭ জন চিকিৎসক। এর মধ্যে একজন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ও আরেক জন আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার হিসাবে সার্বিক দায়িত্ব পালন করেন। জুনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন), জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনী) ও জুনিয়র কনসালটেন্ট (এনেস্থেথিয়া) পদে কোন চিকিৎসক নেই। বাকি ৫ জন চিকিৎসক ডিউটি রোষ্টার অনুসারে অন্তঃবিভাগ, জরুরী বিভাগ ও বহিঃ বিভাগে দায়িত্ব পালনের নিয়ম থাকলেও তাদের অবহেলার কারণে হাসপাতালে আগত রোগীরা কাংখিত সেবা পাচ্ছে না।
হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে ডেন্টাল সার্জন ডা. আবু হাসান বর্হিবিভাগে রোগী দেখছেন। কিন্তু যন্ত্রপাতি না থাকায় রোগীরা কাংখিত সেবা থেকে বঞ্চিত। এছাড়া দ্বিতীয়তলায় মেডিক্যাল অফিসারদের সাাতক তালাবদ্ধ। নিচে শত শত নারী-শিশু ও পুরুষ রোগীদের নামমাত্র সেবা দিচ্ছেন ৭ জন সাব এসিষ্টান্ট কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার (স্যাকমো)। তাদের দিয়েই চলছে হাসপাতালে বর্হিবিভাগ। বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার পরিবর্তন হলেও চালু হয়নি হাসপাতালের এক্স-রে মেশিন।
হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা জানান, বর্হিবিভাগে কোন এমবিবিএস চিকিৎসককে খুঁেজ পাওয়া যায় না। তাই বাধ্য হয়েই স্যাকমোদের কাছেই যেতে হয়। এছাড়া প্রয়োজনীয় কোন ওষুধও পাওয়া যায় না।
এছাড়াও রয়েছে হাসপাতালে আগত রোগী ও তার আত্মীয়স্বজনদের সাথে দুর্ব্যবহার, হয়রানি সহ নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা পদে ননবিসিএস কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদের (বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারভুক্ত নয়) ২০১৭ সালে ১৮ অক্টোবর যোগদানের পর থেকেই হাসপাতালে নানা অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা নতুন মাত্রা পেয়েছে। তিনি উপজেলা সদরে অবস্থান না করে বগুড়া জেলা সদর থেকে এসে অফিস করেন। হাসপাতলে ডাক্তারদের ঠিকমত রোগী না দেখে প্রাইভেট প্রাকটিস নিয়ে ব্যস্ত থাকা, রোগী ও তার আত্মীয়স্বজনদের সাথে দুর্ব্যবহার, প্রয়োজনীয় ঔষধ না দেয়া, মেডিক্যাল রিপ্রেজেনটিভদের দৌরাতœ্য বৃদ্ধি, অন্তঃবিভাগে রোগীদের সঠিক মাত্রায় খাবার না দেয়া, কতিপয় কর্মচারীর অবৈধসুযোগ সুবিধাভোগ সহ হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়লেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেন না।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদেরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্তি হয়ে বলেন, ‘তথ্য নিতে হলে এপ্লাই করতে হবে। আবেদন ছাড়া হাসপাতালের কোন তথ্য দেয়া যাবে না।’

Check Also

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবীতে শেরপুরে মানববন্ধন

শেরপুরনিউজ২৪ডট নেটঃ যথাযথ সুরক্ষা নিশ্চিত করে অবিলম্বে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবীতে বগুড়ার শেরপুরে মানববন্ধন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 1 =

Contact Us