সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / নির্বাচন নিয়ে কে কী বলছে তা নিয়ে মাথা ঘামাই না- প্রধানমন্ত্রী

নির্বাচন নিয়ে কে কী বলছে তা নিয়ে মাথা ঘামাই না- প্রধানমন্ত্রী

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে কে কী বলছে তা নিয়ে তারা মাথা ঘামান না। জনগণের কাছে ভোটের গ্রহণযোগ্যতা পাওয়াই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তিনি বলেন, আমাকে গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে হবে ঠিক। কার কাছে? একটা সন্ত্রাসী দলের কাছে? সন্ত্রাসী সংগঠনের কাছে? না। আমার জনগণের কাছে আমার জবাবদিহিতা আছে। জনগণের কাছে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হচ্ছে কিনা সেটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। রোববার সকালে ঢাকা সিটি কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিয়ে বুথ থেকে বের হয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। নির্বাচনে জয়লাভের বিষয়ে আস্থা ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আশা করি নৌকা মার্কা জয়লাভ করবে এবং আবার আমরা জনগণের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করব। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের যে মর্যাদা পেয়েছে সেটা আমরা বাস্তবায়ন করতে পারব। এই বিশ্বাস আমার আছে, জনগণের ওপর আমার বিশ্বাস আছে।

সকাল ৭টা ৫৫ মিনিটে ছোট বোন শেখ রেহানা, মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ ও শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিককে নিয়ে ভোটকেন্দ্রে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। ঢাকা-১০ আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা ঢালিউড অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদ প্রধানমন্ত্রীকে কেন্দ্রে স্বাগত জানান।

বিদেশি হস্তক্ষেপ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন নিয়ে কে কী বলছে তা নিয়ে তারা মাথা ঘামান না। বাংলাদেশ একটি স্বাধীন এবং সার্বভৌম দেশ। এটি ছোট দেশ হতে পারে, কিন্তু এর জনসংখ্যা অনেক বেশি। জনগণই আমাদের প্রধান শক্তি। কাজেই কে কী বলল তা নিয়ে আমি মাথা ঘামাই না।

শেখ হাসিনা নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করতে জনগণের সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, অনেক বাধা-বিপত্তি ছিল, কিন্তু দেশের মানুষ তাদের ভোটাধিকারের ব্যাপারে সতর্ক ছিল। প্রতি ৫ বছর অন্তর জাতীয় নির্বাচন হয়। মানুষ নির্বিঘ্নে ভোট দেবে এবং আমরা সেই পরিবেশ তৈরি করেছি। তিনি বলেন, ২০০৯ সাল থেকে দেশে এই গণতান্ত্রিক ধারাটা আছে বলেই দেশের এত উন্নতি হয়েছে। আমাদের সামনে আরও কাজ আছে সেটা আমরা সম্পন্ন করতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল। তারা কখনো নির্বাচনেই বিশ্বাস করেনি। এক সামরিক শাসক সংবিধান ও সেনা আইন লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে এই বিএনপির সৃষ্টি করেছে। কাজেই ভোট কারচুপি, সিলমারা আর মানুষের ভোট কেড়ে নেওয়াটাই তাদের চরিত্র। এখানে সেই সুযোগটা তারা পাচ্ছে না।

তিনি বলেন, ২০০৮-এর যে নির্বাচন, সেই নির্বাচন নিয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করতে পারেনি। সেই নির্বাচনে ৩শ আসনে বিএনপি পেয়েছিল মাত্র ৩০টি আসন আর আওয়ামী লীগ এককভাবে পেয়েছিল ২৩৩টি আসন। এরপর থেকেই বিএনপি নির্বাচনের বিরুদ্ধে। ভোট কারচুপি করতে পারবে না বলেই তারা নির্বাচনে আসে না। নির্বাচন বানচাল করতে মানুষ হত্যা করে।

তিনি বলেন, দেশের জনগণ তাদের ভোটের অধিকার ফিরে পেয়েছে। সেটা তারা সুষ্ঠুভাবে প্রয়োগ করতে পারবে এবং নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। অর্থাৎ আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাকে দেব। জনগণ যাকে খুশি (ভোট) দিক কিন্তু নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় সেটাই আমরা চাই। এই নির্বাচনের সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত রয়েছেন, বিশেষ করে মিডিয়াকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।

এদিকে রাজধানীর গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা। বেলা পৌনে ১২টার দিকে তিনি ঢাকা-১৭ নির্বাচনি এলাকার এ ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এ সময় সঙ্গে তার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি এবং এ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ আলী আরাফাতসহ আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বিজয় মিছিল না করার নির্দেশ শেখ হাসিনার : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর বিজয় মিছিল না করার নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ফলাফল ঘোষণার পর কোনো প্রকার বিজয় মিছিল না করার নির্দেশনা দিয়েছেন শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে অন্য প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে সহিংসতা বা আত্মকলহে লিপ্ত না হওয়ার জন্য সাংগঠনিক নির্দেশনা প্রদান করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

Check Also

বিএনপি এখন হতাশায় ডুবে আছে: ওবায়দুল কাদের

শেরপুর ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি এখন হতাশায় ডুবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 3 =

Contact Us