সর্বশেষ সংবাদ
Home / স্থানীয় খবর / শেরপুরে হাসপাতালে বহাল তবিয়তে অভিযুক্তরা!

শেরপুরে হাসপাতালে বহাল তবিয়তে অভিযুক্তরা!

নাহিদ আল মালেকঃ বগুড়ার শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর নানা অনিয়ম, অভিযোগ ও দুর্নীতির খবর একের পর এক প্রকাশিত হলেও এখনও বহাল তবিয়তে স্ব-স্ব কর্মস্থলে রয়েছে হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদের. মেডিক্যাল অফিসার ডা. সাজিদ হাসান সিদ্দিকী ও নার্সিং ইনচার্জ সুষমা রানী।
জানা গেছে, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এর সাথে অসদাচরণের কারণে ডা. আব্দুল কাদের তৎকালীন সময়ে কৌশলে ক্ষমা চান তার শোকজের জবাবে। কিন্তু তার সেই প্রথমবারের ক্ষমা প্রার্থনাও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ গ্রহন করেনি। কিন্তু তখন সারাদেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আবহ শুরু হওয়ায় সে যাত্রায় রা পান ডা. আব্দুল কাদের। সাম্প্রতিককালে তার বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির নানা অভিযোগ উঠায় জনমনে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হলেও তিনি বহাল তবিয়তে স্ব কর্মস্থলে অবস্থান করছেন। এত অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ ও জনগনের সাথে দুর্ব্যবহারের পরও সেই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।
একই অবস্থা ডা. সাজিদ হাসান সিদ্দিকী লিংকন। যিনি প্রতিনিয়ত রোগী ও তার আত্মীয়স্বজনের সাথে দুর্ব্যবহার করা, ডিউটি ফাঁকি দেয়া সহ নানা অনিয়মে জড়িত হলেও তার বিরুদ্ধেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
অপরদিকে আরেক অভিযুক্ত বর্তমান নার্সিং ইনচার্জ সুষমা রানীও বহাল তবিয়তে প্রমোশন পেয়ে কর্মস্থলেই রয়েছেন। ওই নার্সের বিরুদ্ধে ইতিপুর্বে ২০১৬ সালের ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে প্রসব বেদনায় কাতর এক মহিলাকে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা না দিয়ে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠে। পরবর্তীতে ওই মহিলা গাছতলায় কন্যা সন্তান প্রসব করে। এ ঘটনায় তখন পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে কর্তৃব্যরত ডাক্তার মোস্তফা আলামা পিয়াল ও নার্স সুষমা রানীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়। এ ঘটনায় হাইকোর্ট থেকেও কৈফিয়ত তলব করা হয় শেরপুর হাসপাতাল ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের। তখন শেরপুর হাসপাতালের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনাটি সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি করে।
কিন্তু পরবর্তীতে মামলার বাদী পরে সাথে আপোষ মীমাংসার মাধ্যমে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পান ওই ডাক্তার ও নার্স। কিন্তু ডাক্তার পিয়ালকে অন্য কর্মস্থলে বদলীয় করা হলেও নার্স সুষমা ঠিকই রয়ে গেছে তার কর্মস্থলেই। বরঞ্চ কিছুদিন পুর্বে তাকে পদোন্নতিও দেয়া হয়েছে। এ নিয়েও জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া রয়েছে।
এদিকে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভবন আছে, সেবা নেই সংক্রান্ত সিরিজ সংবাদ প্রকাশের কারণে সাধারণ জনমনে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অনেকেই এই প্রতিবেদককে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তারা, সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধি ও চিকিৎসকদের রোগীবান্ধব আচরণ করার জন্য আহবান জানিয়েছেন। পাশাপাশি সকল অনিয়ম ও দুর্নীতির উপযুক্ত বিচারও কামনা করেছেন।

Check Also

শেরপুরে হালনাগাদ হয় না সরকারি ওয়েব পোর্টাল

শেরপুর নিউজ২৪ডট নেট: বগুড়ার শেরপুর উপজেলার প্রায় অর্ধশত সরকারি ওয়েব পোর্টাল হালনাগাদ না করায় অনলাইনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × two =