Home / আইন কানুন / শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গবর্নিং বডিতে সংসদ সদস্যরা থাকতে পারবেন না

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গবর্নিং বডিতে সংসদ সদস্যরা থাকতে পারবেন না

ডেস্ক রিপোর্ট: বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসাসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গবর্নিং বডিতে সভাপতি পদে সংসদ সদস্যদের মনোনয়ন বা নিয়োগকে অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে। রায়ে বলা হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংসদ সদস্যদের সভাপতি হিসেবে নিয়োগ বা মনোনয়ন সংবিধানের মূল উদ্দেশ্যের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। ৬ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়ে এ সমস্ত কথা বলা হয়েছে। বিচারপতি আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের স্বাক্ষরের পর এ রায় প্রকাশ করা হয়। সুপ্রীমকোর্টের ওয়েবসাইটে তা দেয়া হয়েছে।

রায় প্রকাশের পর রিট আবেদনকারীর আইনজীবী এ্যাডভোকেট মোঃ হুমায়ুন কবির জনকণ্ঠকে বলেন, এ রায়ের ফলে সংসদ সদস্যরা আর বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসাসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গবর্নিং বডিতে সভাপতি হতে পারবেন না। রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, একজন সংসদ সদস্যকে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হতে হয়। অপরদিকে গবর্নিং বডি নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের পদমর্যাদা সংসদ সদস্যের নিচের পদমর্যাদার। সংশ্লিষ্ট এলাকার নির্বাচিত সংসদ সদস্য যদি গবর্নিং বডির সভাপতি হন তাহলে কার্যত ওই গবর্নিং বডি একটি ব্যক্তির প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে বাধ্য।

রায়ে আরও বলা হয়, একজন সংসদ সদস্যকে তার প্রজ্ঞা এবং জ্ঞান দিয়ে দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য উন্নতির জন্য উন্নয়ন জীবন-যাপনের ব্যবস্থা করার জন্য সর্বদা নিজেকে নিয়োজিত রাখতে হয়। সংসদ সদস্য থেকে স্পীকার, প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করা হয়। সংসদ সদস্যরা হবেন বিজ্ঞ, জ্ঞানী, সাহসী, সৎ, নির্লোভ এবং দূরদৃষ্টি সম্পন্ন। তিনি কখনই তার পদমর্যাদার নিচের কোন পদে নিজেকে অধিষ্ঠিত করবেন না। প্রত্যেক সংসদ সদস্য তার এলাকার কার্যত নির্বাচিত অভিভাবক, তিনি তার এলাকার অভিভাবক হিসেবে সকল গবর্নিং বডিরও অভিভাবক। তিনি কখনই গবর্নিং বডির সভাপতির পদ পাওয়ার চেষ্টা করবেন না। একজন সংসদকে দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য যেমনইভাবে ভাল ভাল আইন প্রণয়ন করতে হয় তেমনইভাবে তার এলাকার সার্বিক উন্নয়নের জন্যও সর্বক্ষণিকভাবে নিজেকে নিয়োজিত রেখে দায়িত্ব পালন করতে হয়।

রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে, হাইকোর্ট বিভাগ এবং আপীল বিভাগের উপরিল্লিখিত রায় ও আদেশ পর্যালোচনায় এটা কাঁচের মতো স্পষ্ট যে, বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসাসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গবর্নিং বডিতে জাতীয় সংসদদের সম্মানিত সদস্যগণ সভাপতি হিসেবে নিয়োগ/মনোনয়ন সংবিধানের মূল উদ্দেশ্যের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। সর্বজন শ্রদ্ধেয় সংসদ সদস্যগণকে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ আইন প্রণয়নে সর্বক্ষণিক নিবেদিত থাকতে হয়। এছাড়া গবর্নিং বডির সভাপতির পদ সংসদ সদস্যদের মহান পদের সঙ্গে একেবারেই বিপরীত। সংসদ সদস্যগণ তার নির্বাচিত এলাকাসহ সমস্ত দেশের উন্নয়নে নিবেদিত, অপরদিকে গবর্নিং বডির সভাপতি শুধু উক্ত প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে নিবেদিত।

রায়ের আদেশে বলা হয়, অত্র রুলটি বিনা খরচায় চূড়ান্ত করা হলো। তিন নং প্রতিপক্ষ কর্তৃক ২০১৬ সালের ১৬ জুন ইস্যুকৃত পত্রটি এতদ্বারা বাতিল করা হলো। অত্র রায় ও আদেশের অবিকল অনুলিপি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষকে দ্রুত অবহিত করা হোক। এর আগে ২০১৯ সালের ২৫ নবেম্বর এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে ডিগ্রী কলেজের গবর্নিং বডির সভাপতি পদে সংসদ সদস্যদের অবৈধ ঘোষণা করে রায় প্রদান করে হাইকোর্ট।

Check Also

ডিজিটাল হচ্ছে বিচার কার্যক্রম

ডেস্ক রিপোর্ট: করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে ভিডিও কনফারেন্সসহ অন্যান্য ডিজিটাল মিডিয়ার সাহায্যে বিচারকার্য সম্পন্ন করতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nine + thirteen =