Home / দেশের খবর / এশিয়ার সর্ববৃহৎ ঈদগাহ ময়দান দিনাজপুরের গোর-এ শহীদ

এশিয়ার সর্ববৃহৎ ঈদগাহ ময়দান দিনাজপুরের গোর-এ শহীদ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: ঈদের জামাতের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদগাহ মিনার ও মাঠ দিনাজপুর গোর-এ শহীদ। ধোয়া-মোছা ও রঙ করার মাধ্যমে সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির পাশাপাশি মুসল্লিদের সুষ্ঠুভাবে নামাজ আদায়ের লক্ষ্যে চলছে কাজ। মুসল্লিদের নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওয়াচ টাওয়ার, কাতারের জন্য চুন দিয়ে লাইন করার কাজও সম্পন্ন হয়েছে। প্রায় ২২ একর আয়তনের গোর-এ শহীদ বড় ময়দানের ৫২ গম্বুজের ঈদগাহ মিনারের সামনে হবে ঈদের জামাত।

বৃহৎ মাঠে একত্রিত হতে অনেক মুসল্লিই মাঠ দেখতে আসছেন। মুসল্লিদের বিশ্বাস, বড় জামাতে নামাজ আদায় করলে বেশি সওয়াব হয়। তাইতো শুধু জেলাতেই নয়, আশেপাশের জেলাগুলো থেকেও আসবেন মুসল্লিরা। এজন্য দুটি ঈদ স্পেশাল ট্রেনেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেগুলোর একটি পার্বতীপুর থেকে আসবে এবং অপরটি আসবে ঠাকুরগাঁও থেকে। মুসল্লিদের নামাজ আদায় শেষে ওই ট্রেনে করেই তাদেরকে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়া হবে।

পুরো ইদগাহজুড়ে চার স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থায় পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার ও স্বেচ্ছাসেবকরা দায়িত্ব পালন করবেন। সকাল ৭টা থেকে মুসুল্লিরা মাঠের প্রবেশ পথ দিয়ে আসবেন। মোট ১৭টি গেট মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে শুধুমাত্র জায়নামাজ ও ছাতা নিয়ে প্রবেশ করবেন মুসুল্লিরা। থাকবে পর্যবেক্ষণ টাওয়ার। পুরো মাঠটি সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হবে। এছাড়াও ড্রোনের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হবে পুরো মাঠ। ইতিমধ্যেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের কার্যক্রম শুরু করে দিয়েছেন।
মুসল্লিদের জন্য মাঠের এক পাশে থাকবে স্বাস্থ্য ক্যাম্প, মিনারের পেছনে ওযুখানা এবং পানি খাবার ব্যবস্থা রাখা হবে।

দিনাজপুর পুলিশ সুপার শাহ্ ইফতেখার আহমেদ জানান, মুসল্লিদের যথাযথ নিরাপত্তা দিতে মাঠে কাজ করছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। মাঠে পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোষাকেও গোয়েন্দা নজরদারি থাকবে। প্রতিটি কাতারেই সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা থাকবেন। পুলিশের পাশাপাশি মাঠে র‌্যাব, বিজিবি, এনএসআই, ডিজিএফআই, ডিএসবিসহ সব গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা মোতায়েন থাকবেন। র‌্যাব ও বিজিবির টহলও থাকবে। মাঠের বাইরে ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।
ইতিমধ্যেই গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা কার্যক্রম চালাচ্ছেন। যাতে করে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির তৈরি না হয় সেজন্য সব প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। সিসি ক্যামেরা ও ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে মাঠটি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। একইসঙ্গে ড্রোনের মাধ্যমেও মাঠটি পর্যবেক্ষণ করা হবে। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয়, সেজন্য পুলিশ সার্বক্ষণিক তৎপর রয়েছেন।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক শাকিল আহমেদ বলেন, আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। এবারে আগেভাগে ময়দান প্রস্তুতের কাজ শুরু করা হয়েছে। ওজুর জন্য পানি, কাতারের ব্যবস্থা এবং প্রবেশদ্বারের কাজ সম্পন্ন হয়ে গেছে। পুলিশের জন্য অস্থায়ী ক্যাম্প করা হয়েছে। সব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, শান্তিপূর্ণভাবেই মুসল্লিরা এখানে ঈদের নামাজ আদায় করতে পারবেন এবং নামাজ শেষে নির্বিঘ্নে বাড়িতে ফিরতে পারবেন।

সবচেয়ে বড় এই ঈদগাহ ময়দান ও মিনারের মূল পরিকল্পনাকারী ও প্রধান উপদেষ্টা জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। প্রচার-প্রচারণা ও নিরাপত্তা আগেভাগেই জোরদার করা হয়েছে। দিনাজপুর ছাড়াও বিভিন্ন জেলার মুসল্লিরা যাতে অংশগ্রহণ করতে পারেন, এজন্য দুটি স্পেশাল ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে করে সব মুসল্লি একসঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করতে পারেন, সেজন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

গোড়-এ শহীদ বড় ময়দান ঈদগাহ মিনার দেখতে এসেছেন বিরলের পলাশবাড়ী এলাকার মমিনুল ইসলাম। তিনি বলেন, মাঠটি দেখতে এলাম কি রকম প্রস্তুতি রয়েছে। ঈদের দিনে নামাজ পড়তে আসবো, তাই দেখতে এলাম। বড় জামাতে নামাজ পড়লে বেশি সওয়াব পাওয়া যায়। আর এই মাঠ তো এখন আমাদের গর্ব।

শহরের উপশহর ৩ নম্বর ব্লকের সিরাজুল ইসলাম বলেন, এই মাঠে নামাজ পড়েছি। অনেক আনন্দ লাগে। অনেক দূর-দূরান্ত থেকে আত্মীয়-স্বজনকে সঙ্গে নিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করি। খুব ভালো লাগে। আমরা চাই, যাতে বিগত বছরগুলোর মত শান্তিপূর্ণভাবেই আমরা ঈদের নামাজ আদায় করে সুষ্ঠুভাবে বাড়ি ফিরতে পারি।

শহরের সুইহারী এলাকার রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছর এখানে অনেক মানুষ একসঙ্গে নামাজ আদায় করি। ভালই লাগে। বন্ধু-বান্ধব মিলে এখানে নামাজ আদায় করতে আসি।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গোর-এ শহীদ বড় ময়দানের আয়তন প্রায় ২২ একর। ২০১৭ সালে নির্মিত ৫২ গম্বুজের ঈদগাহ মিনার তৈরিতে খরচ হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। ঈদগাহ মাঠটি ঐতিহাসিক নিদর্শন ও মনোরম সৌন্দর্য ও নান্দনিক হিসেবে নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। এই ৫০ গম্বুজের দুই ধারে ৬০ ফুট করে দুইটি মিনার, মাঝের দুটি মিনার ৫০ ফুট করে। ঈদগাহ মাঠের মিনারের প্রথম গম্বুজ অর্থাৎ মেহেরাব (যেখানে ইমাম দাড়াবেন) তার উচ্চতা ৪৭ ফিট। এর সঙ্গে রয়েছে আরও ৪৯টি গম্বুজ। এছাড়া ৫১৬ ফিট লম্বায় ৩২টি আর্চ নির্মাণ করা হয়েছে। উপমহাদেশে এত বড় ঈদগাহ মাঠ দ্বিতীয়টি নেই। পুরো মিনার সিরামিক দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি গম্বুজ ও মিনারে রয়েছে বৈদ্যুতিক লাইটিং। রাত হলে ঈদগাহ মিনার আলোকিত হয়ে উঠে। ২০১৭ সাল থেকেই প্রতিবারে এখানে ঈদের নামাজ আদায় করছেন দিনাজপুর জেলাসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলা-উপজেলার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। তবে করোনার প্রকোপের ফলে গত দুই বছরে এই মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি। করোনার প্রকোপ কমে যাওয়ার পর আবারও পরিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঈদের জামাত।

 

Check Also

১০ হাজার বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য

শেরপুর নিউজডেস্ক: প্রায় ১১ হাজার বাংলাদেশি ছাত্র গত বছর ভ্রমণ কিংবা কাজের ভিসায় যুক্তরাজ্যে যান। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen + 7 =

Contact Us