Home / দেশের খবর / মুন্সীগঞ্জে বাসের সঙ্গে মাইক্রোর সংঘর্ষে নিহত ৯

মুন্সীগঞ্জে বাসের সঙ্গে মাইক্রোর সংঘর্ষে নিহত ৯

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে বরযাত্রী বহনকারী মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে এক পরিবারের চার সদস্য, স্বজনসহ ৯ জন নিহত হয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে শ্রীনগরের ষোলঘর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার কনকসার গ্রামের বাসিন্দা রশীদ বেপারী (৭০), তার মেয়ে লিজা (২৪), নাতনি তাবাসসুম (৬) ও রেনু আক্তার, (১২), স্বজন কেরামত বেপারী (৭২), শিশু তাহসান (৫), মফিজুল মোল্লা (৬০), মাইক্রোবাসের চালক বিল্লাল (২৮) এবং রুনা আক্তার (২৪)।

প্রথম আটজনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার সময় অ্যাম্বুলেন্সেই মারা যান। আশঙ্কাজনক দু’জনকে একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে রুনা আক্তার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আহত আরও ১০ জন শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। অন্য গাড়িতে থাকায় বেঁচে গেছেন রশীদ বেপারীর ছেলে রুবেল বেপারী।

হাইওয়ে পুলিশের হাঁসাড়া ফাঁড়ির ওসি আব্দুল বাসেদ, শ্রীনগর থানর ওসি হেদায়েতুল ইসলাম ভূইয়া ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে মাওয়াগামী স্বাধীন পরিবহনের যাত্রীবাহী বাস মহাসড়কের শ্রীনগরের ষোলঘর এলাকায় পৌঁছলে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থেকে আসা বরযাত্রী মাইক্রোর মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। বেপরোয়া বাসচালক গতি কমাতে না পারায় দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানায় পুলিশ।

ঘটনা তদন্তে ৬ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আসমা শাহীনকে প্রধান করে গঠিত কমিটিতে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, শ্রীনগর থানার ওসি, হাইওয়ে পুলিশের হাঁসাড়া ফাঁড়ির ওসি, ইউপি চেয়ারম্যান ও বিআরটিএর প্রতিনিধি রয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা, শ্রীনগর থানা ও হাইওয়ে পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দুর্ঘটনাকবলিত মাইক্রোবাসের ভেতর থেকে হতাহতদের উদ্ধার করে।

এদিকে দুর্ঘটনার পর ওই মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ঘটনাস্থলের উভয়প্রান্তে কয়েক কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে হাইওয়ে ও শ্রীনগর থানা পুলিশের চেষ্টায় এক ঘণ্টা পর যান চলাচল শুরু হয়। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান তালুকদার এবং প্রশাসন ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, তদন্ত কমিটিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। নিহতদের দাফন সম্পন্ন করতে প্রত্যেকের জন্য ২০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হবে।

Check Also

ইউএনও’র ওপর হামলা করেছে তারই সাবেক মালি!

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর তারই সাবেক মালি হামলা চালিয়েছে বলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − thirteen =