Home / Uncategorized / ধুনটে চার পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধর করে আসামী ছিনতাই : ২৪জন আটক

ধুনটে চার পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধর করে আসামী ছিনতাই : ২৪জন আটক

নিউজ ডেস্কঃ বগুড়ার ধুনট উপজেলায় হামলা চালিয়ে পুলিশকে আহত করে হত্যা মামলার প্রধান আসামীকে ছিনতাই করেছে গ্রামবাসী। হামলায় পুলিশের ৪ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ২৪জন নারী-পুরুষকে আটক করেছে। বুধবার রাতে চিকাশী ইউনিয়নের ঝিনাই ও ভালুকাতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৯১জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

আহতরা হলেন বাংলাদেশ পুলিশের সিরিয়াস ক্রাইম স্কোয়াডের (সিআইডি) অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের এসআই সেলিম রেজা, এএসআই রেজওয়ানুল হক, এএসআই শাহীন বাবুল ও ধুনট থানর এএসআই শাহজাহান আলী।

ধুনট থানা সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১ মার্চ সকালে চিকাশী ইউনিয়নের চাপড়া বিল থেকে হেমায়েত উদ্দিন ওরফে কালাম নামের এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত হেমায়েত উদ্দিন পটুয়াখালির ভরিয়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। ঢাকাই নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করতেন। সেখানে ধুনট উপজেলার ঝিনাই গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের মেয়ে পোশাক শ্রমিক লাভলী খাতুনের সাথে পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে ২০০৪ সালে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী হেমায়েত উদ্দিনকে নিয়ে ঝিনাই গ্রামে বাবার বাড়ীতে সংসার শুরু করে লাভলী খাতুন। ২০১৪সালে স্বামী ও দুই কন্যাকে বাড়িতে রেখে জীবিকার তাগিদে ওমানে চলে যায় লাভলী খাতুন। এ অবস্থায় গত বছরের ১ মার্চ সকালে চাপড়া বিল থেকে হেমায়েত উদ্দিনের মৃতদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে ধুনট থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে সিআইডি’র তত্তাবধায়নে রয়েছে। ওই মামলার আসামীরা পলাতক ছিলো। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে বাড়িতে ঈদ করছিল আসামীরা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা থেকে আসা সিআইডি’র ৩ কর্মকর্তার একটি টিম ধুনট থানা পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে মামলার পলাতক আসামীদের ধরতে বুধবার রাতে অভিযান চালায়।

ওই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি’র এসআই সেলিম রেজা ধুনট বার্তাকে জানান, মামলার পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করার জন্য সিআইডি’র ৩কর্মকর্তা, ধুনট থানা পুলিশের এসআই প্রদীপ কুমার, এএসআই শাহজাহান আলী এবং আরো ৪জন কনষ্টেবল নিয়ে বুধবার রাতে আমরা অভিযান চালায়। হেমায়েত উদ্দিন হত্যা মামলা ৩নম্বর আসামী ঝিনাই গ্রামের মোখলেছুর রহমানের ছেলে শাহীন আলম (২৫) কে একই গ্রামে শ্বশ্বর বাড়ি থেকে রাত সোয়া ১টায় গ্রেফতার করি। এসময় শাহীন আলমের শ্বশুর নজরুল ইসলাম, দাদা শ্বশুর সোহরাব ওরফে সরোয়ার, শ্বাশুড়ি জরিনা খাতুন, দাদী শ্বাশুড়ি গুলজারা বেগম (৫০) ও স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুনসগ আরো ১৫/২০জন পুলিশের সরকারি কাজে বাঁধা দেয় এবং ধস্তাধস্তি করে শাহীন আলমকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। পুলিশ শাহীন আলমকে নিয়ে পার্শ্ববর্তি ভালুকাতলা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে ওই হত্যা মামলার প্রধান আসামী লিটন মন্ডল (৪৬) কে গ্রেফতার করে। এসময় লিনট মন্ডলের স্ত্রী শোভা বেগম, ছেলে সবুজ মন্ডল ডাকাত বলিয়া চিৎকার করতে থাকে এবং পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু করে। এক পর্যায়ে লিটন মন্ডলের ভাই হারেজ মন্ডল, তারেক মন্ডল ও ধর্ম শ্বশুর সারিয়াকান্দির কুতুবপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান গাজিউর রহমান ৫০/৬০জন লোক পুলিশের উপর হামলা করে। হামলাকারীরা পুলিশ কর্মকর্তাদের মারধর করে লিটন মন্ডলকে ছিনিয়ে নেয় এবং পালাতে সাহায্য করে।

ধুনট থানার এসআই প্রদীপ কুমার ধুনট বার্তাকে জানান, পুলিশের উপর হামলার পর থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ২৪জনকে আটক করা হয়েছে। সিআইডি’র এসআই সেলিম রেজা বাদী হয়ে ধুনট থানায় সরকারি কাজে বাঁধা ও মারধর করে পুলিশকে আহত করার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় পলাতক লিটন মেম্বারসহ ১১জন নামীয় এবং অজ্ঞাত ৮০জনকে আসামী করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো হলো উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের হটিয়ারপাড়া গ্রামের কাসেম ফকিরের ছেলে মারুফ হোসেন (২৮), মোস্তফার ছেলে আনোয়ার হোসেন (২৩), ভালুকাতলা গ্রামের ইফাত উদ্দিনের ছেলে রুবেল হোসেন (৩৫), দিলবর মন্ডলে ছেলে দুলাল মিয়া (৩৮), আলাল হোসেনের স্ত্রী গোলাপি খাতুন (৫০), মজনু মিয়ার স্ত্রী আছমা খাতুন (২৬), সোলায়মান আলীর স্ত্রী শাহেনা খাতুন (৪০), আলতাফ আলীর স্ত্রী সাহেদা খাতুন (৫০), মুক্তা মন্ডলের স্ত্রী মেরিনা খাতুন, ফরায়জুল হোসেনের স্ত্রী শিল্পি খাতুন (২৫), দুদু মন্ডলের স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন (৩৫), মনমিয়ার স্ত্রী বিউটি খাতুন, গোলজার হোসেনের স্ত্রী (রিনা খাতুন (২৫), শহিদুল ইসলামের স্ত্রী কহিনুর খাতুন (৩০), জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী রাহেলা খাতুন (৩৩), জামাল উদ্দিনের স্ত্রী গোলছে আরা (৫০), আব্দুল মজিদের স্ত্রী মর্জিনা খাতুন (৪০), মাফুজার রহমানের স্ত্রী সোনাভান (৩৫), ইলিয়াস আলীর স্ত্রী অলেফা খাতুন (৫০), ঝিনাই মধ্যপাড়ার জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী লাকি খাতুন (২৭), ভালুকাতলা গ্রামের সেকেন্দার মন্ডলের ছেলে তোজাম্মেল হক শিপন (৩০), বাকি মন্ডলের ছেলে রুবেল হোসেন (৩৮), ঝিনাই গ্রামের হাসেম প্রামানিকের ছেলে সোহরাব হোসেন (৬৫) ও তার ছেলে নজরুল হোসেন (৪৫)।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইসমাইল হোসেন ধুনট বার্তাকে বলেন, ঝিনাই ও ভালুকাতলা গ্রামের লোকজন যৌথ ভাবে হামলা চালিয়ে সিআইডি ও পুলিশের চার কর্মকর্তাকে আহত করেছে। তারা হত্যা মামলার প্রধান আসামী লিটন মেম্বারকে ছিনিয়ে পালাতে সাহায্য করেছে। এ ঘটনায় ২৪জনকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

Check Also

ধুনটে ড্রেজার মেশিন গুড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন

এম.এ রাশেদ: বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছী ইউনিয়নের জয়শিং ও ধামাচামা গ্রামের ৪ পয়েন্টে বালু উত্তোলন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 15 =