Home / স্থানীয় খবর / পৌরসভা / শেরপুর শহরে ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান : রাস্তায় ময়লা আবর্জনা দায়ী কে?

শেরপুর শহরে ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান : রাস্তায় ময়লা আবর্জনা দায়ী কে?

“ মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু”
বগুড়ার শেরপুর পৌর শহরে ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে পৌর কিচেন মার্কেট সহ প্রায় ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। অপরদিকে ৩২ জন পরিচ্ছন্ন কর্ম থাকা সত্বেও কোন কোন রাস্তায় ময়লা আবর্জনা মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি করছে। ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক থেকে কলেজ রোডের পুর্ণাতলা পর্যন্ত রাস্তাটি সুন্দর ও চকচকে লাইটিং করা হলেও খোঁড়াখুড়ির কারনে অনেক রাস্তা চলাচলে মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে।
পৌরসভা সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানাযায় ১০.৩৯৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে ১৮৭৬ সালের ১ এপ্রিল গঠিত শেরপুর পৌর এলাকার লোকসংখ্যা এখন প্রায় ৫০ হাজার। ৯ টি ওয়ার্ড ও ১৯ টি মহল্লা নিয়ে গঠিত পৌর এলাকায় শিক্ষার হার প্রায় ৭০%। খানার সংখ্যা ৪৯৪৬। প্রাচীন এই পৌরসভায় পৌরসচিব,সহকারী প্রকৌশলী,উপ সহকারী প্রকৌশলী ও হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা কর্মরত থাকলেও গুরুত্বপুর্ণ পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা ও এমবিবিএস ডাক্তারের পদ ২ টি দীর্ঘদিন যাবৎ শূন্য রয়েছে। ৩২ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী সহ প্রায় ৫২ জন কর্মকর্তা কর্মচারী পৌরসভায় কর্মরত রয়েছেন। তাদের জন্য প্রতি মাসে প্রায় ১৬ লক্ষ টাকা বেতন ভাতা প্রদান করতে হচ্ছে। পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী এস এম শফিকুল ইসলাম জানান ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫ তলা পৌর কিচেন মার্কেট সহ প্রায় ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। তবে গত অর্থ বছরে শেরপুর পৌর পার্ক সংস্কারের জন্য ৩ লক্ষ টাকা বরাদ্দ হলেও সেখানে কোন কাজ হয়নি। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী খুব নিঁচু স্বরে বলেন চলতি অর্থ বছরে এডিপি’র প্রকল্পের সাথে পৌর পার্কের সংস্কারের কাজ করা হবে। পৌরসভার বিভিন্ন রাস্তার বেহাল অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিশ্বব্যাংক শেরপুর পৌরসভায় উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করায় রাস্তা সংস্কারের জন্য আগের মত আর কোন সরকারী বরাদ্দ পাওয়া যায়না। পৌরসভার উপ সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ন কবির বলেন চলতি অর্থ বছরে এডিপি’র ৬৪ লক্ষ টাকার কাজের টেন্ডার আহবান পক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি আরও বলেন নিজস্ব আয় থেকে প্রায় ৩৬ লক্ষ টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ কাউন্সিলরদের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

পৌরসভার সুপারভাইজার রেজাউল করিম জানান পৌরসভার ৭টি গর্বেজ ট্রাক, ১ টি ভ্যাকুম ট্যাংকার, ১টি বীম লিপ্টার, ১টি রোডার মেশিন, ৪টি রোলার ও ময়লা ফেলার জন্য ১১ টি ছোট ভ্যানগাড়ী রয়েছে। এর মধ্যে ২ টি গার্বেজ ট্রাক অকেজো হয়ে পড়েছে। ১ টি নতুন সহ ৩/৪ টি গার্বেজ ট্রাক চালু থাকলেও চালক মাত্র ২ জন। তারাও দিনে ১ ট্রিপ ময়লা ফেলার পর আর কাজ করতে চায়না।
পৌরসভার হিসাব বিভাগ সুত্রে জানাযায় গত অর্থ বছরে বারোদুয়ারী হাট, সকাল বাজার ও বিকাল বাজার থেকে ১ কোটি ২৮ লক্ষ টাকা, পৌরকর থেকে ৩০ লক্ষ ১১ হাজার টাকা, ট্রেড লাইসেন্স ফি বাবদ ২০ লক্ষ ৮৩ হাজার টাকা, ভুমি রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে ২% হিসাবে ৪৭ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা সহ প্রায় ২ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকা নিজস্ব আয় হয়েছে। নিজস্ব আয় থেকেই প্রায় ২ কোটি টাকা কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদান করতে হয়। তারপরও তাদের কমপক্ষে ১০/১২ মাসের বেতন ভাতা বকেয়া রয়েছে। হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা রেজাউল করিম কর্মকর্তা কর্মচারীদের ১০/১২ মাসের বেতন ভাতা বকেয়া রয়েছে বলে স্বীকার করেন। শেরপুর পৌরসভার সচিব ইমরোজ মুজিবের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। অফিস সময় সকাল ৯ টা হলেও তিনি নিজের খেয়াল খুশি মত অফিস করেন। সচিবের অফিস রুমে প্রায়ই তালা ঝুলছে দেখা যায়। তার সাথে মোবাইল ফোনে এই প্রতিনিধি একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করনেনি। এ ছাড়া অনেক কর্মচারী অফিস থেকে ছুটি না নিয়ে ছুটি কাটান বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে কোন কর্মচারীদের জবাবদিহিও করতে হয় না। ৩২ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী থাকা সত্বেও কোন কোন রাস্তা যেমন ময়লা আবর্জনার ভাগারে পরিনত হয়েছে তেমনি আবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পৌর এলাকার বিভিন্ন মহল্লার বাসিন্দারা নির্ধারিত স্থানে ডাস্টবিন না থাকায় যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা ফেলছেন। ব্যবসায়ী আব্দুল হালিম খোকন, পৌরসভার নাগরিক আব্দুল মতিন,নাজমুল হক,আশরাফুল আলম,উৎপল মালাকার,গোলাম মোস্তফা, আব্দুর রহিম সহ বেশ কয়েকজন বলেন কিছু কিছু স্থানে পৌর কর্তৃপ যে সব ডাস্টবিন নির্মাণ করেছে, সেগুলোও নিয়মিত পরিষ্কার না করায় ময়লা-আবর্জনা উপচে পড়ে সড়কে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। দুর্গন্ধে পথচারীরা নাক-মুখ চেপে চলাচল করছেন। এ ছাড়া পৌর এলাকায় শুকরের উপদ্রবে পৌরবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। বৃষ্টি না হলেও পৌর সভার গুরুত্বপুর্ণ বাসপট্টি সড়ক,বাসঠ্যান্ড থেকে হাটখোলা সড়ক সব সময় জলমগ্ন দেখা যায়। আবার সামান্য বৃষ্টি হলেই শহরের শান্তিনগর, টাউনকলোনী, জগ্ননাথপাড়া, স্যানালপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা পানির নিচে তলিয়ে যায়। অনেক বাসা বাড়ীতেও পানি ওঠে। ফলে পৌরবাসীর চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।
কাউন্সিলর নিমাই ঘোষ বলেন প্রশাসনিক দুর্বলতার কারনে কর্মচারীদের কেউ কাউকে মানতে চায়না, পৌর ট্যাক্স ও ট্রেড লাইসেন্স ফি ঠিক মত আদায় হয়না। গার্বেজ ট্রাকের ২ জন চালক ৭ দিনে ২ দিন কাজ করলেও দিনে ১ ট্রিপের বেশী যায়না। তিনি আরও বলেন মশা মারার জন্য ওষুধ ও ১ টি ফকার মেশিন ক্রয়ের জন্য ৫ লক্ষ টাকার দরপত্র আহবান করা হয়েছে। অপর একজন পৌর কাউন্সিলর নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন ৩২ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী সহ ১২ জন অতিরিক্ত শ্রমিক প্রতিদিন কি কাজ করছে যে ময়লা অবর্জনা পরিস্কার হয়না, দুর্গন্ধে পথচারীদের নাক-মুখ চেপে চলাচল করতে হচ্ছে। এর জন্য দায়ী কে এই প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন পৌরপার্ক সংস্কারের জন্য ৩ লক্ষ টাকা সরকারী বরাদ্দ এলেও পৌরসভার সচিব কাউন্সিলরদের জানায়নি বা ৩ টাকার কাজও করা হয়নি। একজন পৌর কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন পৌরসভার মেয়র এর সততা ও সরলতার সুযোগ নিয়ে পৌরসভার সচিব ও পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী সহ কতিপয় পৌর কাউন্সিলর সিন্ডিকেট তৈরী করে সবকিছু লুটেপুটে খাচ্ছে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে পৌরসভার সচিব ইমরোজ মুজিবকে পাওয়া যায়নি তবে সহকারী প্রকৌশলী এস এম শফিকুল ইসলাম সিন্ডিকেট তৈরীর কথা অস্বীকার করে বলেন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয়।
শেরপুর নাগরিক স্বার্থ সংরক্ষন কমিটির পক্ষে সাধারন সম্পাদক সুজিত বসাক বলেন বৃষ্টি না হলেও পৌর সভার গুরুত্বপুর্ণ বাসপট্টি সড়ক সব সময় জলমগ্ন থাকে। তিনি শহরের জলাবদ্ধতা দুর করা সহ রাস্তার ময়লা আবর্জনা দ্রুত পরিস্কার করার দাবী জানান। শেরপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মকবুল হোসেন বলেন পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার একজন সৎ মানুষ হিসাবে বিপুল ভোটে মেয়র নির্বাচিত হয়ে শহরের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। তার সুনাম নষ্ট করার জন্য কতিপয় কর্মকর্তা কর্মচারী কাজে অসহযোগিতা করায় এবং যার যে দায়িত্ব তা সঠিকভাবে পালন না করায় নাগরিকদের
নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি শেরপুর শহরকে একটি পরিচ্ছন্ন শহর হিসাবে গড়ে তোলার জন্য যার যে দায়িত্ব তা সঠিকভাবে পালনের আহবান জানান।
এ বিষয়ে পৌরসভার মেয়র আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫ তলা পৌর কিচেন মার্কেট, ৮ কোটি ৬৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে মাষ্টার ড্রেন নির্মান, ২ কোটি টাকা ব্যয়ে ২টি পৌর কবরস্থান সংস্কার সহ প্রায় ৩০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। প্রকল্পগুলির কাজ শেষ হলে উন্নয়ন দৃশ্যমান হবে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নানা অজুহাতে মাষ্টার ড্রেন নির্মান কাজ সময়মত শেষ করতে পারায় পানি নিষ্কাশনে কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া পৌর কর্মচারীরা তাদের দাবী নিয়ে আন্দোলন করতে প্রায় একমাস ঢাকায় থাকায় সাময়ীকভাবে ময়লা অবর্জনা রাস্তায় দেখা গেলেও পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মী সহ অতিরিক্ত শ্রমিক দিয়ে পরিচ্ছন্ন অভিযান শুরু করায় অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই শেরপুর পৌর শহর আবার পরিচ্ছন্ন শহরে পরিনত হবে বলে পৗরসভার মেয়র আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার দাবী করেন।

Check Also

শেরপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেরামতের নামে লুটপাট

শেরপুর নিউজ২৪ডট নেট: প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসুচী (পিইডিপি-৪) এর আওতায় বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + sixteen =