Home / দেশের খবর / ফুল ভাসিয়ে পাহাড়ে সামাজিক উৎসব শুরু

ফুল ভাসিয়ে পাহাড়ে সামাজিক উৎসব শুরু

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: নদীতে ফুল ভাসানোর মধ্য দিয়ে শুক্রবার (১২ এপ্রিল) পাহাড়ে শুরু হয়েছে সামাজিক উৎসব। তিন দিনব্যাপী এই আয়োজনের মধ্যে থাকছে ঐতিহ্যবাহী বিজু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু ও বিহু। এর মধ্যে আজ চলছে ফুল বিজু। বাংলা বছরের শেষ দুদিন ও নতুন বছরের প্রথম দিন এই উৎসব পালন করেন পাহাড়ে বসবাসরতরা উপজাতিরা।

পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের ১১ ভাষাভাষির ১৪টি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পাহাড়ি জাতিসত্ত্বার প্রধান সামাজিক উৎসব হচ্ছে বিজু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু ও বিহু। স্থানভেদে উৎসবের নামের উচ্চারণগত পার্থক্য থাকলেও এর নিবেদন অভিন্ন। তাই এ উৎসব পাহাড়িদের শুধু আনন্দের নয়, পার্বত্য চট্টগ্রামের সব সম্প্রদায়ের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, ঐক্য ও মৈত্রীর বন্ধনের প্রতীকও। মূলত পুরনো বছরের সব দুঃখ কষ্ট ও গ্লানিকে মুছে ফেলে দিয়ে নতুন বছরের নব উদ্যোগের শুভকামনা করা হয় এসব আচার-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। উৎসবের প্রথমদিন ফুল বিজু। দ্বিতীয় দিন শনিবার মূল বিজু। এ দিন বাড়িতে বাড়িতে চলে খাওয়া-দাওয়ার পর্ব ও আনন্দ আয়োজন। মূল বিজুতে পাহাড়িরা হৈ-চৈ করে ঘুরে বেড়ানো আর খাওয়া-দাওয়ার মধ্য দিয়ে পুরাতন বছরকে বিদায় জানায়। উৎসবের শেষ দিন গজ্যাপজ্যা বিজু। এ দিন ঘরে বসে বিশ্রাম নেওয়া ছাড়াও বৌদ্ধ মন্দিরে প্রার্থনা ও বয়োজ্যেষ্ঠদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে যত্নসহকারে খাওয়ানোসহ আশির্বাদ নেওয়া হয়। আবার মারমা সম্প্রদায় এদিন ঐতিহ্যবাহী পানি খেলার আয়োজন করে। তারা পানি খেলার মাধ্যমে পুরাতন বছরের সমস্ত গ্লানি ও দু:খ কষ্ট দূরে ঠেলে দেয় এবং আশা-আকাঙ্খা নিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে। ১৬ এপ্রিল রাঙামাটি মারী স্টেডিয়ামে মারমা সাংস্কৃতিক সংসদের উদ্যোগের পানি খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

ফুল বিজুর অংশ হিসেবে শুক্রবার সকালে বিজু-সাংগ্রাই-বৈসুক-বিষু-বিহু-সাংক্রান উদযাপন কমিটি রাঙামাটির উদ্যোগে রাজ বন বিহার পূর্ব ঘাট এলাকায় নদীতে ফুল ভাসানো হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আদিবাসী ফোরামের পার্বত্যাঞ্চল শাখার সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব ইন্টুমনি তালুকদারসহ অন্যরা।

এ ছাড়া শহর গর্জনতলিতে ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ফুল ভাসানো, বয়স্কোদের স্নান করানোসহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটির সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী ও ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের নেতারা।

অন্যদিকে, নানিয়ারচর উপজেলা বিজু উদযাপন কমিটির উদ্যোগে ফুল বিজু উপলক্ষে টিএন্ডটি এলাকা থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঘাট পর্ষন্ত শত শত নারী-পুরুষ ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে কলাপতায় ফুল নিয়ে বর্নাঢ্য শোভাযাত্রা বের করেন। পরে তরুণ-তরুণী থেকে সব বয়সীরা চেঙ্গী নদীতে গঙ্গা দেবীর উদ্দেশে ফুল ভাসান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রগতি চাকমা, ইউএনও এনামুল আহসান খান, সেনাবাহিনীর নানিয়ারচর জোনের ক্যাপ্টেন সাদমান সাবিক অন্টু, নানিয়ারচর ইউপি চেয়ারম্যান বাপ্পি চাকমা প্রমুখ।

Check Also

১০ হাজার বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য

শেরপুর নিউজডেস্ক: প্রায় ১১ হাজার বাংলাদেশি ছাত্র গত বছর ভ্রমণ কিংবা কাজের ভিসায় যুক্তরাজ্যে যান। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two + three =

Contact Us