সর্বশেষ সংবাদ
Home / উন্নয়ন / ভিড় সামলাতে মেট্রোরেলে যুক্ত হবে আরো বগি

ভিড় সামলাতে মেট্রোরেলে যুক্ত হবে আরো বগি

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দেশের প্রথম মেট্রোরেল উত্তরা থেকে মতিঝিল অংশে এখন দিনরাত ছুটে চলছে। চলাচলের সময় বাড়ায় দিনের যেকোনো সময় এক স্থান থেকে আরেক স্থানে অল্প সময়ে যেতে মেট্রোরেলের ওপর নির্ভর করছে রাজধানীবাসী। প্রতিদিনই যাত্রী সংখ্যা বাড়ছে সময় সাশ্রয়ী এই গণপরিবহনের। অফিস শুরু ও ছুটির সময়টাতে ভিড়ের কারণে মেট্রোরেলে উঠতে পারাই অনেকের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছ। যাত্রীদের চলাচলের নানা অভিজ্ঞতা আমলে নিয়ে নতুন সুবিধা দেয়া ও সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ। বাংলা ট্রিবিউন।

সম্প্রতি মেট্রোরেলে নিয়মিত যাতায়াত করা বেশ কয়েকজন যাত্রীর সাথে কথা বলে মেট্রোরেল নিয়ে তাদের যেমন স্বস্তির অভিজ্ঞতা রয়েছে, তেমনই নতুন নতুন কিছু সমস্যাও দেখছেন যাত্রীরা। বর্তমানে মেট্রোরেলে সময়মতো ট্রেন প্ল্যাটফর্মে না আসার সমস্যাটি বারবার দেখা দিচ্ছে বলে জানান কয়েকজন যাত্রী। তারা বলেন, মাঝে মধ্যেই দুই থেকে ১০ মিনিট পর্যন্ত ট্রেন দেরিতে আসতে দেখেছি। বিশেষ করে যাত্রী বাড়ার পর গত কয়েকদিনে কয়েকবারই শিডিউল লেট করেছে।

এদিকে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় মেট্রোরেলে সকাল-সন্ধ্যা পিক আওয়ারে প্রত্যেক ট্রেনেই উত্তরা ও মতিঝিল থেকে যাত্রীতে পূর্ণ হয়ে যায়। ফলে কিছু কিছু স্টেশনের যাত্রীদের পক্ষে ওই ট্রেনে জায়গা করে নেয়াটা কঠিন হয়ে যায়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে আগের স্টেশন থেকে যাত্রী পূর্ণ হয়ে গেলে প্ল্যাটফর্ম থেকেই মাইকে ঘোষণা করে অপেক্ষমাণ যাত্রীদের পরের ট্রেনে করে আসার অনুরোধ জানানো হয়। এ ক্ষেত্রে যাত্রীরা পিক আওয়ারে ১০ মিনিটের পরিবর্তে ৫ মিনিট পরপর ট্রেন চলাচলের দাবি করেন।
উল্লেখ্য, সকাল ৭টা ১০ মিনিট থেকে বেলা ১১টা ৩০ মিনিট এবং বিকেল ৪টা ১ মিনিট থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেট্রোরেলের ‘পিক আওয়ার’। এ সময় ১০ মিনিট পরপর মেট্রোরেল চলাচল করার কথা। অফিস সময়ে ১০ মিনিটের পরিবর্তে ৫ মিনিট পরপর ট্রেন চলাচলের দাবি জানিয়েছেন যাত্রীরা। সম্প্রতি সকালে পিক আওয়ারে কয়েকটি ট্রেন ১০ মিনিটের পরিবর্তে ৫ মিনিট পরপর প্ল্যাটফর্মে এসে থেমেছে বলেও যাত্রীরা জানিয়েছেন। অফ পিক আওয়ারে (বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ৪টা পর্যন্ত) ১২ মিনিট পরপর মেট্রো ট্রেন স্টেশনে থামছে।

এছাড়া মেট্রোরেল চলাচল কোনো কারণে বিঘ্ণ ঘটলে প্ল্যাটফর্মের ভেতরে অপেক্ষায় থাকা যাত্রীরা নির্দিষ্ট সময় পার হওয়ার পর জরিমানা হিসেবে অতিরিক্ত টাকা কাটার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে এখনো কোনো সমাধান রাখেনি মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে লেট হওয়ায় অনেক যাত্রীর নিজেস্ব পাস থেকেও জরিমানার টাকা কেটে রাখার ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন যাত্রীরা।
ট্রেন বিলম্বের বিষয়ে মিরপুর ১০ নম্বরের বাসিন্দা সাইফুল্লাহ শহীদ বলেন, মতিঝিলে আমার অফিস। আমার অফিসের কিছু কলিগও আগারগাঁও ফার্মগেট থেকে ওঠে। মেট্রোরেলের সার্ভিস নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। ভিড় বাড়বে এটিই স্বাভাবিক। তবে মাঝে দুই দিন শিডিউল বিপর্যয় ছাড়া আর কোনো সমস্যা দেখিনি। এমআরটি র্যাপিড পাস করা আছে, সহজেই যাতায়াত করা যায়।
অফিসের সময় ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো উচিত জানিয়ে মিরপুর কাজিপাড়ার আরেক যাত্রী নয়েন বলেন, সকালে উত্তরা থেকে লোক ভরে আসে, আবার সন্ধ্যার সময় মতিঝিল থেকে। এই অফিস সময়ে মাঝের স্টেশনগুলোতে যেই যাত্রীরা থাকেন তাদের জন্য কষ্ট হয় ট্রেনে উঠতে। সকালে কাজিপাড়া থেকে উঠতে গেলে জায়গা পাওয়া কঠিন। মিরপুর ১০-১১ থেকেই ট্রেন লোকে ভর্তি থাকে। তিন দিনে ২০ হাজার এমআরটি পাস, যুক্ত হবে নতুন বগি

মেট্রোরেলের বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেন ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) কোম্পানি সচিব (যুগ্ম সচিব) মোহাম্মদ আবদুর রউফ। মেট্রো ট্রেনের চলাচলের মধ্যবর্তী সময় কমানোর বিষয়ে তিনি বলেন, এট আমরা চিন্তা করছি। এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা দেখছি বিষয়টা। আমাদের টিম কাজ করছে। সার্ভে করে আমরা দেখব মেট্রো ট্রেন চলাচলের মধ্যবর্তী সময়টা কতটা কমিয়ে আনা যায়।
গত তিন দিনে প্রায় ২০ হাজার এমআরটি পাস কিনেছেন যাত্রীরা এই তথ্য জানিয়ে মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, এখন যে ভিড় হচ্ছে তার কারণ এখন নতুন অনেকে মেট্রোরেল ব্যবহার শুরু করছেন। তারা একক টিকিট কেটে যাতায়াত করছেন। তাদের অনেকেই এরই মধ্যে এমআরটি পাস কিনে ফেলবেন। গত তিন দিনে আমাদের এমআরটি পাস কিনেছেন প্রায় ২০ হাজার লোক। তারা কিন্তু আর লাইনে দাঁড়াবেন না।

সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা সংযোজিত হবে জানিয়ে মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, আমাদের বগি বাড়ানোর চিন্তাও আছে। যে সিস্টেমে আছে সেখানে প্রত্যেক কোচে আরো দুটি বগি যুক্ত করতে পারব। এছাড়া নতুন কোচ প্রয়োজন হলে ভাবা হবে।
মেট্রোরেলের শিডিউল ফেলের বিষয়ে জানতে চাইলে মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, প্রত্যেকটা ট্রেন তার যাত্রীর ওজন ক্যালকুলেট করে ওই অনুযায়ী প্রত্যেক স্টেশনে অটো ব্রেক করে। এই সিস্টেম সিগন্যালে কোনো মেসেজে টেকনিক্যাল ইস্যু যদি হয় তাহলে সেটা স্টেশনের ট্রেনে ঢোকার জন্য যে দরজাগুলো আছে তার আগে অথবা পরে থেমে যায়। তখন সেটাকে ম্যানুয়ালি সঠিক জায়গায় সেট করতে হয়। তখন দুই তিন মিনিট লাগে। এটা এড্রেস করানোর জন্য আমরা আমাদের কন্ট্র্রাকটরসহ আরো যারা আছে তাদের সাথে মিটিং করেছি। শিগগিরই এই সমস্যার সমাধান হবে।

এছাড়াও অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে ট্রেনের দরজা খোলা বন্ধ নিয়ে সমস্যা হয়। তখন স্টেশন থেকে ট্রেন ছাড়তে লেট হয়।
এসব ছাড়াও আরো যেসব জায়গায় কাজ করতে হবে তা ডিএমটিসিএল কাজ করছে জানিয়ে তিনি বলেন, নতুন একটা সিস্টেম চালু হয়েছে। জনগণও অভ্যস্ত হয়নি। আমাদেরও প্রতিনিয়তই নতুন বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। আমরা সমাধান খুঁজে বের করব।

২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেল উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে গত ৪ নভেম্বর আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের উদ্বোধন করেন তিনি। গত ৩১ ডিসেম্বর সর্বশেষ মেট্রোরেলের শাহবাগ ও কাওরানবাজার স্টেশন চালু হয়। এর মধ্য দিয়ে এমআরটি-৬ লাইনের উত্তরা দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ১৬ স্টেশনে চালু হলো মেট্রোরেল। মেট্রোরেলের ১৬টি স্টেশন হলো- উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কাওরান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় ও মতিঝিল।
গত ২০ জানুয়ারি থেকে উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে মতিঝিল অংশে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলাচল করছে মেট্রোরেল।

Check Also

দক্ষিণ কোরিয়া যেতে আগ্রহ বাড়ছে তরুণদের

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণ কোরিয়ার শ্রমবাজারে বাংলাদেশি কর্মীদের কোটার বিপরীতে গমনেচ্ছু প্রার্থীদের আগ্রহ বেড়েছে। আবেদনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 + 18 =

Contact Us