সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / অর্থনৈতিক সংকটে স্বস্তি আনতে পারে সংস্কার

অর্থনৈতিক সংকটে স্বস্তি আনতে পারে সংস্কার

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশের চলমান অর্থনৈতিক সংকট কাটাতে কঠোর সংস্কারমূলক পদক্ষেপ নিলে নতুন বছরে স্বস্তি মিলবে। স্থিতিশীল হবে দেশের অর্থনীতি। হয়তো উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন হবে না। সংকটে স্বস্তি আনতে পারে সংস্কারনতুন বছরে জনজীবনে স্বস্তির আশা সাধারণ মানুষের।

তারা চায় কর্মসংস্থানের সুদিন ফিরবে, বাড়বে শ্রমজীবী মানুষের আয়। অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার আশা করছেন অর্থনীতিবিদরা। শিল্পের উৎপাদনে গতিশীলতা ও আমদানি-রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধির আশা করছেন ব্যবসায়ীরা। আর এই স্বস্তির সুবাতাস ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজন হবে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার।

নির্বাচন-পরবর্তী নতুন সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের পর রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা গুরুত্বপূর্ণ হবে। আর অর্থনৈতিক সংস্কারের মাধ্যমে সংকট কাটবে এমনটা মনে করছেন ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদরা। বিদায়ি বছরে অর্থনীতির সব সূচক ছিল নেতিবাচক। বছরজুড়ে উচ্চ মূল্যস্ফীতির চাপে পিষ্ট হয়েছে ক্রেতা-ভোক্তা।

ডলার সংকটে কমেছে রিজার্ভ। ছিল খেলাপি ঋণের রেকর্ড। ব্যাংকিং খাতে দুর্বল অবস্থা অর্থনৈতিক সংকটকে আরো ঘনীভূত করেছে। যদিও বছর শেষে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। অর্থনৈতিক এই সংকটময় পরিস্থিতিতে এখনই বড় পরিবর্তনের আশা করছেন না কেউ।

এমনকি শিগগিরই অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে এমনটাও বলছেন না অর্থনীতিবিদরা। তবে সবার আশা অর্থনৈতিক এই ভঙ্গুরময় পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য সরকার কঠোর সংস্কারের উদ্যোগ নেবে। এতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি না হলেও স্থিতিশীলতা আসবে। সরকার সংস্কারের উদ্যোগ নিলে বছরের শেষ দিকে ব্যবসা-বাণিজ্যে গতিশীলতা ফিরতে পারে।

বছরের মাঝামাঝি সহনীয় হবে মূল্যস্ফীতি: দেশের অর্থনীতির প্রধান চ্যালেঞ্জ এখন মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নির্বাচনী ইশতেহারে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণকে অগ্রাধিকার ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঋণের সুদহার বাড়িয়েছে। পরিবর্তন আসবে নতুন বছরের মুদ্রানীতিতেও। তা ছাড়া বিশ্ববাজারে পণ্যের দাম কমে আসার সুফল মিলবে নতুন বছরে।

এ বিষয়ে কনজিউমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি ও সাবেক বাণিজ্যসচিব গোলাম রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয় আর্থিক নীতি ও মুদ্রানীতির ব্যবহার যথাযথ করছে বলে মনে হয় না। এ ক্ষেত্রে যেসব পদক্ষেপ নেওয়ার দরকার ছিল, বিশ্বের অন্যান্য দেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে, তেমন পদক্ষেপ নেওয়ার ক্ষেত্রে ২০২৩ সালে অনীহা ছিল। তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করব, এ বছর প্রথম থেকেই আর্থিক নীতি ও মুদ্রানীতির মূল্যায়ন এমনভাবে করা হয়, যাতে মূল্যস্ফীতি উসকে না দিয়ে নিয়ন্ত্রণে আসে।’

গোলাম রহমান বলেন, ‘আমাদের প্রত্যাশা, নতুন বছরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে আসবে। একই সঙ্গে দেশে যে আয়বৈষম্য বেড়েছে তা ভোক্তাদের জীবনমানে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে; বিশেষ করে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোতে। বর্তমানে দেশে আয়বৈষম্য খুব প্রকট।’ তিনি বলেন, এসব বিষয় বিবেচনা করে সরকার এমন সব পদক্ষেপ নেবে, যাতে আয়বৈষম্য কমে আসবে। এতে সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে থাকবে। তবে বাস্তবে কী হবে তা সময় বলে দেবে।’

অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা শিল্পে গতি আনবে: বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ যত শক্তিশালী হবে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল হতে তা তত ভূমিকা রাখবে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের পরামর্শ অনুযায়ী, সম্প্র্রতি রিজার্ভ বাড়াতে জোর দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগের চেয়ে প্রায় দুই বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ বাড়াতে সক্ষম হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ ধারা অব্যাহত থাকলে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা সহজ হবে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা।

ব্যবসায়ীরাও আশা করছেন নতুন বছরে বাণিজ্যে সুবাতাস ফিরবে। বৈশ্বিক পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধিতে রপ্তানি বাড়বে। প্রবাস আয়ে নতুন মাত্রা যোগ হবে। বৈদেশিক মুদ্রার আয় বাড়ানো সম্ভব হলে আমদানিতে কড়াকড়ি উঠে যাবে। আর আমদানি বাড়লে শিল্পের উৎপাদনে গতিশীলতা আসবে।

রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বিনিয়োগ আসবে। বিনিয়োগ বাড়লে কর্মসংস্থানও বাড়বে। তবে এ সব কিছুই নির্ভর করবে সংকট সমাধানে জোরদার সংস্কার পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর। বিশেষ করে ব্যাংকসহ আর্থিক খাতে যে দুর্বল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা সমাধানে যেতে হবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সাবেক সভাপতি আবুল কাসেম খান বলেন, নতুন বছরে নতুন দিনে নতুন আলো আসবে—এমনটাই প্রত্যাশা। কিন্তু অর্থনৈতিক সংকট ব্যবসা-বাণিজ্যকে চাপে ফেলেছে। তা থেকে উত্তরণের পথে হাঁটতে হবে। দেশের মধ্যে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে, সেগুলো যদি সুষ্ঠুভাবে সমাধান চায় তাহলে স্বল্প ও মধ্যমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। অর্থনৈতিক পরিকল্পনা নতুনভাবে সাজাতে হবে। তিনি বলেন, একটি শক্তিশালী অর্থনৈতিক কমিটি বা টাস্কফোর্স গঠন করতে হবে। এই কমিটি সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধানের সুপারিশ করবে এবং ব্যবস্থা নেবে। অনেক সমস্যা চিহ্নিত। কিছু অস্থায়ী সমাধানও আছে। এর পুরোপুরি স্থায়ী সমাধান লাগবে।

আইএমএফের পরামর্শ বিষয়ে আবুল কাসেম খান বলেন, আইএমএফের সংস্কার প্রস্তাব অনুযায়ী সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। সংস্কারের কোনো বিকল্প নেই। ব্যাংক খাতের সংস্কার আটকে আছে আর্থিক খাতের দুর্বল অবস্থা ও সুশাসনের অভাবে। এখানে সাহসী পদক্ষেপের প্রয়োজন। তা না হলে অর্থ বিদেশে পাচার হয়ে যাবে। শুধু কঠোর নীতি নিলেই হবে না, কিছু ক্ষেত্রে সহজীকরণ করতে হবে। বৈদেশিক অর্থ আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রক্রিয়া সহজ ও স্বচ্ছ করতে হবে।

Check Also

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় সুবিধা পেতে সর্বোচ্চ জোর

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা আয়োজিত মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে এবারও বাণিজ্য সুবিধা পাওয়ার বিষয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − two =

Contact Us