সর্বশেষ সংবাদ
Home / বগুড়ার খবর / জেলার খবর / অদম্য দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বাহারের স্বপ্ন ‘একটি চাকুরী’

অদম্য দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বাহারের স্বপ্ন ‘একটি চাকুরী’

নাহিদ আল মালেক: মনের আলোয় আলোকিত বগুড়ার অদম্য দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এসএম বাহার উদ্দিনের স্বপ্ন ‘একটি চাকুরী’ আজও পূরণ হয়নি। আড়াই বছর বয়সে দু’চোখের আলো হারান। কিন্তু তারপরও প্রতিবন্ধীতার কাছে হার না মেনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স ও মাষ্টার্স পাশ করেছেন তিনি। কিন্তু সরকারি চাকুরীর বয়স শেষ হতে চললেও বিভিন্ন জায়গায় ধর্ণা দিয়ে আজও সন্ধান পাননি ‘সোনার হরিণের’। জীবন সংগ্রামে ঢিকে থাকার জন্য দৃষ্টিহীন এসএম বাহার উদ্দিন ও তার পরিবার শেষ স্বপ্ন চাকুরী পাবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
বগুড়া জেলা শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার পুর্ব-উত্তর দিকে অবস্থিত সোনাতলা উপজেলার পাকুল্লা ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রাম হুয়াকুয়া। এই গ্রামের সন্তান এসএম বাহারের জন্ম আর দশজন সাধারণ শিশুর মতোই। কৃষক বাবা হানিফ উদ্দিন ব্যাপারীর ৫ ছেলে আর ২মেয়ের মধ্যে বাহার তৃতীয়। কিন্তু আড়াই বছর বয়সে ডায়রিয়া হওয়ার পর স্থানীয় এক ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় ধীরে ধীরে তার দুটি চোখেরই দৃষ্টি চলে যায়। কিন্তু তারপরও অন্যের কাছে বোঝা হতে চাননি বাহার। এজন্য স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেণীতে পাশ করে বগুড়া জিলা স্কুলে ভর্তি হন। এর গাবতলী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। পরবর্তীতে আত্মনির্ভরশীল জীবন গড়ার জন্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে অনার্স ও ২০১৬ সালে মাষ্টার্স সম্পন্ন করেন। ছাত্রজীবনে দুটি প্রতিষ্ঠানের বৃত্তি এবং নিজের উর্পাজিত অর্থ দ্বারাই তিনি তার পড়াশোনা চালিয়েছেন বলে জানান।
কিন্তু শিক্ষা জীবন শেষ করার পর প্রায় ৫বছর অতিবাহিত হলেও সরকারি- বেসরকারি কোন চাকুরী পাননি বাহার। আর ৫ মাস পরেই তার সরকারি চাকুরীতে আবেদনের বয়সসীমা শেষ হতে যাচ্ছে। বৃদ্ধ বাবা-মাকে নিয়ে অসহায় বেকার জীবন তার। প্রতিবন্ধী ভাতার ৭৫০ টাকাই এখন তার আয়ের একমাত্র অবলম্বন। তার জীবনের শেষ স্বপ্ন একটি চাকুরীর জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন জানিয়েছেন।
এসএম বাহার উদ্দিন জানান, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা শুধু চোখে দেখতে পায় না। কিন্তু জগতের সবকিছুই তারা অনুভব করতে পারেন। তিনি জানান, বর্তমানে সারাদেশে ৪৪ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সফলতার সাথে শিক্ষকতা করছেন। পড়াশোনায় তারা ব্রেইল এবং শ্রুতিলিখন পদ্ধতির ব্যবহার করেছেন বলে জানান। এছাড়া দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হলেও তিনি কম্পিউটার এবং মোবাইল ব্যবহার করতে পারেন। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমও ব্যবহার করেন।
তার দেয়া তথ্য মতে, সারাদেশে ৩-৪শ শিক্ষিত দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী রয়েছেন। সরকার ইচ্ছা করলেই এদের চাকুরীর ব্যবস্থা করতে পারেন। তিনি বলেন, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা দেশের ২১৯টি রেলষ্টেশনে উপস্থাপকের কাজ করতে পারেন। এছাড়া সরকারি -বেসরকারি প্রতিষ্ঠান একটু সদয় হলেই আমাদের বেকারত্বের অভিশাপ ঘোচাতে পারেন।
তার মা আমেনা খাতুন অশ্রুসিক্ত নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট তার ছেলের একটি চাকুরির জন্য আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

Check Also

ধুনটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে দোকান ঘর উচ্ছেদ

এম.এ রাশেদ: বগুড়া ধুনট উপজেলার  কলেজ রোড হাই স্কুল মার্কেটে ওঠা অবৈধ স্থাপনা ( ৩০সেপ্টেম্বর) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six − 4 =