Home / দেশের খবর / আগামী সপ্তাহেই উপজেলা নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ তফসিল

আগামী সপ্তাহেই উপজেলা নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ তফসিল

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: আসন্ন উপজেলা নির্বাচন সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক করতে সরকার ও নির্বাচন কমিশন তৎপর। বিশেষ করে এ নির্বাচনে যেন যে কোনো প্রার্থী নির্বিঘ্নে অংশ নিতে পারে সে জন্য আইনের বিধিও সংশোধন করা হচ্ছে। এর ফলে এ নির্বাচনে সুযোগ বাড়ছে প্রার্থীদের। নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, আগে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালায় স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষে ২৫০ ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর জমা দেওয়ার বিধান ছিল। কিন্তু প্রার্থীদের নির্বাচন সহজ করতে এ বিধান তুলে দিতে নির্বাচন কমিশন (ইসি) আইনমন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছে। আইন মন্ত্রণালয়ও ইসির এ প্রস্তাবে সায় দিয়েছে। তাই এখন অন্যান্য প্রক্রিয়া শেষে প্রজ্ঞাপন জারি হলেই বিষয়টি কার্যকর হবে।

নির্বাচন কমিশনের এক কর্মকর্তা জানান, নির্বাচন পদ্ধতিকে আরও সহজ ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করতে ইসি বেশ ক’টি প্রস্তাব সম্প্রতি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। আইন মন্ত্রণালয় থেকে সেগুলো ভেটিং হয়ে এসেছে। এখন সেগুলো আবার দেখে আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। তার পর প্রজ্ঞাপন জারি হবে।

উল্লেখ্য, আগে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ২৫০ জন ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর জমা দেওয়ার বিধান ছিল। এতে কোনো ভোটারের স্বাক্ষর না মিললে বা নির্ধারিত ঠিকানায় ওই ভোটারকে না পাওয়া গেলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যেত। আবার কেউ কেউ এলাকার ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী প্রার্থীর ভয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে সমর্থনসূচক স্বাক্ষর দিতে চাইতেন না। এ কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থী সংখ্যা কম হতো। কিন্তু এবার আর সে সমস্যা থাকছে না।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ দলীয় ফোরামে সিদ্ধান্ত নিয়ে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কাউকে দলীয় প্রতীক না দেওয়ায় সিদ্ধান্ত নেওয়ায় প্রতিটি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সংখ্যা স্বাভাবিকভাবেই বেড়েছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা যেমন আগের চেয়ে বেশি হারে স্বতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন তেমনি অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও দলনিরপেক্ষ প্রার্থীরাও বেশি নির্বাচন করছেন।

উল্লেখ্য, দেশে এখন ৬৪ জেলায় ৪৯৫টি উপজেলা রয়েছে। এর মধ্যে ৪, ১১, ১৮ ও ২৫ মে চার ধাপে দেশের ৪৮১টি উপজেলা পরিষদের ভোট গ্রহণ করবে ইসি। অবশিষ্টগুলোয় পরবর্তীতে ভোটগ্রহণ করা হবে। আগামী সপ্তাহেই নির্বাচন কমিশন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ তফসিল ঘোষণা করতে পারে।

এদিকে কিছু উপজেলায় ইভিএমে ভোট করার সম্ভাবনা থাকলেও অধিকাংশ উপজেলায় ভোট হবে ব্যালট পেপারে। এ কারণে নির্বাচন সামনে রেখে ব্যালট পেপার ছাপানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রের তালিকাও ২৫ মার্চের মধ্যে চূড়ান্ত করার নির্দেশ দিয়েছে ইসি।

ইসির আংশিক তফসিল অনুসারে ৪ মে প্রথম ধাপে ১৫৩টি, ১১ মে দ্বিতীয় ধাপে ১৬৫টি, ১৮ মে তৃতীয় ধাপে ১১১টি ও ২৫ মে চতুর্থ ধাপে ৫২টি উপজেলার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কোন উপজেলায় কবে নির্বাচন হবে তা আগেই সংশ্লিষ্ট উপজেলাগুলোকে জানিয়ে দিয়েছে ইসি।

অভিজ্ঞ মহলের মতে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলো সর্বজনীন। এসব নির্বাচনে দলীয় ইমেজ তেমন কাজে আসে না। কারণ, প্রতিটি এলাকার অধিকাংশ মানুষই চান দল-মত নির্বিশেষে সবচেয়ে ভালো প্রার্থীকে বিজয়ী করতে। তবে দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলে এলাকাবাসী বিভিন্ন কারণে পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে সরব হতে চান না। তবে এবারের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। ক্ষমতাসীন দল কাউকে দলীয় প্রতীক না দেওয়ার আগাম ঘোষণা দেওয়ায় অনেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যে কারণে এবার আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে ভিন্ন মাত্রায়।

নির্বাচন পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ উপজেলা নির্বাচনে কাউকে নৌকা প্রতীক না দিলে বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোও দলীয় প্রতীক ছাড়া নির্বাচনের বিষয়ে উৎসাহী হবে। এর ফলে রাজনীতি করে না প্রতিটি এলাকার এমন প্রার্থীরাও নির্বাচন করতে এগিয়ে আসবেন। এ পরিস্থিতিতে নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক ও উৎসবমুখর হবে। জনমতের সঠিক প্রতিফলন ঘটবে। এর ফলে দেশে রাজনীতি ও সমাজে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। নির্বাচন নিয়ে দেশবাসীর মধ্যে ফিরে আসবে স্বস্তি। সেইসঙ্গে গণতন্ত্রের ভিত্তিও আরও শক্তিশালী হবে।

ইসি সূত্র জানায়, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ছোটখাটো ভুলত্রুটি সংশোধন করে এবার উপজেলা নির্বাচনে সুষ্ঠু ভোটের চ্যালেঞ্জ নিয়ে কঠোর অবস্থানে থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি জোরদার করছে নির্বাচন কমিশন। এমন মেসেজ পেয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নিজ নিজ এলাকায় গণসংযোগ জোরদার করেছেন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো উপজেলা নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও বেশি তৎপর। তবে দলের পদে থাকা নেতারা দলীয় কর্মীদের পাশাপাশি নিজ নিজ এলাকার সর্বস্তরের মানুষের মন জয়ের চেষ্টা করছেন।

প্রসঙ্গত, ৯ মার্চ কুমিল্লা ও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনসহ ২৩৩টি স্থানীয় সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে। আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দল উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিলেও বিএনপি এখনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি। তবে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের উপনির্বাচনে অংশ নিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা মনিরুল হক চৌধুরী সাক্কুসহ দলটির দুইজন নেতা। তাদের পক্ষে বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরাও কাজ করেছেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল ইতোমধ্যেই জানিয়েছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ভালো হবে। শুনতে পাচ্ছি আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক দেওয়া হবে না। এটা ভালো সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজনৈতিক দলগুলো। তিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দলের বাইরে স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ভোট করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, এবার উপজেলা নির্বাচনে নিঃসন্দেহে ভোটার উপস্থিতি ভালো হবে। এ নির্বাচনে প্রার্থীদের সঙ্গে ভোটারদের যোগাযোগ বেশি থাকে। সম্পর্কের বিষয় থাকে। তাই এই নির্বাচনে মানুষ ভোট দেওয়ার জন্য উম্মুখ হয়ে থাকে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সব নেতাদের জন্য নির্বাচনে অংশ নেওয়া উন্মুক্ত রাখায় রেকর্ড সংখ্যক ৬২ আসনে বিজয়ী হয় স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এর পর নির্বাচন কমিশন উপজেলা পরিষদসহ বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করার পর বিভিন্ন মহল থেকে দলীয় প্রতীকবিহীন নির্বাচনের দাবি ওঠে। আওয়ামী লীগের কোনো কোনো নেতাও এমন দাবি করেন। এ পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সভায় সকল স্থানীয় সরকার নির্বাচন প্রতীক ছাড়া করার সিদ্ধান্ত হয়। দলটির এ সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক বলে মন্তব্য করে বিভিন্ন মহল।

২০১৫ সালে স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন সংশোধন করে দলীয় প্রতীকে ভোটের বিষয়টি যুক্ত করা হয়। আর ২০১৭ সালের মার্চে প্রথমবার তিন উপজেলায় দলীয় প্রতীকে ভোট হয়। তবে ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান পদ বাদে বাকি দুটি পদ উন্মুক্ত রাখে। তবে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় আওয়ামী লীগ। রাজপথের বিরোধী দল বিএনপিসহ আরও কিছু দল দলীয় প্রতীকে নির্বাচনের বিরোধিতা করে আসছে আইন সংশোধনের পর থেকেই। তাই ক্ষমতাসীন দল দলীয় প্রতীক ছাড়া নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি বিএনপির জন্য নৈতিক জয় বলে দলটির নেতাকর্মীরা মনে করছেন। দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকেই নানামুখী সমস্যা দেখা দেয়। যে কারণে বিএনপির পাশাপাশি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে নেতাকর্মীরা বিচ্ছিন্নভাবে দলীয় প্রতীক ছাড়া স্থানীয় সরকার নির্বাচনের দাবি তুলে।

স্থানীয় সরকার নির্বাচনের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। কারণ, দেশের সব উপজেলায় একজন চেয়ারম্যান ও ২ জন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয় এ নির্বাচনে। উপজেলাভিত্তিক সব উন্নয়ন কর্মকা- তাদের মাধ্যমেই হয়ে থাকে। তাই রাজনৈতিক দলগুলোও এ নির্বাচনকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

Check Also

বন্ধ থাকবে ১ ঘণ্টা ইন্টারনেট সেবা

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: কুয়াকাটায় স্থাপিত দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের (সি-মি-উই-৫) রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য বৃহস্পতিবার (১৮ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 3 =

Contact Us