সর্বশেষ সংবাদ
Home / দেশের খবর / কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন ভুটানের রাজার

কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন ভুটানের রাজার

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: কুড়িগ্রামে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য নির্ধারিত স্থান ও সোনাহাট স্থলবন্দর এলাকা পরিদর্শন করলেন ভুটানের রাজা জিগমে খেসার ওয়াংচুক। বৃহস্পতিবার তিনি সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে দুপুর সাড়ে ১২টায় কুড়িগ্রাম সার্কিট হাউসে এসে পৌঁছান। সেখানে বিশ্রাম ও দুপুরের খাবারের পর জেলা শহরের কাছে ধরলা ব্রিজ-পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত প্রস্তাবিত ভুটান বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন করেন। সেখানে তিনি প্রায় ২০ মিনিট অবস্থান করে সবকিছু দেখেন এবং তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেন। পরে রাজা স্থান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এ ছাড়া তিনি ইকোনমিক জোন এলাকায় অ্যাগ্রোবেজড ও ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিজ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আভাস দিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, ভুটানের বিনিয়োগকারী এবং বাংলাদেশের স্থানীয়দের চাহিদার ওপর নির্ভর করবে কী ধরনের শিল্পকারখানা স্থাপন করা হবে। পরে জোন এলাকায় তিনি ১টা ৪০ মিনিটে সোনাহাট স্থলবন্দরের উদ্দেশে সফরকারী দলসহ সড়কপথে যাত্রা শুরু করেন।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী এম এ আরাফাত, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সংসদ সদস্য ডা. হামিদুল হক খন্দকার, সংসদ সদস্য বিপ্লব হাসান পলাশ, বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরিফ ও পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বেলা পৌনে ৩টার দিকে রাজা জিগমে খেসার ওয়াংচুক সোনাহাট স্থলবন্দর এলাকায় যান। সেখানে ২০ মিনিট অবস্থানের পর তিনি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের আসাম রাজ্যের গোলকগঞ্জ দিয়ে ভুটানের উদ্দেশে ভারতে প্রবেশ করেন। সোনাহাট থেকে সড়কপথে ভুটানের দূরত্ব প্রায় ১৬০ কিলোমিটার।

রাজার সফর শেষে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন পরে সাংবাদিকদের জানান, তিনি শতভাগ সন্তুষ্ট, জায়গা ও যোগাযোগ ব্যবস্থা দেখেছেন। এখানে কী ধরনের কার্যক্রম হতে পারে সে বিষয়ে রাজা জানিয়েছেন, এখানকার স্থানীয় লোকজনের কী ধরনের চাহিদা রয়েছে এবং ভুটানের বিনিয়োগকারী লোকজনের কী চাহিদা রয়েছে সবকিছু মিলিয়ে ফিজিবিলিটি স্টাডি চেক করা হচ্ছে। তার ওপর ভিত্তি করে এখানে কী ধরনের ইন্ডাস্ট্রিজ হবে, তা নির্ধারণ করা হবে। তবে অ্যাগ্রোবেজড ও ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিজ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রায় ১০-২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে।

কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য ডা. হামিদুল ইসলাম বলেন, ‘এই সফরের মধ্যদিয়ে অনুন্নত কুড়িগ্রাম উন্নয়নের দিকে ধাবিত হবে। ২০১৬ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক জোনের জন্য জায়গা খুঁজতে বলেছিলেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ আমরা সফলতার মুখ দেখছি। এটি বাস্তবায়ন হলে এলাকার বেকার মানুষ কাজ পাবে। সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে পিছিয়ে পড়া এই জেলা।’

Check Also

স্বামীর পুরুষাঙ্গ কে‌টে পালালেন স্ত্রী

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ঘুমন্ত স্বামীর গোপনাঙ্গ কেটে শিশু সন্তান রেখেই পালিয়েছেন স্ত্রী জাকিয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − 3 =

Contact Us