সর্বশেষ সংবাদ
Home / অন্যরকম খবর / ৭ বিয়ে করা রবিজুল মহাবিপদে

৭ বিয়ে করা রবিজুল মহাবিপদে

শেরপর নিউজ ডেস্ক: সাত বিয়ে করে দেশজুড়ে আলোচিত হয়েছিলেন কুষ্টিয়ার যুবক রবিজুল ইসলাম (৩৯)। এসব বিয়ে নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সম্প্রতি তার সংসারে নেমে এসেছে স্থানীয় মাতব্বরদের চাপ। ইসলামি শরিয়ত মানাতে দুই স্ত্রীকে তালাক দিতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। এ অভিযোগ তুলেছেন রবিজুল নিজেই।

জানা গেছে, গত শনিবার সকালে গ্রামের ২২ প্রধান এক হয়ে পাটিকাবাড়ি বাজারে বৈঠক ডাকেন। সেখানে পাটিকাবাড়ি গ্রামের মিয়াপাড়ার আয়নাল মণ্ডলের ছেলে রবিজুল ইসলামকে ডেকে আনেন তারা। বৈঠকে মাতব্বরদের ভূমিকা পালন করেন স্থানীয় মাতবর নাজিম মণ্ডল। এ সময় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সফর উদ্দিনসহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে শরিয়ত মোতাবেক চারের অধিক স্ত্রী রাখার বিধান না থাকার ইসলামি ব্যাখ্যা দেন মুহতামিম হাফেজ ম. মুফতি আলমগীর হোসাইন। এ সময় রবিজুলের পঞ্চম ও সপ্তম স্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে রবিজুল ইসলাম বলেন, ‘গ্রামের ২২ মাতুব্বর নিজেরাই এক হয়ে সামাজিক বৈঠক ডেকে আমাকে উপস্থিত হতে বলে। আমি তাদের বলেছিলাম, এ জন্য আমার সময় প্রয়োজন। কারণ, আমি যাদের বিয়ে করেছি, তারা সবাই গরিব ঘরের সন্তান। তাদের চলার মতো একটা অবস্থান তৈরি করে পরবর্তীতে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে। কিন্তু তারা আমার কথা না মেনে তাদের নিজেদের মতো করে আমার দুই স্ত্রীকে জোর করে তালাক দেওয়ার জন্য স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেয়। আমি এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

বৈঠকের প্রধান নাজিম মণ্ডল বলেন, ‘ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক চার স্ত্রীর বেশি রাখার বিধান নেই। সামাজিকভাবে বসে আমরা তাকে সেটাই বোঝাতে চেয়েছিলাম।’

স্ত্রীদের তালাক দিতে বাধ্য করতে পারেন কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘রবিজুল তার দুই স্ত্রীকে তালাক দেবেন বলে নিজেই অঙ্গীকার করেছেন। আমরা তাকে বাধ্য করিনি, তাকে মারধরও করিনি।’

এ বিষয়ে পাটিকাবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান শেখ রেজভি উজ্জামান বলেন, ‘আমি বিভিন্ন মাধ্যমে সামাজিক বৈঠকের বিষয়টি জেনেছি। যেহেতু আমাকে প্রধানেরা বৈঠকে উপস্থিত থাকতে বলেনি, তাই আমি এ ব্যাপারে তেমন কিছু জানি না।’

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দরিদ্র পরিবারের সন্তান রবিজুল মাত্র ১৩ বছর বয়সে বিয়ে করেন জেলার মিরপুর উপজেলার বালুচর গ্রামের কিশোরী রুবিনা খাতুনকে। বিয়ের দুই বছরের মাথায় এই দম্পতির এক ছেলেসন্তান হয়। পরে বউ ও সন্তান বাড়ি রেখে লিবিয়া পাড়ি জমান রবিজুল। সেখানে টাইলসের কাজ দিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। পরে লিবিয়াতে পরিচয় হয় কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার হেলেনা খাতুনের সঙ্গে। পরে তারা বিয়ে করেন। তাৎক্ষণিক প্রথম স্ত্রীকে বিষয়টি না জানালেও পরে জানার পর তিনি এ বিয়ে মেনে নেন। এরপর প্রথম স্ত্রী রুবিনাকেও লিবিয়া নিয়ে যান রবিজুল। সেখানে দুই স্ত্রী এবং সন্তান নিয়ে ১২ বছর বাস করেন তিনি। এরপর দেশে ফিরে বাবার ভিটায় দোতলা বাড়ি নির্মাণ করেন। এর কিছুদিন পরেই মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জের নুরুন্নাহারের সঙ্গে। পরে নুরুন্নাহারকে বিয়ে করেন রবিজুল। তবে নুরুন্নাহারের অভিযোগ সম্পর্কের শুরুতে তিনি জানতেন রবিজুলের একজন স্ত্রী আছেন।

রবিজুলের চতুর্থ স্ত্রীর নাম স্বপ্না খাতুন। বাড়ি চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামে। এরপর তিন মাসে পরপর তিনটি বিয়ে করেন রবিজুল।

রবিজুলের দাবি, বিধিসম্মত না হলেও তার স্ত্রীদের কারো কোনো অভিযোগ নেই। একসঙ্গে শান্তিপূর্ণভাবেই তারা সংসার করছেন।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পার্থ প্রতিম শীল জানান, দুই পক্ষের সমঝোতার ভিত্তিতে হলে সেটা ভিন্ন কথা। কিন্তু জোর-জবরদস্তির কোনো সুযোগ নেই।

Check Also

এক সিঙ্গাড়ার ওজন দুই কেজি

শেরপুর নিউজ ডেস্ক: ত্রিশ থেকে চল্লিশ প্রকারের মসলা, ডিম, মাংস, বাদাম, কিসমিস, চেরিসহ বিভিন্ন উপাদান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + fourteen =

Contact Us