Home / দেশের খবর / বাংলাদেশী নারী বিজ্ঞানীর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

বাংলাদেশী নারী বিজ্ঞানীর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: সাম্প্রতিক সময়ে পৃথিবীতে পানি দূষণের মাত্রা বিজ্ঞানীদের ভাবিয়ে তুলেছে। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, পানযোগ্য নিরাপদ বিশুদ্ধ পানির উৎস কমতে কমতে ভবিষ্যতে এমন সময় আসবে যখন দূষিত পানি পরিশুদ্ধ করে পান করা ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এ সংকট মোকাবেলায় নিভৃতে কাজ করে যাচ্ছেন ড. তাসরীনা রাবেয়া চৌধুরী। বিশেষ করে সুবিধাবঞ্চিত সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিতের লক্ষ্যে পানিতে বিদ্যমান বিষাক্ত উপাদান দূর করার পদ্ধতিগত কৌশল নিয়ে কাজ করছেন তিনি। গবেষণা করছেন উপকূলীয় অঞ্চল, নদী ও স্থলভাগের পানি দূষণের সূত্র নির্ণয়ে। পানিতে বিদ্যমান ক্যাডমিয়াম, ক্রোমিয়াম, আর্সেনিক, মার্কারির মতো মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর বিষাক্ত উপাদানগুলোকে দেশীয় উপাদান ব্যবহার করে দূর করার পদ্ধতি তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

ড. তাসরীনার এ নিরলস, নিভৃত গবেষণা দেশে তেমন আলোচিত না হলেও বিশ্বখ্যাত এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে এবং তাকে এ বছরের অর্গানাইজেশন ফর উইমেন ইন সায়েন্স ফর দ্য ডেভেলপিং ওয়ার্ল্ড (ওডব্লিউএসডি)-এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। দুনিয়ার প্রভাবশালী বৈজ্ঞানিক গবেষণাপত্র প্রকাশনা সংস্থা এলসেভিয়ার। এ সংস্থা থেকেই প্রকাশ হয় দ্য লানসেট, সেল, সায়েন্সডিরেক্টের মতো প্রভাবশালী জার্নাল। তাদেরই একটি উদ্যোগ এ এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশন, যেটি স্বাস্থ্য, জলবায়ু, বৈষম্য নিরসনে কাজ করা অলাভজনক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে বছরে ১৫ লাখ ডলার সহায়তা দেয়।

চলতি বছর বিশ্ব পানি দিবসে নিরাপদ, বিশুদ্ধ পানি নিশ্চিতকরণ নিয়ে গবেষণার স্বীকৃতিস্বরূপ পাঁচ নারী বিজ্ঞানীকে ওডব্লিউএসডি-এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড প্রদানের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয়। পরিবেশ পুনরুদ্ধার ও পানির গুণগত মানোন্নয়ন নিয়ে গবেষণার স্বীকৃতিস্বরূপ এ পাঁচ নারী বিজ্ঞানীর তালিকায় বাংলাদেশের ড. তাসরীনা রাবেয়া চৌধুরী জায়গা করে নিয়েছেন। পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক বাবা ও মেয়েকে নিয়ে স্বপ্ন দেখা মায়ের সন্তান হিসেবে গবেষণার জগতে বেশ কয়েকবারই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করেছেন তিনি।

জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যের মধ্যে নিরাপদ বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশন গুরুত্ব পেয়েছে। বিশুদ্ধ ও নিরাপদ পানির প্রাপ্যতা নিয়ে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নারী বিজ্ঞানীদের গবেষণাকে স্বীকৃতি দিতে এ বছর ওডব্লিউএসডি-এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড ঘোষণা করা হয়। ড. তাসরীনা রাবেয়া চৌধুরী ছাড়া এ বছর অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন তানজানিয়ার অগাস্টিনা ক্লারা আলেকজান্ডার, শ্রীলংকার শিরানি ম্যানেল কুমারী, হুন্ডুরাসের লিডিয়া আন্তোনেলা রিভেরা ও উগান্ডার জুবেদা উকুনদিমানা। প্রত্যেক বিজয়ী পাবেন ৫ হাজার ডলার, সংশ্লিষ্ট সম্মেলনে অংশগ্রহণ এবং স্টার প্রটোকল জার্নালে তাদের গবেষণা প্রকাশের সুযোগ। এ পাঁচ বিজ্ঞানী জুনে সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক পানি সপ্তাহ আয়োজনে অংশ নেবেন এবং সেখানে তাদের ওডব্লিউএসডি-এলসেভিয়ার ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড দেয়া হবে।

ড. তাসরীনা রাবেয়া চৌধুরী একজন রসায়নবিদ। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনে প্রিন্সিপাল সায়েন্টিফিক অফিসার হিসেবে কর্মরত। পানির গুণমান উন্নয়ন থেকে শুরু করে পরিবেশ পুনরুদ্ধার, জলবায়ু পরিবর্তন ও এর ঝুঁকি মূল্যায়ন এবং পরিবেশগত মডেলিংয়ের মতো বিষয় নিয়ে তিনি গবেষণা করছেন। বর্জ্য পানি ও পানযোগ্য পানি থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর করার মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের কীভাবে নিরাপদ খাওয়ার পানি সরবরাহ করা যায় সে রকম মডেল নিয়ে কাজ করছেন ড. তাসরীনা।

বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনে একটি গবেষণাগার রয়েছে, যেখানে প্রতিনিয়ত বিষাক্ত ধাতু বিশ্লেষণের কাজ করে যাচ্ছেন গবেষকরা। এ ল্যাব প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন ড. তাসরীনা। ২০১০ সালে জাতিসংঘ শিল্প উন্নয়ন সংস্থা (ইউনিডো) বাংলাদেশে এমন একটি ল্যাবরেটরিকে সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেয়। আন্তর্জাতিক গুণমান নিশ্চিতে ইউনিডোর সব শর্ত পূরণের মাধ্যমে ধাপে ধাপে সমস্ত প্রক্রিয়া শেষে ২০১৫ সালে গবেষণাগারটি আন্তর্জাতিক অনুমোদান লাভ করে। প্রথম দিকে শুধু পানি ও মাছে থাকা উপাদান বিশ্লেষণে কাজ করলেও বর্তমানে মাটি, সবজি, ফলমূলসহ প্রায় সবকিছু বিশ্লেষণের কাজ চলছে এ ল্যাবে।

ড. তাসরীনা রাবেয়া চৌধুরীর জন্ম ও বেড়ে ওঠা রাজধানী ঢাকায়। বাবা জেকে মোতাহারুল ইসলাম চৌধুরী ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক। বাবাই ছিলেন তার অনুপ্রেরণা। তার মায়ের স্বপ্ন ছিল মেয়েদের তিনি সমাজে প্রতিষ্ঠিত করবেন। ড. তাসরীনার বিজ্ঞানী হয়ে ওঠা মূলত মায়ের স্বপ্ন পূরণের ইচ্ছাতেই। তবে আর পাঁচজন নারীর মতোই বিজ্ঞানী-গবেষক হয়ে ওঠার মতো কঠিন যাত্রায় তাকে মোকাবেলা করতে হয়েছে নানা প্রতিবন্ধকতা। কখনো কখনো ক্লান্ত হয়েছেন, কিন্তু থেমে যাননি। আর তার পুরস্কারও পেয়েছেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসায়ন বিভাগ থেকে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি সম্পন্ন করেন। কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ড. তাসরীনা ২০১৮ সালে অ্যাসোসিয়েশন অব একাডেমিস অ্যান্ড সোসাইটিজ অব সায়েন্সেস ইন এশিয়ার পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট’স ইয়াং সায়েন্টিস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং ভৌত বিজ্ঞানে বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্সেস গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেন। তিনি ওয়ার্ল্ড একাডেমি অব সায়েন্সেস ইয়াং অ্যাফিলিয়েটস নেটওয়ার্কের ২০২২-২৭ মেয়াদে নির্বাহী বোর্ড সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

Check Also

ঈদের ছুটি শেষে বুধবার খুলছে অফিস

শেরপুর নিউজ ডেস্ক : ঈদুল আজহার ছুটি শেষে বুধবার (১৯ জুন) খুলছে সরকারি অফিস। গত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 − 11 =

Contact Us