সর্বশেষ সংবাদ
Home / রাজনীতি / বাংলাদেশের উন্নয়ন শুরু জিয়ার হাত ধরে -নজরুল ইসলাম খান

বাংলাদেশের উন্নয়ন শুরু জিয়ার হাত ধরে -নজরুল ইসলাম খান

 

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, আজকে বাংলাদেশ কৃষি, তৈরি পোশাক, প্রবাসী আয় এই ৩টি স্তম্ভের ওপর দাঁড়িয়ে আছে। যার ভিত্তি রচনা করেছেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। তিনি দেশের উন্নয়নে গ্রামে গ্রামে গিয়ে মানুষের সঙ্গে কথা বলেছেন। কৃষির সমৃদ্ধির জন্য তিনি খাল ও নদী পুন:খনন ও গভীর নলকূপ স্থাপনের মাধ্যমে সেচের ব্যবস্থা করেন। উন্নয়নের লক্ষ্যে তিনি নানামুখী প্রকল্প নিয়েছিলেন। এভাবে আল্লাহর মেহেরবাণীতে দেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পন্ন হয় এমনকি গিনিতে চাল রপ্তানি করা হয়েছিল। বাংলাদেশের উন্নয়নের শুরু হয়েছিল জিয়াউর রহমানের হাত ধরেই।

সোমবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৮৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে শহীদ জিয়া ও বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)। সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশিদের সভাপতিত্বে সভার সার্বিক তত্ত্বাবধান করেন মহাসচিব ডা. মো. আবদুস সালাম।

জরুল ইসলাম খান বলেন, জিয়াউর রহমান তার শাসনামলে বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রপ্তানি শুরু করেছিলেন। তিনি পল্লী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করেন। অথচ এই দেশে একসময় মানুষ ডাস্টবিনে পশুর সঙ্গে খাবার খেত। কারখানাগুলো বন্ধ হয়েছিল। কিন্তু এক শিফটের পরিবর্তে দুই শিফটে কাজ শুরু করেন জিয়াউর রহমান। তিনি সকল কলকারখানা পর্যায়ক্রমে চালুর মাধ্যমে অর্থনীতিকে শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করান। অর্থাৎ জিয়াউর রহমান রাষ্ট্র ব্যবস্থাপনা থেকে শুরু করে রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতি সকল ক্ষেত্রে সফল ব্যক্তি ছিলেন। এসময় জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বিভিন্ন সময় কাজ করার ঘটনা স্মৃতিচারণ করেন নজরুল ইসলাম খান।
নজরুল ইসলামের দাবি, বিএনপি এখনও মর্যাদা ও শক্তিমত্তার সঙ্গে টিকে আছে, ক্রমান্বয়ে এর কলেবর বাড়ছে।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশিদ বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান অল্প সময়ের মধ্যেই বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছিলেন। তিনিই বাংলাদেশকে একটি মর্যাদাশীল রাষ্ট্রে পরিণত করেছেন।

ড্যাবের মহাসচিব আব্দুস সালাম বলেন, জাতির ক্রান্তিকালে যাকে পেয়েছি আমরা তিনি হলেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান প্রতিরোধ গড়ে তুলে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তিনি কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেন।

ড্যাবের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব ডা. মেহেদী হাসান বলেন, এ সরকার বিএনপিকে ভাঙ্গতে নানা প্রচেষ্টা করেছে। কিন্তু আমাদের দলের নেতাদের সুদক্ষ পরিচালনায় তা কিছুই করতে পারেনি তারা। আমাদের দেশ ও জনতার অধিকার ফিরিয়ে আনার লড়াই চলছে, তা ফিরিয়ে না আসা পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

ড্যাবের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব ডা. মো. মেহেদী হাসান ও ডা. আশফাক নবী কনকের যৌথ সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব কাদের গণি চৌধুরী, বিএনপির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক জেড রিয়াজ উদ্দিন নসু, ড্যাবের সহ-সভাপতি ডা. সিরাজুল ইসলাম, ডা. শহীদুল আলম, ডা. শহীদুর রহমান, ডা. মোস্তাক রহিম স্বপন, কোষাধ্যক্ষ ডা. জহিরুল ইসলাম শাকিল, যুগ্ম মহাসচিব ডা. পারভেজ রেজা কাকন, ডা. সায়ীদ মেহবুব উল কাদির, নার্সেস এসোসিয়েশনের জাহানারা সিদ্দিকা, এ্যামট্যাবের দবির উদ্দিন তুষার, ডা. এমএ কামাল, ডা. জাহানারা লাইজু প্রমুখ। এছাড়াও ড্যাব নেতা ডা. আদনান হাসান মাসুদ, ডা. জাফর ইকবাল, ডা. রুস্তম আলী মধু, ডা. এনামুল হক এনাম, ডা. বাসেদুর রহমান সোহেল, ডা. ইব্রাহিম রহমান বাবু, ডা. এম শাহিন, ডা. হুমায়ুন কবির প্রিন্স, ডা. নাভিদ মোস্তাক, ডা. তানজিম রুবাইয়্যাত আফিফ, ছাত্রদল নেতা তরিকুল ইসলাম তারিকসহ শতাধিক চিকিৎসক সভায় উপস্থিত ছিলেন।

Check Also

দেশের একটা মানুষও না খেয়ে মরেনি: ওবায়দুল কাদের

শেরপুর ডেস্ক: দেশে দ্রব্যমূলের ঊর্ধ্বগতির পরও মানুষ অনেক ভালো আছে, একজনও না খেয়ে মরেনি বলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × two =

Contact Us