সর্বশেষ সংবাদ
Home / আইন কানুন / বড় সংস্কার আনা হচ্ছে বাজার ব্যবস্থাপনায়

বড় সংস্কার আনা হচ্ছে বাজার ব্যবস্থাপনায়

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: পণ্যমূল্য ও বাজার ব্যবস্থাপনায় নানা সংকট ও সীমাবদ্ধতা বিভিন্ন সময় চিহ্নিত হয়েছে। সমাধানে উদ্যোগও ছিল; কিন্তু ফলপ্রসূ হয়নি। নতুন সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর সে উদ্যোগগুলোকে আরও যুগোপযোগী করা হচ্ছে। ভোক্তার স্বার্থ নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনা আছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নতুন প্রতিমন্ত্রী দায়িত্ব নিয়েই সেই নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে পালনের প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন। সে লক্ষ্যে কিছুদিনের মধ্যে বাজার ব্যবস্থাপনায় বড় ধরনের সংস্কার আনা হচ্ছে বলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে।

দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি দীর্ঘদিন ধরেই সব শ্রেণির মানুষের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নির্বাচনের পর নতুন সরকারের যাত্রা শুরু হলেও থেমে নেই ভোগ্য ও ব্যবহার্য পণ্যের দামের উত্তাপ। বরং ভোটের পর বেশকিছু পণ্যের দাম নতুন করে বেড়েছে। রোজার মাসে বাজার পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন সাধারণ মানুষ। এ অবস্থায় বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে খোদ প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের নির্দেশ দিয়েছেন।

যদিও এর আগেও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে দফায় দফায় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল; কিন্তু তা মাঠপর্যায়ে কার্যকর হয়নি। বরং এক রকম ধারাবাহিকভাবেই পণ্যমূল্য বেড়েছে। অথচ দেশে নিত্যপণ্যের কোনো ঘাটতি নেই। একমাত্র চিনি ছাড়া সব পণ্যেরই পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে। তবু দাম আকাশছোঁয়া। বাড়তি টাকা খরচ করলেই মিলছে প্রয়োজনীয় পণ্য।

কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমানের মতে, বাজারে পণ্যের দাম বাড়ে যদি সরবরাহ বিঘ্নিত হয় এবং চাহিদা বেশি থাকে। তা ছাড়া যেসব পণ্য আমদানি করতে হয়, সেগুলোর ক্ষেত্রে আমদানি ব্যয়, মুদ্রা বিনিময় হারসহ পণ্যের দাম হিসাব করতে হবে। যদি মুদ্রার বিনিময় হার বেড়ে যায়, তাহলে আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলেও দেশে দাম বাড়তে পারে। আর দেশে উৎপাদন যতই বেশি হোক, মধ্যস্বত্বভোগী বেশি হলেও দাম বাড়ে। দাম বাড়ে কারসাজিতেও। সেটা অলিগলি কিংবা মনোপলিও হতে পারে। এভাবে অনৈতিকভাবে সরবরাহ বিঘ্নিত হলে পণ্যের দাম বেড়ে যায়। এসব কিছু বিবেচনা করেই বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের নানা উদ্যোগ আছে। অনেক ক্ষেত্রে সেটা সুফল দিচ্ছে, অনেক ক্ষেত্রে আবার দিচ্ছে না।

এর জন্য তিনি ‘অভ্যন্তরীণ ব্যবস্থা্পনার নানা সীমাবদ্ধতা, আইনি দুর্বলতা এবং ব্যবসায় রাজনৈতিক ও করপোরেট শক্তির আধিক্যকে’ দায়ী করে বলেন, ‘মন্ত্রণালয়কে এসব বিষয়ও নজরে আনতে হবে। কারণ এটা স্পষ্ট, আইনের দুর্বলতা আছে। সেখানে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির নজির নেই। অনেক সময় আইনকে ফাঁকি দিয়ে অনৈতিক কাজ হয়। তাই বাজার অস্থিতিশীলতা থেকে বের হতে পারছে না।’

এই সংকট নিয়ে নতুন সরকার কী ভাবছে—জানতে চাইলে নবনিযুক্ত বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু কালবেলাকে বলেন, ‘পণ্যমূল্য ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে যেসব সংকট রয়েছে, খুব শিগগির তার সমাধান করা হবে।’

তিনি জানান, ‘অর্থনীতির মূল থিউরি হলো ডিমান্ড অ্যান্ড সাপ্লাই। অর্থাৎ পণ্যের সরবরাহ ঠিক থাকলে দামও ঠিক থাকবে। তখন কোনো কারচুপি, অজুহাত কাজে আসবে না। আগামীতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় তার সব ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার কার্যকর ব্যবহার করে সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার মাধ্যমে পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করবে। এটা শুধু কথার জন্য কথা নয়, তা বাস্তবায়ন করে দেখানো হবে। এর জন্য শুধু একটু সময়ের দরকার।’

পণ্যমূল্য ব্যবস্থাপনায় ১১ সংকট: এদিকে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু গতকাল রোববার দায়িত্ব গ্রহণের পর মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তর ও উইং প্রধানদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় তারা মূল্য-সংকটের নেপথ্য কারণ তুলে ধরেন। সেখানে অভ্যন্তরীণ আলোচনায় বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট কারণ উঠে আসে। দেশে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের উৎপাদন চাহিদার তুলনায় কম। নিত্যপণ্যের আমদানিনির্ভরতা বেশি, তাই দামও বেশি। চাহিদা ও ভোগ্যপণ্যের তথ্যে গরমিলের কারণেও পরিকল্পনা বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর সঙ্গে ডলারের বিনিময় মূল্য আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় বেড়েছে। এখানেই প্রায় ২০-২৫ শতাংশ মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। আমদানি পণ্যের দামও বেড়েছে। শুধু বৈশ্বিক বাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে যে জিনিসের দাম আগে ১০০ টাকা ছিল, এখন সেটি ১২৫ টাকা হয়েছে। যুদ্ধের কারণে পণ্যের শিপিং খরচও বেড়েছে।

অন্যদিকে, গুটিকয়েক করপোরেট প্রতিষ্ঠানের হাতে আমদানি সীমাবদ্ধ। আগে যারা মৌলভীবাজারে ব্যবসা করতেন, তারা ৫-১০ হাজার টন আনতে পারতেন। এখন জাহাজ ছাড়া কেউ মাল আনতে পারে না। ছোট আমদানিকারকদের এক জাহাজ মাল আনার সক্ষমতা নেই। বিপরীতে করপোরেট প্রতিষ্ঠান চাইলে বিশ্বের যে কোনো দেশ থেকে যে কোনো সময় পুরো একটি জাহাজ ভাড়া করে আমদানি করতে পারে। যেহেতু গুটিকয়েক আমদানিকারক, তাই দাম নির্ধারণে বড় ব্যবসায়ীদের স্বার্থই প্রাধান্য দিতে হচ্ছে। নতুবা তারা আমদানি বন্ধ করে দিলে ভবিষ্যতে সংকট আরও বাড়বে—এমন আশঙ্কাও রয়েছে। আবার নানা কারণে বাজারে সরবরাহ চেইনে প্রায় সময় সংকট তৈরি হয়। অন্যদিকে, আমদানি পণ্যের ওপর রয়েছে উচ্চহারের শুল্ক-করের জটিলতা। বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ কারণে বেড়েছে জ্বালানির দাম। এর সঙ্গে ওজন স্কেলের গ্যাঁড়াকলে পরিবহন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি উৎপাদন খরচও বেড়েছে। শ্রমিকের মজুরিও বাড়াতে হয়েছে।

বড় সীমাবদ্ধতা যেখানে: দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের হাতে ব্যবস্থাপনাগত সক্ষমতা কম। কারণ দেশে ভোজ্যতেল, চিনি, পেঁয়াজ, ডাল, গম, চাল, আদা, রসুনসহ প্রায় সব খাদ্যপণ্যের উৎপাদন কম। আবার উৎপাদনে জমিও কম। ফলে চাহিদার সঙ্গে সরবরাহের একটা বিরাট ঘাটতি লেগেই থাকছে। ফলে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ পণ্য আমদানি করতে হয়; কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজার সব সময় অস্থিতিশীল। বিদেশে দাম বাড়লে দেশে বাড়ে তার চাইতেও বেশি।

বাজারে পণ্যের দাম স্বাভাবিক রাখার সরকারি কৌশল প্রয়োগ করে থাকে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে। টিসিবির মাধ্যমে বর্তমানে কিছু কার্যক্রম পরিচালিত হলেও সেখানে বরাদ্দ কম। বাণিজ্যিক পরিচালনায় পণ্যের সংখ্যা কম। সুবিধাভোগীও কম।

সংকট উত্তরণে যা করতে যাচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়:

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বৈঠকে মূল্য নিয়ন্ত্রণে করণীয় নিয়েও আলোচনা হয়। সংশ্লিষ্টরা জানান, বৈঠকে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী সবার আগে বাজারে পণ্যের সরবরাহ ঠিক রাখার ওপর জোর দিয়েছেন। এখন থেকে মন্ত্রণালয়ের মুখ্য কাজ হবে বাজারে পণ্যের সঠিক সরবরাহ নিশ্চিত করার মাধ্যমে ভোক্তাপর্যায়ে পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিত করা। সেই সঙ্গে কারসাজির কোনো অভিযোগ পাওয়া মাত্র ভোক্তা অধিকার, প্রতিযোগিতা কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

রমজান সামনে রেখে বাজার ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখতে আগামী সপ্তাহ থেকে বড় উৎপাদকদের কারখানা পরিদর্শনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর পাশাপাশি বড় বাজারগুলোতে পরিদর্শন ও সেখানকার বাজার কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করতে যাচ্ছে সরকার। এতে কোথায় কী ধরনের সমস্যা রয়েছে, তা জানার চেষ্টা করা হবে। এর মাধ্যমে ট্রাক, পরিবহন এবং বাজারে বিশেষ করে বড় বাজার কারওয়ান বাজার, খাতুনগঞ্জ, শ্যামবাজার, মৌলভীবাজার সর্বত্র পণ্যের স্বাভাবিক সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে। এলসি খোলার ক্ষেত্রে যেখানে যে ধরনের সমস্যা রয়েছে, তা বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত সুরাহা করা হবে। বন্দর থেকে পণ্য খালাস দ্রুত করা হবে। যেসব ভোগ্যপণ্যে উচ্চহারের শুল্ক কর রয়েছে, তার থেকে দায়মুক্তি কিংবা সহনীয় করার চেষ্টা থাকবে। প্রতিদিনই কর্মকর্তাদের নিবিড় কাজের মধ্যে থাকা নিশ্চিত করা হবে। অভিযোগ পাওয়া মাত্র তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্দিষ্ট আয়ের লোকদের রেশনের আওতায় আনা হবে। টিসিবির কর্মকাণ্ডকে আরও সক্রিয় ও শক্তিশালী করা হবে।

 

Check Also

ভর্তুকির বকেয়া শোধ বন্ডে

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: চলমান অর্থসংকটের কারণে দীর্ঘদিন সময়মতো ভর্তুকি দেওয়া হয়নি। এতে বড় অঙ্কের বকেয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − 14 =

Contact Us