সর্বশেষ সংবাদ
Home / অর্থনীতি / ​​​​​​​অফশোর ব্যাংকিংয়ে গতি পাবে বিদেশী বিনিয়োগ

​​​​​​​অফশোর ব্যাংকিংয়ে গতি পাবে বিদেশী বিনিয়োগ

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: অফশোর ব্যাংকিং হলো ব্যাংকের ভেতরেই পৃথক ব্যাংকিং সেবা। বিষয়টি আরও সহজ করে বললে, আমানত গ্রহণ ও ঋণ দেওয়ার দুই কার্যক্রমই বৈদেশিক উৎস থেকে আসে ও বিদেশী গ্রাহকদের দেওয়া হয়। অর্থাৎ, এই ব্যাংকিং কার্যক্রম শুধু অনিবাসীদের মধ্যেই সীমিত থাকে।

স্থানীয় মুদ্রার পরিবর্তে বৈদেশিক মুদ্রায় হিসাব হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালা মেনে দেশের অনেক ব্যাংক দীর্ঘদিন ধরেই অফশোর ব্যাংকিং করে আসছে, তবে এ সংক্রান্ত কোনো আইন এতদিন ছিল না। গত ৫ মার্চ জাতীয় সংসদে অফশোর ব্যাংকিং আইন-২০২৪ পাস হয়েছে। নতুন আইনে বলা হয়েছেÑ বিদেশে যে বাংলাদেশী বসবাস করছেন, তার পক্ষে দেশে অবস্থানরত যেকোনো বাংলাদেশী নাগরিক অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। সহায়তাকারী হিসেবে তারা অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করতে পারবেন। অফশোর ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে পাঁচ ধরনের বিদেশী মুদ্রাÑ ডলার, পাউন্ড, ইউরো, জাপানি ইয়েন ও চীনা ইউয়ানে। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন সাপেক্ষে অন্য বিদেশী মুদ্রায়ও লেনদেনের সুযোগ পাবে ব্যাংকগুলো। অফশোর ব্যাংকিং ব্যবসায় অর্জিত সুদ বা মুনাফার ওপর আয়কর বা অন্য কোনো প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ কর আরোপ করা যাবে না। এতে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ বৃদ্ধি, রিজার্ভ ও এলসি খোলার সংকটের সমাধানসহ বিদেশী বিনিয়োগ আরও উৎসাহিত হবে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা।

জানা গেছে, বাংলাদেশে ১৯৮৫ সালে অফশোর ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনের ভিত্তিতে সে সময় কাজ শুরু হয়েছিল। ২০১৯ সালে অফশোর ব্যাংকিং নীতিমালা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি অফশোর ব্যাংকিং আইন-২০২৪ এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এরপর গত ৫ মার্চ জাতীয় সংসদে অফশোর ব্যাংকিং আইন পাস হয়। মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী অফশোর ব্যাংকিং বিল-২০২৪ পাসের জন্য উত্থাপন করেন। জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাব নিষ্পত্তি শেষে বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়। এর আগে বিলের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির কয়েকজন সদস্য জানান, অফশোর ব্যাংকিং সম্পর্কে এমপিদের ধারণা নেই। ধারণা যা আছে, তা নেতিবাচক। তারা মনে করেন, অফশোর ব্যাংকিংয়ের সঙ্গে অর্থ পাচারের সম্পর্ক রয়েছে। এ বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান আনিস এ খান জনকণ্ঠকে বলেন, ‘নতুন আইনের মাধ্যমে পাচারপ্রবণতা বাড়বেÑ এমনটা আমি মনে করি না। বরং আইনে ট্যাক্স মওকুফসহ বেশ কিছু সুবিধা যুক্ত হয়েছে, যা দেশে বৈদেশিক মুদ্রাপ্রবাহ বাড়াতে সহায়ক হবে।’ তিনি বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের রিজার্ভ চাপে রয়েছে, বাজারে ডলার সংকট আছে। তাই অফশোর ব্যাংকিংয়ে সুবিধা বৃদ্ধির মাধ্যমে ডলার সংকট নিরসনে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।’

এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, ‘যেহেতু আইনে নতুন কিছু নেই, তাই এর মাধ্যমে অর্থ পাচার বাড়ার কোনো কারণ নাই, বরং এর মাধ্যমে অফশোর ব্যাংকিংয়ের আইনি ভিত্তি তৈরি হয়েছে। যা বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়াবে।’ তিনি বলেন, ‘এই আইনের মাধ্যমে হিসাব পরিচালনা, ট্যাক্স আরোপ না করাসহ অনেক জটিলতা দূর হয়েছে। ঋণ দেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে ট্রেড ফাইন্যান্স পুরোপুরি উন্মুক্ত করা হয়েছে। ফলে অনেক স্বস্তির পরিবেশ তৈরি হয়েছে।’

Check Also

ইউসিবির সঙ্গে একীভূত হচ্ছে এনবিএল

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: বেসরকারি খাতের ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) সঙ্গে একীভূত হচ্ছে ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − 8 =

Contact Us