Home / পড়াশোনা / যৌন নিপীড়ন বাড়ছে শিক্ষাঙ্গনে

যৌন নিপীড়ন বাড়ছে শিক্ষাঙ্গনে

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: নারীর প্রতি যৌন নিপীড়ন বা সহিংসতা বেড়েই চলছে। প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন নারী। অনেক ক্ষেত্রে নীরব থাকছেন, কখনোবা প্রতিবাদে ফুঁসেও উঠছেন। তবে এসব ঘটনায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শাস্তিমূলক ব্যবস্থায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করা যাচ্ছে না। এতে নারীর ভীতি যেমন বাড়ছে, বিপরীতে নিপীড়করা ভেতরে ভেতরে আরও উৎসাহিত হচ্ছেন। শিগগির যৌন নিপীড়নবিরোধী শক্তপোক্ত অবস্থান তৈরি করতে না পারলে এটি সামাজিক ব্যাধিতে রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে, সারাদেশে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসাসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে যৌন হয়রানির ঘটনা বেড়েছে। প্রাথমিক থেকে বিশ্ববিদ্যালয় স্তর পর্যন্ত- কোথাও থেমে নেই হয়রানি। দেড় দশক আগে উচ্চ আদালতের এক রায়ে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিছু ক্ষেত্রে কমিটি গঠন হয়েছে। তবে দীর্ঘদিনেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তার কার্যকারিতা রয়ে গেছে শুধু কাগজে কলমেই। নারীর প্রতি যৌন নির্যাতন ও হয়রানি প্রতিরোধে হাইকোর্টের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা কমিটিগুলোকে কার্যকর করে তোলা জরুরি বলে মনে করা হচ্ছে।

২০০৮ সালের ৭ আগস্ট বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সালমা আলী কর্মস্থল এবং শিক্ষাঙ্গনে নারী ও শিশুদের যৌন হয়রানি প্রতিরোধের জন্য দিকনির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে জনস্বার্থে একটি রিট করেন। শুনানি শেষে ২০০৯ সালের ১৪ মে রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ সব প্রতিষ্ঠানে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে অভিযোগ গ্রহণের জন্য ‘যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি’ গঠনসহ বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হয়।

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারী আত্মহত্যা করে। এ ঘটনায় করা মামলায় প্রতিষ্ঠানটির দুই শিক্ষিকা নাজনীন ফেরদৌস ও জিনাত আক্তারের বিরুদ্ধে রায় চতুর্থ দফায় পিছিয়েছে। আগামী ৩ জুন রায়ের নতুন তারিখ ধার্য রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, শুধু অরিত্রী নয়- স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসাপড়ুয়া এমন বহু শিক্ষার্থী রয়েছেন যারা হয়রানির শিকার। যাদের অনেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে একপর্যায়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। তাদের বিষয়ে দ্রুত ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া দরকার

এরপর দীর্ঘ সময়েও হাইকোর্টের নির্দেশনা পুরোপুরিভাবে বাস্তবায়ন করা হয়নি। অভিযোগ আছে, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হচ্ছে না। আবার কোথাও কোথাও নির্দেশনা অনুযায়ী কমিটি হলেও সেটি হয় একেবারেই দায়সারাভাবে, যা কার্যত অকার্যকরই থেকে যায়।

২০০৮ সালের ওই রায়ের পরপরই বহু পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়। তবে এসময়ের মধ্যে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনো যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে কি না, তার তথ্য সুনির্দিষ্ট করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। আবার কমিটি গঠন করা হলেও বেশিরভাগ শিক্ষার্থী- শিক্ষক এবং সংশ্লিষ্টরা এ প্রতিরোধ কমিটি সম্পর্কে জানেন না। শিক্ষাঙ্গনে যৌন হয়রানির ঘটনা পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, ছেলে শিক্ষার্থী ছাড়াও শিক্ষকরা এখন এসব ঘটনায় অভিযুক্ত হচ্ছেন।

যৌন নিপীড়ন বাড়ছে শিক্ষাঙ্গনে, কর্মস্থলে কেমন আছে নারী?বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের যৌন নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে

আবার ঘটনার পরপরই স্থানীয়ভাবে যৌন হয়রানির মতো ঘটনার মীমাংসা করা হচ্ছে। কখনো কখনো দু-একটি অভিযোগ জমা পড়লেও শিক্ষা কর্মকর্তারা তদন্ত করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে কমিটি থাকার কথা থাকলেও সেটি এখনো হয়নি।

হাইকোর্টের রায়ের ১৩ বছর পর ২০২১ সালে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়। পরের বছর ২০২২ সালে সব বিচারিক আদালতে এ কমিটি করতে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন থেকে চিঠি পাঠানো হয়। তবে, সব আদালতে কমিটি গঠন হয়েছে কি না, তার কোনো সঠিক তথ্য নেই কারও কাছে। অন্যদিকে, সরকারি-বেসরকারি অন্য সব কর্মক্ষেত্রেও যৌন হয়রানি রোধে কমিটি গঠনের তথ্যও অজানা। সবশেষ গত ৩১ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিতে (বার অ্যাসোসিয়েশনে) যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশনায় পাঁচ সদস্যের কমিটির কথা বলা হলেও বারের কমিটিতে তিনজন পুরুষ ও ছয়জন নারী নিয়ে নয়জন সদস্য রাখা হয়েছে।

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে রাজধানীর স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারী আত্মহত্যা করে। এ ঘটনায় করা মামলায় প্রতিষ্ঠানটির দুই শিক্ষিকা নাজনীন ফেরদৌস ও জিনাত আক্তারের বিরুদ্ধে রায় চতুর্থ দফায় পিছিয়েছে। আগামী ৩ জুন রায়ের নতুন তারিখ ধার্য রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, শুধু অরিত্রী নয়- স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসাপড়ুয়া এমন বহু শিক্ষার্থী রয়েছেন যারা হয়রানির শিকার। যাদের অনেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে একপর্যায়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। তাদের বিষয়ে দ্রুত ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।

Check Also

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক : শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০২৪-২৫ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণির ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ করেছে। নীতিমালা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + 7 =

Contact Us