সর্বশেষ সংবাদ
Home / পরিবেশ প্রকৃতি / উত্তরে শীতের তীব্রতা বাড়ছেই

উত্তরে শীতের তীব্রতা বাড়ছেই

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশের উত্তরের জেলাগুলোতে শীতের তীব্রতা প্রতিদিন বাড়ছে। গতকাল বেড়েছে শীতের বিস্তার। বৃহস্পতিবার ৯ জেলায় এবং শুক্রবার ১৭ জেলার শৈত্যপ্রবাহ গতকাল বিস্তৃত হয়েছে ২২ জেলায়। কোথাও কোথাও রূপ নিয়েছে মাঝারি থেকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহে। সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় টানা দুই দিন যাবত সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। উত্তরের অধিকাংশ জেলায় তাপমাত্রা ৭-১০ ডিগ্রির মধ্যে ওঠানামা করছে। ঘন কুয়াশা ও শৈত্যপ্রবাহে হাড় কাঁপানো ঠাণ্ডায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। শীতের তীব্রতা বাড়ার পাশাপাশি ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়েছে দেশের বেশির ভাগ অঞ্চল।

বিশেষ করে দেশের উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় গত এক সপ্তাহ ধরে দিনে সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। মানুষের পাশাপাশি প্রাণীকুল ও গবাদি পশু শীতে কাবু হয়ে পড়েছে। শীতের কারণে হাসপাতালে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। ঘন কুয়াশা আর কনকনে শীতে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় বোরো ধানের বীজতলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকেরা। সূর্যের আলো ঠিকমতো না পাওয়ায় বোরোর বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা। এরই মধ্যে হলুদ ও ফ্যাকাশে বর্ণ ধারণ করেছে ধানের চারা। যদিও কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, এখনো বীজতলার ক্ষতি হওয়ার মতো পরিবেশ হয়নি। মাঠপর্যায়ে খোঁজখবর রেখে কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

কৃষকেরা বলছেন, বোরো ধানের বীজ বুনলেও প্রচণ্ড কুয়াশা আর শীতের কারণে গজাচ্ছে না চারা। কিছু চারা গজালেও মরে যাচ্ছে। এভাবে যদি চারা মরে যায়, তাহলে নতুন করে বীজতলা তৈরি করতে হবে। এতে উৎপাদন খরচ বাড়বে। আবার চারা রোপণ করতে দেরি হয়ে যাবে। তাতে ভালো ফলন পাওয়া যাবে না। ধানবীজ ছাড়াও একইভাবে আলু, টম্যাটো, শিম, বেগুনসহ অন্যান্য ফসলেরও ক্ষতি হচ্ছে বলে বিভিন্ন অঞ্চলের কৃষকেরা জানান। ফসল রক্ষায় প্রয়োজনীয় বালাইনাশক স্প্রে করেও সুফল পাচ্ছেন না কৃষকেরা।

এদিকে আজ রবিবার শীতের আরও বিস্তার ঘটতে পারে বলে আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা পূর্বাভাস দিয়ে বলেছেন, আজ চট্টগ্রাম ছাড়া দেশের সাতটি বিভাগে শৈত্যপ্রবাহ অতিক্রম করার সম্ভাবনা রয়েছে। চলমান এই শৈত্যপ্রবাহ আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। এরপর বুধবার দেশের বিভিন্ন জায়গায় আবারও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হতে পারে।

গতকাল আবহাওয়া দপ্তরের বুলেটিনে বলা হয়েছে, কিশোরগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, মৌলভীবাজার, যশোর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা জেলাসহ রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। আজ মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকার কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং দেশের অন্যত্র কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন চলাচল ব্যাহত হতে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। গতকাল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুক্রবার মৌসুমে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল এই তেঁতুলিয়ায় ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তেঁতুলিয়ায় কয়েক দিন ধরে তাপমাত্রা ৭ থেকে ১০-এর মধ্যে ওঠানামা করছে।

 

Check Also

এপ্রিলের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের আভাস

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: আগামী এপ্রিলের মধ্যে বঙ্গোপসাগরে দুই-থেকে তিনটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। যার মধ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen + 1 =

Contact Us