Home / অর্থনীতি / বৈদেশিক ঋণ ছাড়ে গতি বাড়ানোর উদ্যোগ

বৈদেশিক ঋণ ছাড়ে গতি বাড়ানোর উদ্যোগ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বৈদেশিক ঋণ ছাড়ের গতি বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বৈদেশিক অর্থায়নের প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করে বৈদেশিক তহবিল ছাড়ে গতি বাড়াতে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিবকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব বহুপক্ষীয় ঋণদাতাদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়ে ঋণ ছাড়ের পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

বর্তমানে চার হাজার কোটি ডলারেরও বেশি বিদেশী তহবিল নিষ্ক্রিয় অবস্থায় বা পাইপলাইনে পড়ে আছে। যা দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের দুইগুণেরও বেশি। অথচ আমদানিকারকদের মার্কিন ডলারের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে সরকার।

পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, গত ৬ মার্চ মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব তোফাজ্জেল হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদে (এনইসি) অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিদেশী অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পের জন্য তহবিল ছাড় ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ ও এ সম্পর্কিত নির্দেশিকা আলোচনা করা হয়। সভায় পরিকল্পনা ও অর্থ বিভাগ, ইআরডি, এবং বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) সচিবেরা বৈদেশিক অর্থায়নের প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন।

পরিকল্পনা কমিশন এবং ইআরডি কর্মকর্তারা বলেছেন, অনেক ক্ষেত্রে বিদেশী অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পের জন্য দরপত্র প্রক্রিয়াসহ বিভিন্ন পর্যায়ে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে বারবার সম্মতির প্রয়োজন হয়। কোনো কোনো নথিতে সম্মতি আদায়ে ছয় মাস থেকে এক বছরও সময় পার হয়ে যায়।

উন্নয়ন অংশীদারদের সম্মতি জটিলতার কারণে কিছু প্রকল্পের অনুমোদিত পাঁচবছরের মেয়াদও শেষ হয়ে যাওয়ার উদাহরণও রয়েছে। এটি বৈদেশিক অর্থনৈতিক প্রকল্পে অর্থছাড় না হওয়ার বা ধীরগতিতে অর্থছাড়ের অন্যতম প্রধান কারণ বলে উল্লেখ করেন কর্মকর্তারা।

উদাহরণ হিসাবে রেলওয়ের ঢাকা-খুলনা ও খুলনা-চিলাহাটি করিডোরে সক্ষমতা বাড়াতে খুলনা-দর্শনা রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের উদাহরণ দেওয়া হয়। প্রকল্পের আওতায় আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক মালামাল পরিবহনের জন্য ব্রডগেজ কনটেনার চালু করার লক্ষ্যে মোট ১২৬ দশমিক ২৫ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হবে। এ প্রকল্পে ভারত ৩১ কোটি ২৪ লাখ ৮০ হাজার ডলার ঋণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কিন্তু গত নভেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পটিতে ছাড় হয়েছে কেবল তিন লাখ ২০ হাজার ডলার।

প্রকল্প পরিচালক মনিরুল ইসলাম ফিরোজী বলেন, প্রাথমিকভাবে অনুমোদিত প্রস্তাব অনুযায়ী ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের লক্ষ্য ছিল। তবে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদন প্রক্রিয়া বিভিন্ন পর্যায়ে বিলম্বিত হয়েছে। ভারতীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের নিয়োগের নথির জন্য কেবল ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সম্মতি আদায়ে সাড়ে তিন বছরেরও বেশি সময় লেগেছে।

আবার এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের (এআইআইবি) মতো উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাগুলোর বাংলাদেশে কোনো অফিস নেই। সেক্ষেত্রে সম্মতি আদায়ে আরও বেশি বিলম্ব হয়। গত নভেম্বরে ইআরডির একটি প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেওয়া হয়, এআইআইবি-এর আঞ্চলিক অফিস না থাকার কারণে প্রকল্পের তহবিল ছাড়ে বেশি সময় লাগে। এসব জটিলতায় কারণে এআইআইবি’র অর্থায়নে ১৩টি প্রকল্প ধীরগতিতে বাস্তবায়ন হচ্ছে। এসব প্রকল্পে ২০৭ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এআইআইবি। এর মধ্যে গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অর্থছাড় হয়েছিল মাত্র ২২ শতাংশ বা ৪৫ কোটি ৮৪ লাখ ৫০ হাজার ডলার।

ইআরডি কর্মকর্তারা বলছেন, বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) এবং চীনসহ প্রায় সব উন্নয়ন অংশীদারের ক্ষেত্রেই পরিস্থিতি এমন।

বৈঠক বিদেশী অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা করে একগুচ্ছ নির্দেশনা দেয়া হয়। নির্দেশাগুলোর মধ্যে রয়েছে- উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদনের পরপরই প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ, অর্থবছরের শুরুতে সঠিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ, সময় ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, অনলাইনে প্রকল্প প্রস্তাব প্রেরণ, উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে আলোচনা করে অর্থছাড় দ্রুততর করা ইত্যাদি। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিবকে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা বলছেন, অর্থবছরের শুরুতে সঠিক কর্ম পরিকল্পনা থাকতে হবে। সময়ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে। উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদনের পরপরই প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ দিতেও ইআরডি সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিদেশী অর্থায়নে পরিচালিত প্রকল্পগুলোর অনুমোদন প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করতে অনলাইনে প্রকল্প প্রস্তাব পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সচিব) মোহাম্মদ এমদাদ উল্লাহ মিয়া বলেন, এ বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য হলো বাজেটে বৈদেশিক সাহায্য খাত থেকে দেওয়া বরাদ্দ সঠিকভাবে ব্যবহার নিশ্চিত করা। ঋণ নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা না হলে আমাদের উন্নয়নও হবে না, আবার অর্থনৈতিকভাবে দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হব। তাই অর্থছাড় দ্রুত করতে ইআরডির মাধ্যমে উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, আগামী দেড় থেকে দুই মাসের মধ্যে কমিটির দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে অন্যান্য বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। উল্লেখ্য, গত ২৪ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে পরিকল্পনা কমিশনের বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই উচ্চ পর্যায়ের এ কমিটি গঠন করা হয়।

সভায় উপস্থাপিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে বৈদেশিক ঋণের ওপেনিং পাইপলাইনের আকার ছিল ৪ হাজার ৩৮৩ কোটি ৬০ লাখ ডলার। এ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে ৪৩৯ কেটি ৮০ লাখ ডলার বৈদেশিক সহায়তা ছাড় করা হয়েছে, যা পাইপলাইনে থাকা তহবিলের মাত্র ১০ শতাংশ।

সভায় উপস্থাপিত এক প্রতিবেদনে বৈদেশিক ঋণের ব্যবহার সংক্রান্ত বেশকিছু চ্যালেঞ্জ চিহ্নিত করা হয়েছে। এতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, দরপত্র প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রতার কারণে বিদেশী ঋণ সময়মতো ব্যবহার করা যায় না।

পরিকল্পনা কমিশনের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) ৯৪ হাজার কোটি টাকার বৈদেশিক সহায়তা ব্যবহারের লক্ষ্য ছিল। জানুয়ারি পর্যন্ত বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দের মাত্র ৩৪ দশমিক ২২ শতাংশ ব্যবহার করা সম্ভব হয়েছে। অথচ ২০২২-২৩ এবং ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি মাসে বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দের ব্যবহার ছিল যথাক্রমে ৩৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ এবং ৩৭ দশমিক ১৭ শতাংশ। তাই চলতি অর্থবছরের প্রস্তাবিত সংশোধিত এডিপিতে বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দ ১১ দশমিক ১৭ শতাংশ কমিয়ে ৮৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা করা হয়েছে।

Check Also

রাজস্ব ফাঁকি ঠেকাতে ক্যাশলেস পদ্ধতিতে যাচ্ছে এনবিআর

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: কাস্টমস, ভ্যাট ও ট্যাক্সের অর্থ ই-পেমেন্ট ব্যবস্থায় নিয়ে যেতে করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 + ten =

Contact Us