Home / দেশের খবর / সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর

সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সারাদেশে গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে আরও ১৮ হাজার ৫৬৬টি বাড়ি হস্তান্তর করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১১ জুন) বেলা ১১টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সুবিধাভোগীদের জমির মালিকানা দলিলসহ বাড়ি হস্তান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন তিনি।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা, কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলা এবং ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে সুবিধাভোগীদের কাছে জমির মালিকানা দলিলসহ বাড়ি হস্তান্তর করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর উপহার পাওয়ার কথা শুনে উচ্ছ্বসিত সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ। আনুষ্ঠানিকভাবে ঘর হস্তান্তরের সাজ সাজ আয়োজন করা হয়েছে। এ যেন ঈদুল আজহার আগে আরেক ঈদ আনন্দ।

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার পুনর্বাসনের লক্ষ্যে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ১৯৯৭ সালে আশ্রয়ণ নামে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়। আওয়ামী লীগ সরকার আবারও ক্ষমতায় আসার পর ২০২০ সালের মে মাসে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহ ও ভূমিহীন থাকবে না’– প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ ঘোষণা বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়েই শুরু হয়েছিল প্রকল্পটির যাত্রা। এ জন্য সারাদেশের ভূমিহীন ও গৃহহীন ৮ লাখ ৮৫ হাজার ৬২২টি পরিবারের তালিকা করে তাদের জমিসহ ঘর উপহার দিচ্ছেন তিনি।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে এই পাঁচ পর্যায়ে মোট হস্তান্তরিত একক গৃহের সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে দুই লাখ ৬৬ হাজার ১২টি। যার মধ্যে চতুর্থ পর্যায়ে চরাঞ্চলে বরাদ্দকৃত বিশেষ ডিজাইনের গৃহের সংখ্যা ১ হাজার ৩৭৩টি এবং পার্বত্যাঞ্চলের বিশেষ ডিজাইনের মাচাং ঘর ৬৩৪টি।

এদিকে, আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর আওতায় আজ ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে ঢাকা, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, ফরিদপুর, নেত্রকোনা, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, কুমিল্লা, ফেনী, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া, সাতক্ষীরা, যশোর, খুলনা, নড়াইল, বাগেরহাট, বরগুনা, বরিশাল, হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার সব উপজেলাসহ সারাদেশের মোট ৭০টি উপজেলাকে। এর মধ্য দিয়ে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত মোট জেলা ও উপজেলার সংখ্যা দাঁড়াবে ৫৮ জেলা ও ৪৬৪টি উপজেলা।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ এই আশ্রয়ণ প্রকল্পটি ‘অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নে শেখ হাসিনা মডেল’ হিসেবে পরিচিত। জমি ও ঘর নেই এমন দরিদ্র পরিবারগুলোকে সেমিপাকা একক গৃহের পাশাপাশি দুই শতাংশ জমির মালিকানার দলিলপত্র এবং জমি আছে, কিন্তু জরাজীর্ণ বাড়ি– এমন অনেক পরিবারকে সরকারি খরচে ঘর তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে। প্রকল্প এলাকায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সুবিধা এবং খাবার পানির জন্য গভীর ও অগভীর নলকূপ ছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, খেলার মাঠ, কমিউনিটি সেন্টার, অভ্যন্তরীণ ও সংযোগ সড়ক নির্মাণ এবং পুকুর খনন ও বৃক্ষরোপণ করে উন্নত জীবনযাপনের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। কয়েকটি প্রকল্পে মসজিদ-মন্দির ও কবরস্থান নির্মাণ ছাড়াও সুবিধাভোগীদের কৃষিকাজ, মৎস্যচাষ, গবাদি পশু পালন, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প, সেলাইসহ আত্মকর্মসংস্থানের নানা প্রশিক্ষণ এবং সমবায় সমিতির মাধ্যমে ক্ষুদ্রঋণ দিয়ে স্বাবলম্বী করে তোলা হচ্ছে। যোগ্যতার ভিত্তিতে বিভিন্ন কলকারখানা কিংবা শিল্পপ্রতিষ্ঠানে চাকরি, কাউকে যানবাহন কিনে দিয়ে অথবা কাউকে ছোট দোকান দিয়ে তাদের জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আশ্রয় পাওয়া দরিদ্র পরিবারগুলো নিজস্ব জমিতে কৃষিকাজ, শাকসবজির ফলন, হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগল পালন এবং দোকানপাট করে নিজেদের জীবনে আর্থিক সচ্ছলতা আনছে। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া শেখানোর মাধ্যমে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ জীবনের নিশ্চয়তাও পাচ্ছেন।

সোমাবার ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার চর কচ্ছপিয়া গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় গৃহহীন ও ভূমিহীন ১৫০ পরিবারকে জমিসহ সেমিপাকা ঘর দেওয়া হবে। এ কারণেই জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠানস্থল সেজেছে নানা সাজে। চারদিকে ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নানা উক্তি শোভা পাচ্ছে তাতে। লাল সবুজের শাড়ি পরে উপকারভোগীদের অপেক্ষা বলে দিচ্ছে তাদের খুশির খবর।

শুধু ভোলার চরফ্যাশন নয়, সারাদেশে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের পঞ্চম পর্বের দ্বিতীয় ধাপে ১৮ হাজার ৫৬৬টি গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে বাড়ি হস্তান্তরের পাশাপাশি তিনি ২৬ জেলার সব উপজেলাসহ আরও ৭০টি উপজেলাকে ভূমি ও গৃহহীন মানুষ মুক্ত ঘোষণা করবেন। এর মধ্যে লালমনিরহাটে ১ হাজার ২৮২টি, কক্সবাজারে ২৬১টি এবং ভোলা জেলায় ১ হাজার ২৩৪টি বাড়ি হস্তান্তর করবেন। তাতে সারাদেশে জেলার মোট সংখ্যা দাঁড়াবে ৫৮টি এবং উপজেলা হবে ৪৬৪টি।

এ নিয়ে ভোলা জেলা প্রশাসক আরিফুজ্জামান বলেন, মোট ৬৩৫৬ টি ঘর আমরা বরাদ্দ পেয়েছি। ১০০৫টি জরাজীর্ণ ঘর ,যেটি সংস্কার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১১ জুন) ভোলার জেলার মূলত চরফ্যাশন, বোরহানউদ্দিন ও মনপুরা উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে। ১২৩৪টি ঘর সরাসরি ভূমিহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হবে।

Check Also

ঈদের ছুটি শেষে বুধবার খুলছে অফিস

শেরপুর নিউজ ডেস্ক : ঈদুল আজহার ছুটি শেষে বুধবার (১৯ জুন) খুলছে সরকারি অফিস। গত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve − eleven =

Contact Us