সর্বশেষ সংবাদ
Home / উন্নয়ন / জনপ্রশাসনে দক্ষ নারী কর্মকর্তা বাড়ছে

জনপ্রশাসনে দক্ষ নারী কর্মকর্তা বাড়ছে

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: জনপ্রশাসনে, পুলিশ ও বিচার বিভাগে সরকারি চাকরিতে নারীদের অবস্থান দিন দিন আরও সংহত হচ্ছে। মাঠ প্রশাসনে দক্ষতার সঙ্গে নারীরা তৃণমূলে যেমন কাজ করছেন, তেমনি রয়েছেন প্রশাসনের শীর্ষ পদেও।

শুধু মাঠ প্রশাসনে নয়, এখন প্রশাসনের নানা স্তরে নারীর অবস্থান বাড়ছে, সুসংহত হচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, সরকারের নানামুখী উদ্যোগের পাশাপাশি মানুষের সচতেনতাও এ ক্ষেত্রে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে।

নারীদের জন্য কর্মপরিবেশও ভালো হয়েছে, তবে এখনো বেশ ঘাটতি আছে। এ জন্য কর্মপরিবেশ আরও উন্নত করা দরকার বলে মনে করেন নারী কর্মকর্তারা। তারা বলছেন, বিশেষ করে চাকরিজীবী মা-বাবার কথা বিবেচনা করে কর্মক্ষেত্রে উন্নত মানের ডে-কেয়ার আরো বৃদ্ধি করা উচিত। এ ছাড়া নারীর জন্য উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থা, পুরুষদের প্রথাগত মানসিকতা পরিবর্তনে সচেতনতা তৈরিসহ আরও কিছু কাজ করলে কর্মক্ষেত্রে নারীর অবস্থান আরও সুসংহত হবে। প্রশাসনে নারীর অবস্থান বাড়লে তা নানা ক্ষেত্রেই ইতিবাচক ফল নিয়ে আসবে বলে মনে করছেন নারী কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন সমকালকে বলেন, বর্তমান সরকার নারীবান্ধব। নারীর কর্মপরিবেশ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়ায় আজ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে শুরু করে বিভিন্ন পদে নারীরা নেতৃত্বে আছেন। ধীরে ধীরে বাড়ানো হচ্ছে। তিনি আশা করেন, আগামীতে প্রশাসনে নারীর অবস্থান আরও উচ্চমাত্রায় যাবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, বর্তমানে সারা দেশে সরকারি চাকরিজীবী আছেন ১৫ লাখ ৫৪ হাজার ৯২৭ জন। এর মধ্যে ৪ লাখ ৪ হাজার ৫৯১ নারী। প্রথম শ্রেণিতে (এখন গ্রেড ভিত্তিতে চাকরি নির্ধারণ হলেও মুখে মুখে শ্রেণি বলা হয়) মোট চাকরিজীবী আছেন ১ লাখ ৯৫ হাজার ৬৭৯ জন। এর মধ্যে নারী ৩৯ হাজার ৭৮৭ জন। সব মিলে প্রশাসনে ১ হাজার ৫শত ৫০জন নারী কর্মকর্তারা রয়েছে।

বর্তমানে প্রশাসনে মোট ৮৬ জন সচিব আছেন। এর মধ্যে নারী সচিব ১০ জন। শিল্প ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরগুলোর শীর্ষ পদ নারী কর্মকর্তারা সামলাচ্ছেন। তারা হলেন- শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা, কৃষিসচিব ওয়াহিদা আক্তার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভােেগর সিনিয়র সচিব মোসাম্মৎ হামিদা বেগম, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব শাহনাজ আরেফিন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফারহিনা আহমেদ,জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব নাসরীন আফরোজ, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারেক, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ইসরাত চৌধুরী, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) রেহানা পারভীন এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব খোরশেদা ইয়াসমিন এনডিসি।

অবশ্য সচিব পদে নারীর সংখ্যাটি বেশ কয়েক বছর ধরেই দশের ঘরেই আটকে আছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ, পদোন্নতি ও প্রেষণ (এপিডি) শাখার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ৩২৭ অতিরিক্ত সচিবের মধ্যে ৫৫ জন নারী, ৮৫৮ যুগ্ম সচিবের মধ্যে ১৮৬ নারী, ১ হাজার ৭০৪ উপসচিবের মধ্যে ৩৯৫ নারী, ১ হাজার ৮৬৭ জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব ও জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনারের মধ্যে নারী ৬৪১ জন। এ ছাড়া ১ হাজার ৪৪২ সহকারী কমিশনার বা সহকারী সচিবের মধ্যে নারী ২৫০ জন।

মাঠ প্রশাসন সামলাচ্ছেন ৭ জন নারী ডিসি: বর্তমানে ৬৪ জেলা প্রশাসকের মধ্যে ৭ জন নারী। এর মধ্যে রংপুর বিভাগের গাইবান্ধা জেলার প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, কাজী নাহিদ রসুল। ঢাকা বিভাগে মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রেহেনা আকতার, সিলেট বিভাগে মৌলভীবাজারে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ড. উর্মি বিনতে সালাম, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. জিলুফা সুলবরিশাল বিভাগের ঝালকাঠি জেলার জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ফারাহ্ গুল নিঝুম, চট্টগ্রাম বিভাগে ফেনি জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মুছাম্মৎ শাহীনা আক্তার এবং লক্ষীপুর জেলার জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া জাহান।

এ বিষয়ে গাইবান্ধা জেলার প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী নাহিদ রসুল সমকালকে বলেন, একজন নারীকে নিজেকেই প্রমাণ করতে হয়,তিনি সে পদের যোগ্য কি না। তবে ধীরে ধীরে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির ইতিবাচক পরিবর্তন হচ্ছে। মানুষ ইতিবাচকভাবে নিচ্ছে। ভবিষ্যতে হয়তো আরও পরিবর্তন হবে।

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. জিলুফা সুলতানা চাকরি জীবনে ওই প্রথম ডিসি হিসেবে কাজ করছেন। তার মতে, এখন নারীরা চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করেন। দুই বছরের দায়িত্ব পালনকালে এখন পর্যন্ত তিনি বড় কোনো সমস্যায় পড়েননি। নারী ডিসিদের কাছে মানুষ সহজেই আসতে পারেন। বিশেষ করে অনেক সমস্যা নারীকেন্দ্রিক হওয়ায় তাঁরা খুব সহজেই তাঁকে বলতে পারেন। তবে ডিসিদের মধ্যে নারীর সংখ্যা আরও বেশি হওয়া উচিত।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এপিডি শাখার তথ্যমতে, এখন সারা দেশে ৪৯২ ইউএনওর মধ্যে ১৬০ জন নারী। দায়িত্বরত ইউএনওদের মধ্যে এই হার ৩৪ শতাংশ। উপজেলা প্রশাসনে ইউএনও পদই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, তাঁরাই উপজেলায় সরাসরি সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। তাঁরা উপজেলার অন্য সরকারি দপ্তরগুলোর কাজে সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করেন। এ ছাড়া সারা দেশে ভূমিসংক্রান্ত দপ্তর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আছেন ১৩৬ নারী।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, বর্তমান সরকার নারীবান্ধব। নারীর কর্মপরিবেশ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়ায় আজ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে শুরু করে বিভিন্ন পদে নারীরা নেতৃত্বে আছেন। এটি এক দিনে হয়নি। ধীরে ধীরে হয়েছে। তাঁরাও বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছেন।

সরকারি কর্মচারী ব্যবস্থাপনা পদ্ধতিতে জি ইএমএস’এর প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রশাসনে গ্রেড ভিত্তিক কর্মকর্তার মধ্যে গ্রেড-১ এ নারী ৬০০জন, গ্রেড-২ এর ২৭৯১ জন, গ্রেড-৩ ৭৮৪৮জন, গ্রেড-৪ ১২২২৬জন, গ্রেড-৫ এর ২২৩০০জন, গ্রেড-৬ এর ৫২৭৭৪জন, গ্রেড-৭ এর রয়েছে ৪৩২৮জন, গ্রেড-৮ এর রয়েছে ২১৭৮জন এবং গ্রেড-৯ এ রয়েছে ১৩৯০৫১ জন। মোট,২৪ হাজার ৪০৯৬ জন।

Check Also

কালুরঘাট সেতুতে গাড়ি চলবে আগামী মাসে

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: কালুরঘাট সেতুতে এখন চলছে সড়ক তৈরির কাজ। ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে কংক্রিট দিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen + five =

Contact Us