সর্বশেষ সংবাদ
Home / খেলাধুলা / দাপুটে জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল বাংলাদেশ

দাপুটে জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল বাংলাদেশ

শেরপুর ডেস্কঃ দাপুটে জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল তারুণ্যের বাংলাদেশ। বল হাতে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ঝলক ও ব্যাট হাতে লিটন দাসের নান্দনিক ব্যাটিংয়ের সুবাদে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে ৭ উইকেটে হারিয়ে ১-১ ব্যবধানে সিরিজ সমতায় ফিরেছে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। স্বাগতিকদের ১৩৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৫ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ৩০ রানে অপরাজিত ছিলেন আফিফ হোসেন ও ১৯ রানে অপরাজিত ছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

হারারে স্পোর্টস গ্রাউন্ডে ব্যাট করতে নেমে আজ শুভ সূচনা করেছে দুই উদ্বোধনী ব্যাটার লিটন দাস ও মুনিম শাহরিয়ার। উদ্বোধনী জুঁটিতে এই দুই ব্যাটার স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ৩৭ রান। প্রথম ম্যাচের তুলনায় এই ম্যাচে বেশ সাবলীল ব্যাট করছিলেন মুনিম। কিন্তু পঞ্চম ওভারে নাগারাভার পেসে পরাস্ত হয়ে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। আউট হওয়ার আগে নামের পাশে যোগ করেন ৭ রান। এরপর এনামুল হক বিজয়কে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে স্কোরবোর্ডে আরো ৪১ রান যোগ করেন লিটন দাস। এর মধ্যে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ হাফসেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন লিটন। তবে হাফসেঞ্চুরির পর ব্যক্তিগত ইনিংসকে তেমন একটা লম্বা করতে পারেননি তিনি। ইনিংসের নবম ওভারে শন উইলিয়ামসের শেষ বলে রিভার সুইপ করতে গিয়ে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি। আবেদনের সঙ্গে সঙ্গে আম্পায়ার তাকে আউট ঘোষণা করেন। সাজঘরে ফেরার আগে ৬ চার ও ২ ছক্কার সাহায্যে ৩৩ বলে ৫৬ রান করেছেন লিটন দাস। এরপর স্কোরবোর্ডে মাত্র তিন রান যোগ হতেই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন এনামুল হক বিজয়। সিকান্দার রাজার বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ওয়েলিংটন মাসাকাদজার হাতে তালুবন্দি হন তিনি। এরপর ধীরে ধীরে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন আফিফ হোসেন ও নাজমুল হোসেন শান্ত।

সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে আজ টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভার শেষে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ১৩৪ রান সংগ্রহ করেছে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের হয়ে ক্যারিয়ারের প্রথমবার পাঁচ উইকেট পেয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। একাদশে দুই পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান। নাসুম আহমেদের পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পেয়েছেন মাহেদি হাসান ও তাসকিন আহমেদের পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পেয়েছেন হাসান মাহমুদ। ম্যাচের শুরু থেকেই স্বাগতিকদের চেপে ধরে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। উদ্বোধনী বলেই সাজঘরে ফিরিয়েছে স্বাগতিক ব্যাটার রেজিস চাকাভাকে। রানের খাতা খোলার আগেই উইকেটরক্ষক ব্যাটার নুরুল হাসান সোহানের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। একই ওভারের শেষ বলে আগের ম্যাচে ৬৭ রান করা মাধেভেরেকে দলীয় ৫ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরান সৈকত। নিজের দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিনকে ব্যক্তিগত ১ রানে প্যাভিলিয়নের পথ ধরান এই স্পিনার। এরপর পঞ্চম ওভারের চতুর্থ বলে শন উইলিয়ামসের রিটার্ন ক্যাচ নিয়ে আউট করেছেন মোসাদ্দেক। নিজের শেষ ওভার করতে এসে কাক্সিক্ষত ফাইফারও তুলে নেন ময়মনসিংহের এই তরুন। ইনিংসের সপ্তম ওভারের পঞ্চম বলে মোসাদ্দেককে লম্বা শট খেলতে গিয়ে বলকে আকাশে তুলে দেন মিল্টন সুম্বা। অসাধারণ এক ড্রাইভ দিয়ে ক্যাচ লুফে নেন হাসান মাহমুদ। এই উইকেটের সুবাদে ২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হওয়ার পর এই প্রথম ফাইফার পেয়েছেন তিনি। এই ম্যাচসহ ২০ ম্যাচে ১২টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। যেখানে আজই পেয়েছেন ৫টি। আগের ১৯ ম্যাচে পেয়েছেন মাত্র ৭টি। মাত্র ৩১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে খাদে পড়ে যায় স্বাগতিকরা। তবে সেই খাদ থেকে তাদের টেনে তোলেন সিকান্দারা রাজা ও রায়ার্ন বার্ল। ষষ্ঠ উইকেটে জুুঁটিতে এই দুইজন স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ৮০ রান। এর মধ্যে আজ দ্বিতীয় ম্যাচেও হাফসেঞ্চুরি হাঁকান সিকান্দার রাজা। ইনিংসের ১৮ ওভারের চতুর্থ বলে রায়ান বার্লকে বোল্ড করে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে উইকেটের খাতা খুলেন হাসান মাহমুদ। ৩ চারের সাহায্যে ৩২ রান করেছেন রায়ার্ন বার্ল। পরের ওভারেই মোস্তাফিজুর রহমানকে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে হাসান মাহমুদের হাতে তালুবন্দি হন সিকান্দার রাজা। আউট হওয়ার আগে ৫৩ বলে ৬২ রানের এক অনবদ্য ইনিংস খেলেছেন তিনি। শেষ ওভারের তৃতীয় বলে অষ্টম উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। ওয়েলিংটন মাসাকাদজাকে রান আউট করেন শরিফুল ইসলাম। নির্ধারিত ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রান সংগ্রহ করেছে জিম্বাবুয়ে।
বাংলাদেশের হয়ে ৫ উইকেট নিয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও ১টি করে উইকেট পেয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান ও হাসান মাহমুদ।

পঞ্চপান্ডব খ্যাত মাশরাফি বিন মর্তুজা, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এই পাঁচজনকে ছাড়াই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। বাংলাদেশের অষ্টম টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানের নেতৃত্বে এই নতুন যুগের সূচনা করেছে তরুণ টাইগাররা। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২ আগস্ট। প্রথম ম্যাচে হারলেও এই সিরিজে জয়ের জন্য মরিয়া টাইগাররা। দীর্ঘদিনের সিরিজ জয়ের আক্ষেপ ঘুচানোর সর্বাত্মক চেষ্টা করবে সোহানরা। টাইগাররা সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছে গত বিশ^কাপের আগে। ঘরের মাঠে পরপর দুই সিরিজে হারিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকে। এরপর আর কোনো সিরিজ জিততে পারেনি রিয়াদ বাহিনী। তাই এই সিরিজে জয় থাকবে সোহানদের একমাত্র লক্ষ্য।

Check Also

এবারের বিশ্বকাপে যারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন

শেরপুর ডেস্কঃ দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপের ২২তম আসর। এবার ৩২ দলের বিশ্বকাপের পর্দা উঠবে ২১ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

1 + eighteen =

Contact Us