Home / বগুড়ার খবর / ধুনট / ধুনটের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ ঝুঁকিপুর্ন

ধুনটের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ ঝুঁকিপুর্ন

এম.এ. রাশেদ ঃ যমুনরা পানি অব্যাহত ভাবে বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ১১৫ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধির ফলে প্রবল স্রোত ও ঘুর্নবর্তে শহরাবাড়ি পাকা সড়ক ধসে গেছে এবং প্রায় ৬ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ অত্যন্ত ঝুকি পুর্ন হয়ে পড়েছে। ঝুকিপুর্ন ওই বাধের বিভিন্ন জায়গায় গর্ত দিয়ে বন্যার পানি চুয়ে চুয়ে লোকালয়ে প্রবেশ করছে। বাধ রক্ষার্থে বগুড়ার পাউবো ও ধুনট উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদারকি সহ রাত দিন বালুর বস্তা দিয়ে মেরামত কাজ অব্যহত রেখেছেন। তাতে শেষ রক্ষা হবে কিনা এমন আশঙ্কায় বাধ সংলগ্ন আশপাশের কয়েকটি গ্রামের মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। যে কোন সময় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ ভেঙ্গে গেলে বগুড়া ও সিরাজগঞ্জ জেলার অধিকাংশ এলাকায় ভয়াবহ বন্যার আশঙ্কা রয়েছে।

বগুড়ার পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী আসাদুল ইসলাম বলেন, যমুনা নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় গত সোমবার থেকে উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের শিমুলবাড়ি থেকে সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর উপজেলার সিমানা পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ অত্যান্ত ঝুকি পুর্ন হয়ে পড়েছে। গত সোমবার থেকে কৈয়াগাড়ি এলকায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের কয়েকটি স্থানে ইদুরের গর্ত দিয়ে পানি চুয়ে লোকালয়ে প্রবেশ করা শুরু হলে বাধ রক্ষার্থে বালুর বস্তা দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা রাতে শিমুলবাড়ি এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের ৩/৪টি স্থানে আবারও ইদুরের গর্ত দিয়ে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করা শুরু হলে রাতভর বালুর বস্তা দিয়ে তা মেরামত করা হয়েছে। দু’ঘর্টনা এড়াতে ঝুকিপুর্ন এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ওই কর্মকর্তা আরোও জনান, পরিস্থিতি মোকাবেলায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের ঝুকি পুর্ন এলাকায় সার্বক্ষনিক তদারকি ও পাহারা বসানো হয়েছে। ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম নান্নু ও বর্তমান চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল বলেন, যমুনার প্রবল ¯্রােতে শহরাবড়ি ও বানিয়াযান স্পার সহ বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ অত্যান্ত ঝুকি পৃর্ন হয়ে পড়েছে।

বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ রক্ষা করা না গেলে ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ি, গোশাবাড়ি , চিকাশী , নিমগাছি , এলাঙ্গী, কালেরপাড়া সহ ১০ টি ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়ে হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দ হয়ে পড়েবে। এছাড়াও পুর্ব বগুড়ার ধুনট, শেরপুর , সারিয়াকান্দি , গাবতলী উপজেলা সহ পাশ্ববর্তী সিরাজগঞ্জ জেলার নি¤œ অঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এদিকে যমুনা নদীর ব্যাপক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ের চরাঞ্চলের বৈশাখী , রাধানগর সহ যমুনা নদীর তীরবতী বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের পূর্ব পাশে পাকড়তলী, উত্তর শহরাবড়ি, দনি শহরাবাড়ি, শিমুলবাড়ি, বানিয়াযান, বরইতলী, নিউসারিয়াকান্দি, কৈয়াগাড়ি, কচুগাড়ি, ভান্ডারবাড়ি, ভুতবাড়ি, পুকুরিয়া সহ প্রায় ১৫ টি গ্রামের শতশত পরিবার গত এক সপ্তাহ দরে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বর্তমানে ওইসব গ্রামের ঘরের চাল ছুই ছুই পানি হওয়ায় বন্যার্তরা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ও গবাদী পশু পাখি নিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ সহ নিরাপদ স্থানে আশ্রায় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

Check Also

ধুনটে ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন

এম.এ রাশেদ: বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছী ইউনিয়নের জয়শিং ও ধামাচামা গ্রামের ৪ পয়েন্টে বালু উত্তোলন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 + ten =