সর্বশেষ সংবাদ
Home / দেশের খবর / খাদ্য বিতরণে জোর

খাদ্য বিতরণে জোর

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশে চলমান উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে সরকার সারাদেশে খাদ্যশস্য বিতরণ রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধি করেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে সাধারণ মানুষের মধ্যে খাদ্যশস্য বিতরণ ২৩ শতাংশের বেশি বেড়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতিতে কম দামে সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে এই খাদ্য বিতরণ করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগেভাগেই আমদানি করা হচ্ছে পর্যাপ্ত খাদ্য। ফলে দেশে খাদ্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকার পাশাপাশি নি¤œ আয়ের মানুষের মধ্যেও স্বস্তি বিরাজ করছে। বিশ্ব মন্দার মধ্যেও সরকারের দায়িত্বশীল উদ্যোগের ফলে এটি সম্ভব হয়েছে বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, চলতি অর্থবছরের গত নভেম্বর পর্যন্ত খোলা বাজারে বিক্রি (ওএমএস) ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির মতো প্রকল্পগুলোর আওতায় ১২ লাখ ৯২ হাজার টন চাল ও গম বিতরণ করা হয়েছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে তা ছিল সাড়ে ১০ লাখ টন।
গত ১৮ মাস ধরে মূল্যস্ফীতি বাড়তে থাকায় তা সরকারের জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। খাদ্যপণ্যের উচ্চমূল্য মোকাবিলায় সরকার বেশ চাপেও ছিল। কিন্তু সরকারের পদক্ষেপে তা স্থিতিশীল রাখা সম্ভব হয়েছে।

গত বছরের নভেম্বরে সরকার বলেছিল, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো ২০২৩ সালে বিশ্বব্যাপী দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা করছে। এই পরিস্থিতি এড়াতে বাংলাদেশকে অবশ্যই প্রতিইঞ্চি জমিতে ফসল ফলাতে হবে এবং সঞ্চয়ের পাশাপাশি খরচ কমাতে হবে এমন নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি আগেভাগে চাল আমদানি করে সরকার পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে। যে কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্য ঘাটতি থাকলেও বাংলাদেশে এর কোনো প্রভাব পড়েনি। আগেভাগে বাস্তব পদক্ষেপ না নিলে বাংলাদেশকে আজ অনেক কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হতো বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যে জানা যায়, গত অক্টোবর থেকে টানা তৃতীয় মাস দেশে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ১২ শতাংশের বেশি ছিল। এটি গত এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ। অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক সেলিম রায়হান বলেন, মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ার পর থেকে অর্থনীতিবিদরা মানুষের উপকারের কথা বিবেচনা করে সরকারকে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচির পরিধি বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন।
বেশি পরিমাণে বিতরণের কারণে বর্তমান পরিস্থিতিতেও সরকারের খাদ্য মজুদ রয়েছে ১৩ লাখ ৯৩ হাজার টন। এটি এর আগের বছরের একই দিনে ছিল ১৫ লাখ ৮২ হাজার টন। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, সাম্প্রতিক মাসগুলোয় দেশে খাদ্য মজুদ ছিল গড়ে ১৮-১৯ লাখ টন।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের মহাপরিচালক কাজী শাহাবুদ্দীন বলেন, এক সময় ১০ লাখ টন খাদ্যশস্য মজুদ দেশের জন্য যথেষ্ট বলে ধরে নেওয়া হলেও এখন তা ১০-১৫ লাখ টন হওয়া উচিত। সুতরাং সেই হিসাবে দেশের বর্তমান খাদ্য মজুদ ঠিক আছে। তিনি সরকারের খাদ্যশস্য মজুদের ব্যবস্থাকে ‘সুড়ঙ্গ’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, এটি একদিকে ভরা হয় ও অন্যদিক থেকে বিতরণ করা হয়। তিনি মনে করেন, বেশি বিতরণের ফলে মজুদ কমে গেলেও আমন সংগ্রহের পর তা বাড়বে।
খাদ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, জনগণের দুর্দশা কমাতে সরকার সাম্প্রতিক মাসগুলোয় বিপুল পরিমাণ খাদ্যশস্য বিতরণ করেছে। এ কারণে মজুদ কিছুটা কমেছে। যেহেতু আমনের ফলন ভালো হয়েছে এবং সরকার ইতোমধ্যে আমন সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করেছে। ক্রমান্বয়ে মজুদ বাড়তে শুরু করেছে। সংগ্রহ অভিযান মাত্র শুরু। শীঘ্রই মাজুদ বাড়তে শুরু করবে।

নির্বাচনকে সামনে রেখে নানান কর্মসূচির আওতায় সরকার পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য বিতরণকে অগ্রাধিকার দিয়েছে। এ ছাড়া, ভর্তুকির জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে যাতে খাদ্য বিতরণ সুষ্ঠুভাবে চলতে পারে।
ওএমএস পদ্ধতিতে সরকার জুলাই থেকে নভেম্বরে চার লাখ ৩৯ হাজার টন চাল ও গম বিতরণ করেছে। এটি এর আগের বছরের একই সময়ে ছিল দুই লাখ ৯২ হাজার টন। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির মাধ্যমে চার লাখ ১৫ হাজার টন গম ও চাল সরবরাহ করা হয়েছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরে তা ছিল দুই লাখ ৮৫ হাজার টন।
বেশ কয়েকটি প্রকল্পের আওতায় খাদ্যশস্য বিতরণ দ্রুত বেড়েছে। এটি জুলাই থেকে নভেম্বরে ছিল এক লাখ ৬৪ হাজার টন। এক বছর আগে তা ছিল ২৭ হাজার ৬৫৮ টন।

ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান সম্প্রতি বলেন, ভর্তুকি দেওয়া খাদ্যপণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় প্রায় ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর টিসিবি ট্রাকে করে খাদ্যপণ্য বিক্রি আবার শুরু করে। বর্তমানে ঢাকার ৩০টি জায়গায় টিসিবির ট্রাকে প্রতিদিন ৭২ টন খাদ্যপণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। সরকারের খাদ্য মজুদ কমে গেলেও চাল আমদানি হয়নি উল্লেখ করে কাজী শাহাবুদ্দীন আরও বলেন, এর কারণ দেশে চালের ঘাটতি নেই।

তাছাড়া আমাদের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে যখন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ফসলের ক্ষতি হয় তখন আন্তর্জাতিক বাজার থেকে চাল কিনতে হয়। সৌভাগ্যবশত এ বছর দেশে বড় কোনো দুর্যোগ ঘটেনি।

চাল ব্যবসায়ী চিত্ত মজুমদার বলেন, এ বছর চাল বিক্রি কম হওয়ায় গত বছর আমদানি করা সব চাল ব্যবসায়ীরা এখনো বিক্রি করতে পারেননি। গত বছরের নভেম্বরে সরকার বলেছিল, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো ২০২৩ সালে বিশ্বব্যাপী দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা করায় তা এড়াতে বাংলাদেশকে অবশ্যই প্রতিইঞ্চি জমিতে ফসল ফলাতে হবে এবং সঞ্চয়ের পাশাপাশি খরচ কমাতে হবে এমন নির্দেশ দিয়েছিল সরকার। চিত্ত মজুমদার জানান, সরকার যখন সম্ভাব্য দুর্ভিক্ষের বিষয়ে সতর্ক করেছিল, তখন ব্যবসায়ীরা চাল আমদানি করেন। তবে দেশে চাল বিক্রি এখন তুলনামূলক কম। বড় ব্যবসায়ীরা এই মুহূর্তে খাদ্যশস্য আমদানি করছেন না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ফসল আমন ধানের বাম্পার ফলন চাল আমদানি কমার আরেকটি কারণ।

চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে সরকারি ও বেসরকারিভাবে চাল আমদানি হয়নি। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যে জানা যায়, গত অর্থবছরে চাল আমদানি হয়েছিল ১০ লাখ ৫৫ হাজার টন। এর মধ্যে সরকারের আমদানি ছিল ছয় লাখ ৩৩ হাজার টন। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অপর এক কর্মকর্তা বলেন, বাজেটে বরাদ্দ থাকলেও এ বছর চাল আমদানির পরিকল্পনা নেই।

Check Also

চিনির দাম বাড়ছে না

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: পবিত্র রমজান মাসের আগে সরকারি মিলের লাল চিনির দাম কেজিতে ২০ টাকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × two =

Contact Us