সর্বশেষ সংবাদ
Home / বগুড়ার খবর / ধুনট / ধুনটে প্রতিবন্ধির দোকান ভাঙ্গায় আদালতে মামলা দায়ের

ধুনটে প্রতিবন্ধির দোকান ভাঙ্গায় আদালতে মামলা দায়ের

এম.এ রাশেদ ঃ বগুড়ার ধুনটে শফিকুল ইসলাম নামের এক প্রতিবন্ধির দোকান ভাঙ্গার ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। ভুক্তভোগী প্রতিবন্ধি উপজেলার নান্দিয়ারপাড়া গ্রামের মৃত. সেকেন্দার আলীর ছেলে। এ ঘটনায় প্রতিবন্ধি বাদী হয়ে ৫জন কে অভিযুক্ত করে গত ১৭/১২/২০১৯ ইং তারিখে বগুড়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ধুনট আমলী আদালতে মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং-২৫৮ সি/১৯ (ধুনট)।

আদালতের অভিযোগ সৃত্রে জানা যায়, উপজেলার নান্দীয়ার পাড়া গ্রামের মৃত. সেকেন্দার আলীর ছেলে প্রতিবন্ধি শফিকুল ইসলাম ওই গ্রামের গফুর বাসষ্ট্যান্ড নামক স্থানে “মেসার্স আমেনা ভ্যারাইটি ষ্ট্রোর” নাম দিয়ে মুদির দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছিলো। পক্ষান্তেরে আসামীগণ উপজেলার নান্দিয়ারপাড়া গ্রামের মৃত. রইচ উদ্দিন ফকিরের ছেলে আব্দুর রহমান (৫৫), সোলায়মান আলী (৫০), মৃত. মকবুল হোসেন ফকিরের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪৫), রফিকুল ইসলামের ছেলে আশরাফ আলী (২৩) ও মোজাম্মেল ফকিরের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৫০) পুর্ব শক্রুতার জের ধরে বাদীকে ক্ষতিগ্রস্থ করে নিঃশ্ব করার অসৎ উদ্দেশ্যে লাঠি, লোহার রড, চাকু, রামদা , প্লাষ্টিকের বস্তা ইত্যাদি মারাত্বক অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বে-আইনি জনতা দলবদ্ধভাবে একটি মিনি ট্রাক যোগে গত ২২/১১/২০১৯ ইং তারিখে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় প্রতিবন্ধী শফিকুল ইসলামের মুদির দোকান ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও মালামাল লুট, ক্যাশ বাক্সে ভেঙ্গে টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এতে প্রায় ওই প্রতিবন্ধির ৩ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা ক্ষতি সাধন হয়। হামলার সময় প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে উপরোক্ত আসামী গন প্রাণ নাশের হুমকি দেয় যার কারনে প্রতিবেশিরা কেউ প্রানের ভয়ে এগিয়ে আসে নাই এবং হামলায় বাধাও দিতে পারে নাই। পরে দোকানের মালামাল ট্রাক যোগে পুর্ব দিয়ে নিয়ে আসমীরা।

এঘটনায় ভুক্তভোগি প্রতিবন্ধি শফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনার পরে আমি মামলা করার উদ্যেগ নিলে আসামীগণ আপোষের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু নানা তালবাহানা করে আপোষ না করায় আমার মামলা করতে বিলম্ব হয়ছে।

Check Also

ধুনটে ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন

এম.এ রাশেদ: বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছী ইউনিয়নের জয়শিং ও ধামাচামা গ্রামের ৪ পয়েন্টে বালু উত্তোলন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve + 20 =