Home / বিনোদন / সঙ্গীত জীবনের বর্ণাঢ্য ছয় দশক পেরিয়ে রুনা লায়লা

সঙ্গীত জীবনের বর্ণাঢ্য ছয় দশক পেরিয়ে রুনা লায়লা

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের গর্ব উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী, সুরকার রুনা লায়লা তার সঙ্গীত জীবনের ষাট বছর আজ পূর্ণ করলেন। বিগত ষাট বছর যাবত তিনি বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানে বহু গানে কন্ঠ দিয়ে শ্রোতা দর্শককে গানে গানে মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন। জীবনে কখনো কোনো কারণে তিনি গান থেকে নিজেকে বিরত রাখেননি। সেই যে আজ থেকে ষাট বছর আগে শুরু হয়েছিলো গানের ভুবনে পথচলা, এখনো তা অবিরাম চলছে। বরং এখন গান গাওয়ার পাশাপাশি গানের সুরও করছেন, প্রতিনিয়তই সুরের মধ্যে মগ্ন থাকছেন তিনি।

রুনা লায়লা জানান, সিনেমার গানে তার যাত্রা শুরু হয় শওকত আকবর, খলিল, শর্মিলী আহমেদ অভিনীত ‘জুগনু’ (বাংলাদেশ-পাকিস্তানের যৌথ প্রযোজনার সিনেমা) সিনেমাতে ‘গুড়িয়া সি মুন্নি মেরি ভাইয়া কী পেয়ারি’ গানটি গাওয়ার মধ্যদিয়ে। গানটি লিখেছিলেন তিসনা মেরুতি, কম্পোজ করেছিলেন মানজুর। ১৯৬৪ সালের ২৪ জুন মাত্র বারো বছর বয়সে ‘জুগনু’ সিনেমার এই গানে কন্ঠ দেন রুনা লায়লা। সেই হিসেবেই আজ তিনি পেশাগতভাবে তার সঙ্গীত জীবনে ষাট বছর পূর্ণ করেছেন। আশরাফ আলী খান প্রযোজিত সিনেমাটি পরিচালনা করেছিলেন মামনুন খান। এই সিনেমাতে রুনা লায়লার বড় বোন দীনা লায়লাও প্লে-ব্যাক করেছিলেন। সিনেমাটি মুক্তি পায় ১৯৬৮ সালের ২৯ মার্চ।

এরপর পাকিস্তানের আরো বহু সিনেমায় রুনা লায়লা প্লে-ব্যাক করেছেন। যারমধ্যে বিশেষখভাবে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ‘হাম দোনো’, ‘রিশতা হ্যায় পেয়ার কা’, ‘কমাণ্ডার’,‘ আন্দালিব’, ‘নসীব আপনা আপনা’,‘ দিল অউর দুনিয়া’,‘ উমরাও জান আদা’,‘ আনমোল’,‘ নাদান’,‘ দিলরুবা’সহ আরো বেশ কিছু সিনেমায় তিনি প্লে-ব্যাক করেছেন। মুক্তিযুদ্ধের আগেই রুনা লায়লা প্রথম বাংলাদেশের সিনেমায় প্লে-ব্যাক করেন প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে তুমুল জনপ্রিয় গান ‘গানেরই খাতায় স্বরলিপি লিখে’ গানটি। ১৯৭০ সালের ২৯ মে মুক্তিপ্রাপ্ত নজরুল ইসলাম পরিচালিত সিনেমা ‘স্বরলিপি’ সিনেমার এই গান লিখেছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সুর করেছিলেন সুবল দাস। গানে লিপসিং করেছিলেন চিত্রনায়িকা ববিতা। প্রথম প্লে-ব্যাকেই ব্যাপক সাড়া ফেলেন রুনা লায়লা। বাংলাদেশের সিনেমার গানেও তার কন্ঠের কদর বেড়ে যায়।

সঙ্গীত জীবনের চলার পথে সফলতার ষাট বছর প্রসঙ্গে রুনা লায়লা বলেন,‘ আল্লাহর কাছে কোটি কোটি শুকরিয়া যে আমি এখনো গান গাইতে পারছি, সুর করতে পারছি। তারচেয়েও বড় কথা আমারই সঙ্গীত জীবনের চলার পথের সফলতার  ছয় দশক আমি নিজের চোখে উপভোগ করে যেতে পারছি। এটা যে কতো বড় সৌভাগ্যের বিষয়, জীবনে কতো বড় যে প্রাপ্তি তা আসলে ভাষায় প্রকাশের নয়।

Check Also

আমার প্রাণের বাংলাদেশ এভাবে রক্তাক্ত হতে পারে না: শাকিব খান

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে চলমান অস্থিরতা নিয়ে নিজের অবস্থান জানালেন ঢালিউড …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 5 =

Contact Us