Home / রাজনীতি / উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কঠোর অবস্থানে আওয়ামী লীগ

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কঠোর অবস্থানে আওয়ামী লীগ

শেরপুর ডেস্ক: অবশেষে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। দলীয় সিদ্ধান্ত লঙ্ঘন করে যারা উপজেলা নির্বাচনে বিতর্ক সৃষ্টি করবে, নিজেদের পছন্দের প্রার্থী দেবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। উল্লেখ্য যে, ইতোমধ্যে নির্বাচন কমিশন দুই দফায় উপজেলা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে। প্রথম দফার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৭ মে। এই নির্বাচনের আনুষ্ঠানিকতা ঈদের পরপরই শুরু হতে যাচ্ছে।

উপজেলা নির্বাচনের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ পাঁচটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং এই সিদ্ধান্তগুলো যেন মাঠ পর্যায়ে কঠোর ভাবে মানা হয় সে ব্যাপারেও সুনির্দিষ্ট দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাচনের ব্যাপারে যে পাঁচটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে;

১. দলীয় প্রতীক ব্যবহার করবে না: আওয়ামী লীগ উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রতীক ব্যবহার করবে না। দল থেকে কাউকে মনোনয়নও দেওয়া হবে না। কাজেই কেউ যেন দলীয় পরিচয় ব্যবহার না করে নির্বাচন করে- এ ব্যাপারে বার্তা দেওয়া হয়েছে। যারা দলীয় পরিচয় ব্যবহার করে নির্বাচন করবে, দলের পদ পদবী ব্যবহার করবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

২. কোনো মন্ত্রী, এমপি কারও পক্ষে বিপক্ষে প্রচারণা করতে পারবে না: উপজেলা নির্বাচন হবে সম্পূর্ণ নির্দলীয় চরিত্রে। আওয়ামী লীগের যার ইচ্ছা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন, তবে মন্ত্রী, এমপিরা তাদের মাইম্যান বা পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচনে দাঁড়ানোর জন্য প্ররোচিত করতে পারবেন না। কেউ যদি এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেন বা কোন পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন তাহলে সেক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

৩. দলের ভিতরের কোন্দল হানাহানি করা যাবে না: উপজেলা নির্বাচন হবে সম্পূর্ণ নির্দলীয় ভিত্তিতে। ফলে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীতা নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে কোন্দল সৃষ্টি করা যাবে না। দলের ভিতর বিভক্তি, অনৈক্য এবং সহিংসতা সৃষ্টি করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগের সহিংসতা যেন না হয় সে ব্যাপারটি কঠোর ভাবে দেখতে হবে বলে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ জানিয়ে দিয়েছে।

৪. প্রার্থীদের মধ্যে অঘোষিত ঐক্য: আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে যেন একটি অঘোষিত ঐক্য হয় সে ব্যাপারেও মাঠ পর্যায়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যেখানে যেখানে বিএনপি এবং জামায়াত বা অন্যান্য রাজনৈতিক দল শক্তিশালী সেখানে যেন আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী না দেয় সে ব্যাপারেও স্থানীয় পর্যায়ে উদ্যোগ গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচনে কোথাও কোথাও চারজন, কোথাও কোথাও পাঁচজন প্রার্থী মনোনয়ন দিচ্ছেন। এই প্রার্থিতা যেন কমানো হয় এবং অপেক্ষাকৃত প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ উপজেলাগুলোতে যেন একক প্রার্থী দেওয়া হয় তা নিশ্চিত করার জন্য বলা হয়েছে।

৫. কোন কারচুপি বা ভোটে অনিয়ম করা যাবে না: আওয়ামী লীগ নীতিগত ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, উপজেলা নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ। নির্বাচন কমিশনকে সব ধরনের সহযোগিতা দেবে। নির্বাচনে কোন ধরনের কারচুপিকে বরদাস্ত করা হবে না। আর এ কারণেই উপজেলা নির্বাচনে যদি কেউ কারচুপি করার চেষ্টা করে বা প্রভাব বিস্তার করতে চেষ্টা করে তাহলে দল থেকেই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আওয়ামী লীগ উপজেলা নির্বাচন চায় একটি অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনের মডেল হিসেবে দাঁড় করাতে যেখানে নির্বাচনে যারাই জিতুক না কেন সকলে এক বাক্যে বলবে যে, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হয়েছে।

Check Also

শেখ হাসিনার সততা বিশ্বে আজ প্রশংসনীয়-ওবায়দুল কাদের

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শেখ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 + 4 =

Contact Us