Home / স্থানীয় খবর / খ্যাতিমান প্রবীন সাংবাদিক আমান উল্লাহ খান একটি জীবন্ত ইতিহাস

খ্যাতিমান প্রবীন সাংবাদিক আমান উল্লাহ খান একটি জীবন্ত ইতিহাস

“মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু”
উত্তর জনপদের প্রবীন রাজনীতিবিদ খ্যাতিমান সাংবাদিক সাবেক এমপি আমান উল্লাহ খান একটি জীবন্ত ইতিহাস। আমানউল্লাহ খান ১৯৩৮ সালে বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার জয়লাজুয়ান গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম িিদর উদ্দিন খান। ৩ ভাই ২ বোনের মধ্যে তিনি সকলের বড়। বর্তমানে তার বয়স প্রায় ৭৯ বছর। ষাটের দশকে বগুড়া জেলার রাজনীতি ও সাংবাদিকতায় যারা ত্যাগ স্বীকার করে নানা প্রকার রাজনৈতিক নির্যাতনের শিকার হন, তাদের মধ্যে আমান উল্লাহ খান অন্যতম। ১৯৬৩ সালে তিনি বিএ ডিগ্রী লাভ করেন। এরপর তিনি ঢাকায় আইন বিভাগে অধ্যয়নকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরামর্শে এবং সহযোগিতায় দৈনিক ইত্তেফাকের ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি হিসাবে সাংবাদিকতায় যোগদান করেন এবং কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৫৪ সালে প্রবেশিকা পরীার্থী থাকা অবস্থায় চান্দাইকোনায় যুক্তফ্রন্টের পে নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ নেন। ১৯৫৭ সালে পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে অধ্যয়নকালে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এসময় একজন বলিষ্ঠ সংগঠক এবং সুবক্তা হিসাবে তিনি ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন। ১৯৬১ সালে বগুড়া আযিযুল হক কলেজ ছাত্রসংসদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬২ সালে সামরিক আইনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন এবং কারারুদ্ধ হন এবং তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়। মুক্তিলাভের পর তিনি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৫ সালে বগুড়া সদর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬৬ সালে তিনি ঐতিহাসিক ৬ দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জনসভায় ভাষণ দেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাকে খুবই স্নেহ করতেন। ১৯৬৭ সনে বগুড়া জেলা শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি বগুড়ার ইতিহাস সিরিজের অন্যতম গ্রন্থ আজকের বগুড়া প্রকাশ করেন। এই সময়ে তাকে বগুড়া প্রেসকাবে নাগরিক সংবর্ধনা দেয়া হয়। ১৯৬৯ হতে ১৯৭৪ সন পর্যন্ত তিনি বগুড়া প্রেসকাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৯ সানে ঐতিহাসিক গণআন্দোলনে তিনি বগুড়ায় নেতৃত্ব দেন। এসময় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলে তিনি আত্মগোপন করে থাকা অবস্থাতেও কার্যক্রম চালিয়ে যান। ১৯৭১ সালে তিনি পুর্ব বাংলার ডেজিগনেট মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপটেন এম মুনসুর আলীর প্রেস সেক্রেটারীর দায়ীত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালের ফেব্র“য়ারী মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক গঠিত বগুড়া জেলায় মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির তিনি অন্যতম সদস্য ছিলেন। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি বলিষ্ঠ ভুমিকা পালন করেন। এ সময় পাকহানাদারদের সাথে নিয়ে রাজাকার আলবদর বাহিনী তার গ্রামের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয় এবং সর্বস্ব লুট করে। মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের উষালগ্নে ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর শেরপুরের পার্ক মাঠে (বর্তমানে মহিলা কলেজ চত্বর) মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে তিনি প্রথম বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন। মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের পর ১৯৭১ সালের ৩০ ডিসেম্বর তিনি বগুড়া তথা উত্তরবঙ্গ হতে সর্বপ্রথম সংবাদপত্র দৈনিক বাংলাদেশ নামে একটি দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ করেন। আমান উল্লাহ খানের সম্পাদনায় কিছুদিনের মধ্যেই দৈনিক বাংলাদেশ উত্তর জনপদে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সম হয়। ১৯৭৪ সালে তিনি সাংবাদিক ডেলিগেশনের অন্যতম সদস্য হিসাবে ব্যাংকক সফর করেন। ১৯৭৩ সালের সাধারন নির্বাচনে তিনি বগুড়া ৫ শেরপুর-ধুনট আসন থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৪ সালে তার প্রচেষ্টায় শেরপুর থানা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও পল্লী উন্নয়ন একাডেমী বগুড়া স্থাপিত হয়। তিনি আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। তিনি আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। ১৯৭৫ সালে বাকশাল গঠিত হলে তিনি বগুড়া জেলা বাকশালের দ্বিতীয় সম্পাদক মনোনীত হন। ১৯৭৮ সালে তিনি ঢাকায় অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতাদের সম্মেলনে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করেন। ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্ব-পরিবারে হত্যার পর তিনি বগুড়া তথা শেরপুর-ধুনট এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সমর্থক শুভাকাংখীদের উজ্জীবিত করার জন্য গ্রামে গ্রামে ছুটে বেড়ান। তিনি আমার রাজনৈতিক ও সাংবাদিকতা জীবনের গুরু। ১৯৮৪ সালে আমি যখন উপজেলা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ছিলাম তখন আমানউল্লাহ খানের নেতৃত্বে শেরপুর উপজেলা যুবলীগের বিশাল ও বর্ণাঢ্য কর্মী সম্মেলন এবং শেরপুর ও ধুনটে কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন সহ বিভিন্ন সময় তিনি আমাদের শেরপুর শহরস্থ বাসায় রাত্রীযাপন করতেন। স্বৈরাচারের পুলিশ বাহিনী ধরপাকড় শুরু করলে আমান উল্লাহ খানের সাথে শাহজামাল সিরাজী আহসান হাবীব আম্বীয়া সহ আমরা আমাদের ভাটরা গ্রামের বাগান বাড়ীতে রাত্রীযাপন করতাম মাঝে মধ্যে আমান উল্লাহ খানের জয়লাজুয়ান গ্রামের বাড়ীতেও রাত্রীযাপন করেছি। তখনকার দিনের স্মৃতিকথা শুধু একটি প্রবন্ধে লিখে শেষ করা যাবেনা। সে সময়ের আন্দোলন সংগ্রাম রাজনীতি সাংবাদিকতায় তিনি ছিলেন সিংহ পুরুষ।
১৯৮৬ সালে আমান উল্লাহ খানের সম্পাদনায় দৈনিক বাংলাদেশ পুনঃ প্রকাশ হয়। পুনঃ প্রকাশের পর আমি দৈনিক বাংলাদেশ পত্রিকায় প্রথমে ষ্টাফ রির্পোটার হিসাবে যোগদান করি। এরপর সহ সম্পাদক ও মফস্বল বার্তা সম্পাদক হিসাবে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করি। এ সময় খুব কাছে থেকে তাকে দেখার সুযোগ আমার হয়েছে। তার খুঁড়ধার লেখনী সব সময় আমাকে উজ্জীবিত করেছে। তিনি অনেক সময় আমাদেরকে হাতে কলমে শিা দিয়েছেন। তার আদরমাখা স্নেহ ভালবাসা আমাকে অনুপ্রানিত করেছে। একদিকে উত্তরাঞ্চলের প্রথম পত্রিকা দৈনিক বাংলাদেশ এর সফল সম্পাদক অপরদিকে দৈনিক ইত্তেফাকের ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি হিসাবে উত্তরজনপদে তার পদচারনা তাকে সাংবাদিকতায় খ্যাতির শীর্ষে তুলে দেয়। ১৯৯৬ সালে তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি তার নিজ গ্রামে একটি হাসপাতাল ও জয়লা জুয়ান ডিগ্রী কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন। প্রায় ৭৯ বছর বয়স হলেও বার্ধ্যক এখনও তাকে বশ করতে পারেনি। তিনি সাংবাদিকতা ও রাজনীতিতে এখনও জড়িত আছেন। খ্যাতিমান প্রবীন সাংবাদিক আমান উল্লাহ খান আসলে একটি জীবন্ত ইতিহাস। আমি তার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।
(সাপ্তাহিক আজকের শেরপুর পত্রিকায় ২০১৭ সালের ২২ জুন তারিখে প্রকাশিত)

Check Also

শেরপুরে দলিল লেখক সমিতির আহ্বায়ক কমিটি গঠন

শেরপুরনিউজ২৪ডট নেটঃ বগুড়ার শেরপুরে সাবরেজিষ্ট্রি অফিস দলিল লেখক কল্যাণ সমিতির পুরাতন কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন …

Contact Us